পাতা:দুই বোন - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৯৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।
১১২
দুই বোন

ভাবছি, লোকটার গণ্ডদেশ তো কম নয়, ইংরেজিতে যাকে বলে চীক।” উৰ্মির মনের মধ্যে থেকে প্ৰকাণ্ড একটা ভার নেমে গেল— বহুদিনের ভার। মুক্তির আনন্দ ও কী যে করবে তা ভেবে পাচ্ছে না। ওর সেই কাজের ফৰ্দটা ছিাঁড়ে ফেলে দিলে। গলিতে ভিক্ষুক দাড়িয়ে ভিক্ষা চাইছিল, জানালা থেকে আঙটিা ছুড়ে ফেললে তার দিকে। জিজ্ঞাসা করলে, “এই পেনসিলের দাগ দেওয়া মোটা বইগুলো কি কোনো হকার কিনবে।” “নাই যদি কেনে, তার ফলাফলটা কী অাগে শুনি।” “যদি ওর মধ্যে সাবেককালের ভূতটা বাসা করে। মাঝে মাঝে অধোক রাত্ৰে তৰ্জনী তুলে আমার বিছানার কাছে এসে দাড়ায়।” “সে অাশঙ্কা যদি থাকে হকারের অপেক্ষা করব না, অামি নিজেই কিনব।” “কিনে কী করবে।” “হিন্দুশাস্ত্ৰমতে অন্ত্যেষ্টিসৎকার। গয়া পৰ্যন্ত যেতে রাজি, তাতে যদি তোমার মন সান্তনা পায়।”