পাতা:নবজাতক-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/১০০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


নবজাতক জীবনের রস আজ মজ্জায় বহে, বাহিরে প্রকাশ তার নহে । অন্তর বিধাতার স্বষ্টি-নিদেশে যে অতীত পরিচিত, সে নূতন বেশে সাজ বদলের কাজে ভিতরে লুকালে, বাহিরে নিবিল দীপ, অন্তরে দেখা যায় আলো । গোধূলির ধূসরতা ক্রমে সন্ধ্যার প্রাঙ্গণে ঘনায় আঁধার । মাঝে মাঝে জেগে ওঠে তারা আজ চিনে নিতে হবে তাদের ইশারা । সমুখে অজানা পথ ইঙ্গিত মেলে দেয় দূরে, সেথা যাত্রার কালে যাত্রীর পাত্রটি পুরে সদয় অতীত কিছু সঞ্চয় দান করে তারে পিপাসার গ্রানি মিটাবারে । যত বেড়ে ওঠে রাতি সত্য যা সেদিনের উজ্জল হয় তার ভাতি । এই কথা ধ্রুব জেনে নিভৃতে লুকায়ে সারা জীবনের ঋণ একে একে দিতেছি চুকায়ে ॥ ১১ জানুয়ারি, ১৯৪০ ৯২