পাতা:নীতিকণা - নারায়ণচন্দ্র বিদ্যারত্ন.pdf/৩৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।
২৯
নীতিকণা।

পরস্পর শিষ্টাচার শেষ হ’লে পরে,
বলিল পণ্ডিত তারে অতি মৃদুস্বরে।
“অনুগ্রহ প্রকাশিয়ে বল মহাশয়,
কিরূপে হইল তব জ্ঞানের উদয়।
জেগেছ কি রজনীতে বিদ্যার লাগিয়া,
লভেছ কি জ্ঞানধন বিদেশ ভ্ৰমিয়া?
জ্ঞানার্থে কি করে’ছিলে কর্ণাটে গমন,
উজ্জয়িনী গিয়া কি হে লভিলে এ ধন?
তোমার মানস-পটে মনু মহাকবি,
অঙ্কিত করিয়া গে’ছে জ্ঞানের কি ছবি”?
বিনয়ে কৃষক বলে “শুন মহাশয়,
আমার বিদ্যার সহ নাহি পরিচয়।
মানবের রীতি নীতি শিখিবার তরে,
কভু আমি ভ্ৰমি নাই দেশ দেশান্তরে।
নরের চরিত বল বুঝিব কেমনে,
বুঝিতে অক্ষম তাহা বুদ্ধিমান জনে।
আপনিই আপনারে না পারি বুঝিতে,
যতন করিব কেন অপরে জানিতে?
মানবের রীতি নীতি করি দরশন,
সাধ্য কি করিতে পারি জ্ঞান উপার্জ্জন?