পাতা:দুই বোন - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৮০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


이 8 দুই বোন বিশেষ রুচিকর, সেটাই খাবার সময় হঠাৎ দেখা যায় অবর্তমান । তার কৈফিয়ত মেলে, কিন্তু কোনো কৈফিয়তকে এ সংসার এতদিন আমল দেয়নি । এসব অনবধানতা ছিল অমার্জনীয়, কঠোর শাসনের যোগ্য ; সেই বিধিবদ্ধ সংসারে আজ এতবড়ে যুগান্তর ঘটেছে যে গুরুতর ক্রটিগুলোও প্রহসনের মতো হয়ে উঠল। দোষ দেব কা’কে । দিদির নির্দেশমতে উমি যখন রান্নাঘরে বেতের মোড়ার উপর ব’সে পাক প্রণালীর ' পরিচালনকার্যে নিযুক্ত, সঙ্গে সঙ্গে পাচক ঠাকরুনের পূর্বজীবনের বিবরণগুলির পর্যালোচনাও চলছে, এমন সময় শশাঙ্ক হঠাৎ এসে বলে, “ওসব এখন থাক।” “কেন কী করতে হবে ।” “আমার এবেল ছুটি আছে, চলো, ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালের বিলডিংটা দেখবে। ওটার গুমর দেখলে হাসি পায় কেন তোমাকে বুঝিয়ে দেব।” এতবড়ো প্রলোভনে কর্তব্যে ফাকি দিতে উৰ্মির মনও তৎক্ষণাৎ চঞ্চল হয়ে ওঠে । শৰ্মিলা জানে পাকশাল থেকে তার সহোদরার অন্তর্ধানে আহার্যের উৎকর্ষসাধনে কোনো ব্যত্যয় ঘটবে না, তবু স্নিগ্ধ