পাতা:নেতাজীর জীবনী ও বাণী - নৃপেন্দ্রনাথ সিংহ.pdf/৬৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।

৫৪

সুভাষচন্দ্রের জীবনী ও বাণী

করিত। ইহারা মিত্রপক্ষের ট্যাঙ্কের নীচে পিঠে মাইন বাধিয়া পড়িয়া থাকিত। সুযোগমত টাঙ্ক উড়াইয়া দিত এবং নিজেরা মৃত্যুবরণ করিত। (৭) তিন শত বাহাদুর দলের ফৌজ। (৮) সাত শত সাহায্যকারী সৈন্য। ইহা ছাড়া ভারী কামান বাহিনী, সংবাদ সংগ্রাহক দল, চিকিৎসক বাহিনী, ইঞ্জিনিয়ার বাহিনী, হিন্দুস্থান ফিল্ড গ্রপ দল ছিল। সৈন্যদের আভ্যন্তরীণ ব্যবস্থার জন্য ব্যবস্থা কমিটী গঠিত হয়। ইহার প্রচার কার্যও চালাইত। সৈন্যগণ ব্রিটিশ ইউনিফরম পরিত। নেতাজী জাপানে ৪৫ জন বালককে সামরিক শিক্ষার জন্য পাঠান। তাহারা সম্প্রতি ভারতে ফিরিয়াছে।

 গান্ধী ব্রিগেড পালেল টামু, এলাকায়, বসু ব্রিগেড কালাদান উপত্যকায়, ক্যাপ্টেন আজমীর সিংহের চারিটি দল কোহিমা রণাঙ্গনে যুদ্ধ করিয়াছিল। গান্ধী ব্রিগেডের ৬টি কোম্পানী ও এস্ এস্ বাহিনীর সৈন্যগণ অগ্রগামী ছিল। তিনটি কোম্পানী রসদ সরবরাহের কার্যে নিযুক্ত ছিল। একটি কোম্পানি যোগদানের ঘাঁটি পাহারা দিত। কোহিমা অঞ্চলে কিকারী এজেন্সীর লোকজন গুপ্তচর হিসাবে সংবাদ সংগ্রহ করিত। ভারতীয় নাগ, বর্মী ও জাপানী অসামরিক লোক দিয়া এস, এস, বাহিনী গঠিত হইয়াছিল। সরবরাহের অসুবিধার জন্য আটার পরিবর্তে সৈন্যরা জৈ খাইত। সৈন্যদিগের ধ্বনি ছিল ‘জয় হিন্দ্' সৈন্যগণ ত্রিবর্ণ রঞ্জিত কংগ্রেস ব্যাজ এবং আজাদ হিন্দ নামাঙ্কিত পিতলের ব্যাজ পরিত। শেষোক্ত ব্যাজে ‘ভারতের