পাতা:তাসের দেশ - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৩৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পুবে হাওয়ায় সেই জন্মের ফুলবাগানের গন্ধ এল । সেই জন্মের মাধবীবন থেকে ভ্রমর এসেছে মনের মধ্যে । গান ঘরেতে ভ্রমর এল গুনগুনিয়ে । অামারে কার কথা সে যায় শুনিয়ে । আলোতে কোন গগনে মাধবী জাগল বনে, এল সেই ফুল-জাগানোর খবর নিয়ে । সারাদিন সেই কথা সে যায় শুনিয়ে। কেমনে রহি ঘরে, মন যে কেমন করে, কেমনে কাটে গো দিন দিন গুনিয়ে। কী মায়া দেয় বুলায়ে, দিল সব কাজ ভুলায়ে, বেলা যায় গানের স্বরে জাল বুনিয়ে ॥ রুইতন । আচ্ছা, গরীবুমণ্ডলের জন্তে বিবিসুন্দরীদের খুজে বেড়াচ্ছি, তারাও কি তবে— হরতনী । হা, তারাও এইখানেই, নদীর ধারে ধারে, গাছের তলায় তলায় । রুইতন । কী করছে । * হরতনী । সাজ-বদল করছে, আমারই মতো । কেমন দেখাচ্ছে । পছন্দ হয় ? রুইতন । মনে হচ্ছে, পর্দা খুলে গেছে, চাদের থেকে মেঘ গেছে সরে, একেবারে নতুন মানুষ । হরতনী । তোমাদের ছক-পঞ্জা আমাদের শাসাবার জন্তে এসেছিলেন, তাদের কী দশা হয়েছে দেখো গে যাও । রুইতন । কেন । কী হল । হরতনী । খ্যাপার মতে ঘুরে ঘুরে বেড়াচ্ছে । দীর্ঘনিশ্বাস ফেলছে, এমন-কি, গুনগুন করে গানও করছে । রুইতন । গান 1 ছক্কা-পঞ্জার গান ! হরতনী স্বরে না হোক বেম্বরে । আমি তখন চুল বাধছিলুম। থাকতে পারলুম না, চলে আসতে হল । \ఠి