পাতা:পলাতকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/৩২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


মায়ের সম্মান বিষম কাণ্ড হত ডাইনে বায়ে তু ধার থেকে মারের পরে মেরে । বিনা দোষে শাস্তি দিয়ে কোলের বাছাদেরে ঘরের দুয়ার বন্ধ ক’রে মাসি থাকত উপবাসী ; চোখের জলে বক্ষ যেত ভাসি । অবশেষে ছটি ছেলে মেনে নিল নিজেদের এই দশা । তখন তাদের চলা-ফেরা ওঠা-বসা স্তব্ধ হল, শান্ত হল, হায় পাখিহারা পক্ষীনীড়ের প্রায় । এ সংসাবে বেঁচে থাকার দাবি ভাটায় ভাটায় নেবে নেবে একেবারে তলায় গেল নাবি ; ঘুচে গেল ন্যায়-বিচারের আশা, রুদ্ধ হল নালিশ করার ভাষা । সকল দুঃখ দুটি ভাইয়ে করল পরিপাক নিঃশব্দ নির্বাক । চক্ষে আধার দেখত ক্ষুধার ঝোকে— পাছে খাবার না থাকে আর পাছে মায়ের চোখে জল দেখা দেয়, তাই বাইরে কোথাও লুকিয়ে থাকত, বলত ক্ষুধা নাই । অস্থখ করলে দিত চাপা । দেবতা মানুষ কারে ○>