পাতা:দুই বোন - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১০৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।
১১২
দুই বোন

একটা কিছু শখের জিনিস কিনে দিত। শৰ্মিলা ভেবে ছিল এবারেও নিশ্চয় দেবে, কাল পাব জানতে। অাজ ও অার কিছুই সহ্য করতে পারছে না। ঘরে যখন কেউ নেই তখন কেবলি ব’ল ব’লে উঠছে, “মিথ্যে, মিথ্যে, মিথ্যে, কী হবে এই খেলায়।” রাত্রে ঘুম হোলো না। ভোরবেলা শুনতে পেলে মোটরগাড়ি দরজার কাছ থেকে চলে গেল। শৰ্মিলা ফুপিয়ে উঠে কেঁদে বললে, “ঠাকুর, তুমি মিথ্যে।” এখন থেকে রোগ দ্ৰুত বেড়ে চলল। দুলক্ষণ যেদিন অত্যন্ত প্ৰবল হয়ে উঠেছে সেদিন শৰ্মিলা ডেকে পাঠালে স্বামীকে। সন্ধ্যেবেলা, ক্ষীণ অালো ঘরে, নাসকে সংকেত করলে, চলে যেতে। স্বামীকে পাশে বসিয়ে হাতে ধরে বললে, “জীবনে অামি যে-বর পেয়ে ছিলুম ভগবানের কাছে, সে তুমি। তার যোগ্য শক্তি আমাকে দেননি। সাধ্যে যা ছিল করেছি। ক্ৰটি অনেক হয়েছে, মাপ করে। অামাকে।” শশাঙ্ক কী বলতে যাচ্ছিল, বাধা দিয়ে বললে,— “না, কিছু বোলো না। উৰ্মিকে দিয়ে গেলুম তোমার