পাতা:তাসের দেশ - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


নাই কোনো উলট-পালটা— নাই পরিবর্তন । রাজা । ওহে বিদেশী ! রাজপুত্র। কী রাজাসাহেব ! রাজা । কে তুমি । রাজপুত্র। আমি সমুদ্রপারের দূত । গোলাম । ভেট এনেছ কী । রাজপুত্র। এ দেশে সব চেয়ে যা স্থলভ তাই এনেছি। গোলাম । সেটা কী শুনি । রাজপুত্র। উৎপাত । ছক্কা । শুনলে তো রাজাসাহেব, কথাটা তো শুনলে ? লোকটা এগোতে চায়, বললে বিশ্বাস করবে না, লোকটা হাসে । তু দিনে এখানকার হাওয়া দেবে হাল্কা করে । গোলাম । এখানকার হাওয়া যেমন স্থির, যেমন ভারী, এমন কোনো গ্রহে নেই । ইন্দ্রের বিদ্যুৎ পর্যন্ত একে নাড়া দিতে পারে না, অন্তে পরে কী কথা । সকলে । ( একবাক্যে ) অন্তে পরে কা কথা । গোলাম। লঘুচিত্ত বিদেশী এই হাওয়াকে যদি হাল্কা করে তা হলে কী হবে। রাজা । সেটা চিন্তার বিষয় । সকলে । সেটা চিন্তার বিষয় । গোলাম । হাল্কা হাওয়াতেই ঝড় আসে। ঝড় এলেই নিয়ম যায় উড়ে। তখন আমাদের পুরুতঠাকুর নহল গোস্বামী পর্যন্ত বলতে শুরু করবেন, আমরা এগোব। পঞ্জা । এমন-কি, ভগবান না করুন, হয়তো এখানে হাসিট সংক্রামক হয়ে উঠবে। রাজা । ওহে ইস্কাবনের গোলাম । গোলাম । কী রাজাসাহেব । রাজা । তুমি তো সম্পাদক । গোলাম । আমি তাসদ্বীপপ্রদীপের সম্পাদক । আমি ভাসদ্বীপের কৃষ্টির রক্ষক । রাজা । কৃষ্টি । এটা কী জিনিস । মিষ্টি শোনাচ্ছে না ভে । গোলাম। না মহারাজ, এ মিষ্টিও নয়, স্পষ্টও নয়, কিন্তু যাকে বলে নতুন— নবতম অবদান । এই কৃষ্টি আজ বিপল্প । সকলে । কৃষ্টি, কৃষ্টি, কৃষ্টি । বা ১২।৪ ॐ €