পাতা:ত্রিদিববিজয় কাব্য.djvu/১১৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


%•% ত্ৰিfদৰবিজয় । তুমি, নিমেষে বিমূঢ় হবে বিশ্ব চরচর। স্থাবর জঙ্গম, জড়, ক্ষুব্ধ স্তন্ধ হবে। স্তম্ভন এ শূল-নাম। কিন্তু বিশ্বনাশী বিষ যথা সঞ্জীবনী সুধা রূপে রক্ষে মুমুঘুরে, এই মহা শূলাঘাতে গত-জীব জীবে। জীবন, মরণ রাজে একত্র এ শূলে, শূল জগ্রে, নিশিদিব৷ বিরাজে একত্র যথা সুমেরুর চুড়ে ।” উত্তরিলা সেনাপতি, “গ্রহিলাম মাতৃদত্ত শূলে। মাতৃস্নেহ, অবশ্য রক্ষিবে মোরে এ ঘোর আহবে। নাহিক,–নাহিক সংশয় তাহে। কিন্তু মাতৃসম, কহিও কিরি, কহিও মায়েরে, রক্ষা হেতু এই অস্ত্রে রাখিমু নিকটে। নহে আক্রমণ ভরে। রক্ষিয়াছি ভুজবলে দেবসেনাদলে এতকাল, রক্ষিয়াছি এ ভীষণ রণে। রক্ষিব এখনও হেলে অমরারি হতে। কিন্তু ফিরি নাহি দিব মাতৃধনে। স্নেহপরবশ সদা মায়ের হৃদয়, এ জগতে। তেঁই অস্ত্রে রাখিব যতনে । কিন্তু বিধি যেন নাছি দেন প্রয়োজন সে অস্ত্ৰধারণে। এ বারত, মাতৃসম,