পাতা:দুই বোন - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৯৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।
১১২
দুই বোন

“না, অতটা বাড়াবাড়ি সইবে না ।” “আচ্ছা, আমার লাইব্ৰেরির কোণে পিরামিড বানিয়ে ওদের মামি করে রেখে দেব ।” “আজ কিন্তু তুমি কাজে বেরোতে পাবে না ।” “সমস্ত দিন ?” “সমস্ত দিনই ।” “কী করতে হবে ।” “মোটরে ক’রে উধাও হয়ে যাব ।” “দিদির কাছে ছুটি নিয়ে এসো গে।” “না, ফিরে এসে দিদিকে বলব, তখন খুব বকুনি খাব । সে-বকুনি সইবে ।” “আচ্ছা, আমিও তোমার দিদির বকুনি হজম করতে রাজি, টায়ার যদি ফাটে দুঃখিত হব না, ঘণ্টায় পঁয়তাল্লিশ মাইল বেগে দুটা-চারটে মানুষ চাপা দিয়ে একেবারে জেলখানা পৰ্যন্ত পোঁছতে আপত্তি নেই কিন্তু তিন সত্যি দাও যে মোটর-রথযাত্ৰা সাঙ্গ ক’রে অামাদেরি বাড়িতে তুমি ফিরে আসবে।” “অসাব, আসব, অাসব ।” মোটরযাত্রার শেষে ভবানীপুরের বাড়িতে দুজনে এল, কিন্তু ঘণ্টায় পঁয়তাল্লিশ মাইলের বেগ রক্ত থেকে এখনো