পাতা:দেবী চৌধুরানী - বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/১২১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


फूडौग्न ५७-विडौग्न •रिष्झ्न X 96. লম্বা চোড়া কথা ৰলিয়। আবার একবার জন্মের মত ত্যাগ করিয়া চলিয়া যাইবেন । কিন্তু কেঁদে । BB BB BBBB BBBS BB BBB BB BB BB BB BBS M MMMMM BBD DD DBB BBBB BBBS BBB BBB BBB BBB BBB BDSDD S BBBBB DD DB BB BB DD D DD BB DD DDD DBBS DD DD S B BB BBB D DB BB BB SBBBD D DBS BBBS B BB BBBS BB S বুঝাইতে পারিব না। শুনিয়াছিলাম, তুমি মাই। কিন্তু আমার পক্ষে ভূমি ছিলে। আমি ভার পরও মনে জানিতাম, তুমিই আমার স্ত্রী—মনে আর কাহারও স্থান ছিল না। বলব না মনে করিয়াছিলাম, কিন্তু বলাতেও ক্ষতি নাই—তুমি মরিয়াছ শুনিয়া, আমিও মরিতে বসিয়াছিলাম। এখন মনে হয়, মরিলেই ভাল হইত ; তুমি মরিলে ভাল হইত—না মরিয়াছিলে ত আমি মরিলেই ভাল হইত। এখন যাহা শুনিয়াছি, বুঝিয়াছি, তা শুনিতে হইত না, বুঝিতে হইত না । আজ দশ বৎসরের হারান ধন তোমায় পাইয়াছি, আমার স্বৰ্গমুখের অপেক্ষা অধিক সুখ হইত। তা না হয়ে প্রফুল্ল, আজ তোমায় পাইয়া মৰ্ম্মান্তিক যন্ত্রণ।" তার পর একবার থামিয়া একটু ঢোক গিলিয়, মাথা টিপিয়া ধরিয়া ব্ৰজেশ্বর বলিল, “মনের মন্দিরের ভিতর সোনার প্রতিমা গড়িয়া রাখিয়াছিলাম—আমার সেই প্রফুল্ল—মুখে আসে না—সেই প্রফুল্পের এই বৃত্তি!” প্রফুল্ল বলিল, “কি ? " ডাকাইতি করি ?” ত্র । কর না কি ? ইহার উত্তরে প্রফুল্ল একটা কথা বলিতে পারিত। যখন ব্রজেশ্বরের পিতা প্রফুল্লকে জন্মের মত ত্যাগ করিয়া গৃহবহিষ্কৃত করিয়া দেয়, তখন প্রফুল্ল কাতর হইয়া, শ্বশুরকে জিজ্ঞাসা করিয়াছিল, “আমি অল্পের কাঙ্গাল, তোমরা তাড়াইয়া দিলে—আমি কি করিয়া খাইব ?” তাহাতে শ্বশুর উত্তর দিয়াছিলেন, “চুরি ডাকাইতি করিয়া খাইও ” প্রফুল্ল মেধাবিনী— সে কথা ভুলে নাই । ভুলিবার কথাও নহে। আজ ব্রজেশ্বর প্রফুল্লকে ডাকাইত বলিয়, এই ভৎসনা করিল ; আজ প্রফুল্লের সেই উত্তর ছিল। প্রফুল্লের এই উত্তর ছিল, “আমি ডাকাইত বটে—তা এখন এত ভৎসনা কেন ? তোমরাই ত চুরি ডাকাইতি করিয়া খাইতে বলিয়াছিলে। আমি গুরুজনের আজ্ঞা পালন করিতেছি।” এ উত্তর সম্বরণ করাই যথার্থ পুণ্য । প্রফুল্ল সে পুণ্য সঞ্চয় করিল,—সে কথা মুখেও আনিল না। প্রফুল্ল স্বামীর কাছে হাত যোড় করিয়া এই উত্তর দিল । বলিল, “আমি ডাকাইত নই। আমি তোমার কাছে