পাতা:তাসের দেশ - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


দ্বিতীয় দৃষ্ঠা রাজপুত্র ও সদাগরপুত্র রাজপুত্র । এক ডাঙা থেকে দিলেম পাড়ি, তরী ডুবল মাঝ-সমুদ্রে, ভেসে উঠলেম আর-এক ডাঙায় । এতদিন পরে মনে হচ্ছে, জীবনের নতুন পর্ব শুরু হল । সদাগর। রাজপুত্র, তুমি তো কেবলই নতুন নতুন করে অস্থির হলে । আমি ভয় করি ঐ নতুনকেই। যাই বল বন্ধু, পুরোনোট আরামের । রাজপুত্র । ব্যাঙের আরাম এদো কুয়োর মধ্যে । এটা বুঝলে না, উঠে এসেছি মরণের তলা থেকে। যম আমাদের ললাটে নতুন জীবনের তিলক পরিয়ে দিলেন । সদাগর। রাজতিলক তোমার ললাটে তো নিয়েই এসেছ জন্মমুহূর্তে । রাজপুত্র । সে তো অদৃষ্টের ভিক্ষেদানের ছাপ । যমরাজ মহাসমুদ্রের জলে সেটা কপাল থেকে মুছে দিয়ে হুকুম করেছেন, নতুন রাজ্য নতুন শক্তিতে জয় করে নিতে হবে, নতুন দেশে — গান এলেম নতুন দেশে । তলায় গেল ভগ্ন তরী, কুলে এলেম ভেসে । অচিন মনের ভাষা শোনাবে অপুর্ব কোন আশা বোনাবে রঙিন স্থতোয় দুঃখমুখের জাল, বাজবে প্রাণে নতুন গানের তাল, নতুন বেদনায় ফিরব কেঁদে হেসে । নাম-না-জানা প্রিয়া নাম-না-জানা ফুলের মালা নিয়া হিয়ায় দেবে হিয়া । যৌবনেরই নবোচ্ছাসে ফাগুনমাসে বাজবে নুপুর ঘাসে ঘাসে, মাতবে দখিনবায় &అ