পাতা:জীবন-স্মৃতি - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৬১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


নানা বিদ্যার আয়োজন । २8b ভবভূতির সমানধৰ্ম্ম বিপুল পৃথিবীতে মিলিতেও পারে কিন্তু সে দিন সন্ধ্যাবেলায় মাদেরি গলিতে মাষ্টার মহাশয়ের সমানধৰ্ম্ম দ্বিতায় আর কাহারে অভু্যদয় একেবারেই অসম্ভব । যখন সকল কথা স্মরণ করি তখন দেখিতে পাই, তাঘোর বাবু নিতান্তই যে কঠোর মাষ্টারমশাইজাতের মানুষ ছিলেন তাহা নহে। তিনি ভুজবলে আমাদের শাসন করিতেন না । মুখেও যেটুকু তজ্জন করিতেন তাহার মধ্যে গৰ্জ্জনের ভাগ বিশেষ কিছু ছিল না বলিলেই হয়। কিন্তু তিনি যত ভালমানুষই হউন তাহার পড়াইবার সময় ছিল সন্ধ্যাবেল এবং পড়াইবার বিষয় ছিল ইংরেজি । সমস্ত দুঃখদিনের পর সন্ধ্যাবেলায় টিমটিমে বাতি জ্বালাইয়া বাঙালী ছেলেকে ইংরেজি পড়াইবার ভার যদি স্বয়ং বিষ্ণুদূতের উপরেও দেওয়া যায় তবু তাহাকে যমদূত বলিয়া মনে হইবেই তাহাতে সন্দেহ নাই। বেশ মনে আছে, ইংরেজি ভাষাটা যে নারস নহে আমাদের কাছে তাহাই প্রমাণ করিতে অঘোর বাবু একদিন চেষ্টা করিয়াছিলেন ;—তাহার সরসতার উদাহরণ দিবার জন্য, গদ্য কি পদ্য তাহ বলিতে পারি না, খানিকটা ইংরেজি তিনি মুগ্ধভাবে আমাদের কাছে আবৃত্তি করিয়াছিলেন। আমাদের কাছে সে ভারি অদ্ভুত বোধ হইয়াছিল । আমরা এতই হাসিতে লাগিলাম যে সে দিন তাহাকে ভঙ্গ দিতে হইল ; বুঝিতে পারিলেন মকদ্দমাটি নিতান্ত সহজ নহে—ডিক্রি পাইতে হইলে আরো এমন বছর দশ পনেরো রীতিমত লড়ালড়ি করিতে হইবে। মাষ্টারমশায় মাঝে মাঝে আমাদের পাঠমরুস্থলার মধ্যে ছাপানো বহির বাহিরের দক্ষিণ হাওয়া আনিবার চেষ্টা করিতেন। একদিন হঠাৎ পকেট হইতে কাগজে মোড়া একটি রহস্য বাহির করিয়া বলিলেন, আজ আমি তোমাদিগকে বিধাতার একটি আশ্চৰ্য্য স্থষ্টি দেখাইব । এই বলিয়া মোড়কটি খুলিয়া মানুষের একটি কণ্ঠনলী বাহির করিয়া তাহার সমস্ত কৌশল ব্যাখ্যা করিতে লাগিলেন। আমার বেশ মনে আছে ইহাতে আমার মনটাতে কেমন একটা ধাক্কা লাগিল। আমি জানিতাম সমস্ত মনুষটাই কথা কয় ; কথা কওয়া ব্যাপারটাকে এমনতর টুকরা করিয়া দেখা যায় ইহা কখনো মনেও হয়