পাতা:পত্রপুট-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/৩১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।
২০
পত্রপুট
 

একদা মৃত্যুশােকের বেদমন্ত্র
তুলে ধরেছে বিশ্বের আবরণ, বলেছে—
পৃথিবীর ধূলি মধুময়।
সেই সুরে আমার মন বললে,—
সংগীতময় ধরার ধূলি।
আমার মন বললে,—
মৃত্যু, ওগাে মধুময় মৃত্যু,
তুমি আমায় নিয়ে চলেছ লােকান্তরে
গানের পাখায়॥


আমি ওকে দেখলেম—
যেন নিকষবরন ঘাটে সন্ধ্যার কালাে জলে
অরুণবরন পা-দুখানি ডুবিয়ে বসে আছে অপ্সরী,
অকূল সরােবরে সুরের ঢেউ উঠেছে মৃদুমৃদু,
আমার বুকের কাঁপনে কাঁপন-লাগা হাওয়া
ওকে স্পর্শ করছে ঘিরে ঘিরে॥


আমি ওকে দেখলেম,
যেন আলাে-নেবা বাসরঘরে নববধূ,
আসন্ন প্রত্যাশার নিবিড়তায়
দেহের সমস্ত শিরা স্পন্দিত।
আকাশে ধ্রুবতারার অনিমেষ দৃষ্টি,
বাতাসে সাহানা রাগিণীর করুণা॥