পাতা:তাসের দেশ - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সদাগর । তোমার গানের স্বরে বোঝা যাচ্ছে, এ মানিকটি তো সদাগরি মানিক নয়— এ মানিকের নাম বলে তো । রাজপুত্র। নবীন ! নবীন ! সদাগর । নবীন ! এতক্ষণে একটা স্পষ্ট কথা পাওয়া গেল । রাজপুত্র। স্পষ্ট হয়ে রূপ নিতে এখনো দেরি আছে। গান হে নবীন, হে নবীন, প্রতিদিনের পথের ধুলায় যায় না চিন । শুনি বাণী ভাসে বসস্তবাতাসে, প্রথম জাগরণে দেখি সোনার মেঘে লীনা । সদাগর । তোমার এ স্বপ্নের ধন কিন্তু সংগ্রহ করা শক্ত হবে । রাজপুত্র । স্বপনে দাও ধরা কী কৌতুকে ভরা । কোন অলকার ফুলে মালা সাজাও চুলে, কোন অজানার স্বরে বিজনে বাজাও বীণা ৷ রাজমাতার প্রবেশ সদাগর । রানীমা, উনি মরীচিকাকে জাল ফেলে ধরবেন, উনি রূপকথার দেশের সন্ধান পেতে চান | মা । সে কী কথা । আবার ছেলেমানুষ হতে চাস নাকি । রাজপুত্র । হা মা, বুড়োমামুষির স্ববুদ্ধি-ঘেরা জগতে প্রাণ হঁাপিয়ে উঠেছে । মা । বুঝেছি বাছা, আসলে তোমার অভাবটা অভাবেরই অভাব। পাওয়া জিনিসে তোমার বিতৃষ্ণা জন্মেছে । তুমি চাইতে চাও, আজ পর্যন্ত সে সুযোগ তোমার ঘটে নি । 3 e