পাতা:পণ্ডিত শিবনাথ শাস্ত্রীর জীবনচরিত.pdf/৮৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


\ჯტ8 শিবনাথ-জীবনী । নাচিতে কি করিয়া খাল পারে। খেলিতে গিয়াছিলেন, তা আজও মনে পড়ে। মনটা বরাবর সরল সাদা, অপরকে দিতে চিরদিই মুক্তহস্ত ছিলেন। দীনবাবু বলেন-“এক একদিন পড়িবার সময় শিবনাথের কাপড়ের খুটে কি বাধা দেখিতাম, জিজ্ঞাসা করিতাম “এটা কি? ? শিবনাথ উত্তর করিতেন। “আজি ভাতখেয়ে আসিনি, মা এই কাপড়ে মিছরি বেধে দিয়েছে, তোমাদেরও দেব খেতে ।” শিবনাথ বাল্যকালে পিতাকে অত্যন্ত ভয় করিতেন, তাহার কারণ হরানন্দ শৰ্ম্ম পুত্ৰকে যখন তখন সামান্য কারণে গুরুতর প্ৰহার করিতেন। পিতার মুখের দিকে তাকাইয়া কথা বলিতে BBD BBDBD DBDBD DDSS SBDDDDS S DDD S KB S DBDBBB BBBS পল্লীগ্রামের ছেলেরা বড় গালাগালি দেয়-শিবনাথও বাল্যকালে গাল দিতে শিখিয়াছিলেন । একবার মাকে অন্যান্য ছেলেদের দৃষ্টান্তে বাপান্ত করেন, তাহাতে গোলোকমণি খোলার কুচি মুখে দিয়া এমন রাগড়াইয়া দিয়াছিলেন যে মুখ কাটিয়া রক্তাক্ত হইয়াছিল। সেই অবধি গালাগালি বন্ধ হয়। দোষ করিলে পিতামাতা কাহারও হস্তে নিস্কৃতি ছিল না । পিতা ভুলেও ছেলেকে BD DBBD DS DBD DD uBB BDBDBS BD DBDBD DS তিনি পুত্রের উপর সর্বদা প্রখর দৃষ্টি রাখিতেন। শিবনাথের পিতা কিরূপ সামান্য কারণে ছেলেকে গুরুতর প্রহার করিতেন। তাহার বিবরণ তঁর আত্মচরিতে দিয়াছেন। -বিবাহের পর যে প্ৰহার করিয়াছিলেন তাহা জননী প্ৰসন্নময়ী দেখিয়াছিলেন-তখন শিবনাথের বয়স ১২ পূর্ণ হয় নাই। যখন খুঁটিতে বান্ধুি কাঠের চেলার বাড়ী প্রহার করিতে লাগিলেন, এবং শিবনাথ অধীন হইয়া পড়িলেন, জননী চীৎকার করিয়া “ওরে আমার ছেলেকে মেরে