পাতা:পলাতকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/৩৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পলাতক। তা হলে হয় ভালো । মনে হল, শত্রু আমার আকাশ-ভরা আলো, দেবতা আমার শত্ৰু, আমার শত্রু বসুন্ধরা, মাটির ডালি আমার অসীম লজ্জা দিয়ে ভরা ! তাই তো বলি বিশ্বজোড়া সে লাঞ্ছনা তেমন করে পায় না যেন কোনো জনী, বিধির কাছে এই করি প্রার্থনা।’ ব্যাপারটা কী ঘটেছিল অল্প লোকেই জানে, ব’লে রাখি সে কথা এইখানে । অপূর্ব রায় দেখা দিল কানাইদাদার ঘরে। একে একে তিনটে থিয়েটার ভাঙাগড়া শেষ ক’রে সে হল ক্যাশিয়ার সদাগরের আপিসেতে। সেখানে আজ শেষে তবিল-ভাঙার জাল হিসাবের দায়ে ঠেকেছে সে। হাতে বেড়ি পড়ল বুঝি, তাই সে এল ছুটে উকিল দাদার ঘরে, সেথায় পড়ল মাথা কুটে । কানাই বললে, ‘মনে কি নেই ? অপূর্ব কয় নতমুখে,— অনেক দিন সে গেছে চুকেবুকে । ‘চুকে গেছে! কানাই উঠল বিষম রাগে জ্ব’লে, জ’লে,— \o