পাতা:পলাতকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/৪৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পলাতক ভাজাভুজি হত পাচটা-ছটা ; পাঠ হত রুটি-লুচির সাথে । মঞ্জুলিক ছবেলা সব আগাগোড়া রাধে আপন হাতে। একাদশী ইত্যাদি তার সকল তিথিতেই রাধার ফর্দ এই ৷ বাপের ঘরটি আপনি মোছে ঝাড়ে ; রৌদ্রে দিয়ে গরম পোশাক আপনি তোলে পাড়ে। ডেস্কে বাক্সে কাগজপত্র সাজায় থাকে থাকে, ধোবার বাড়ির ফর্দ টুকে রাখে । গয়লানি আর মুদির হিসাব রাখতে চেষ্টা করে, ঠিক দিতে ভুল হলে তখন বাপের কাছে ধমক খেয়ে মরে । কামুন্দি তার কোনোমতেই হয় না মায়ের মতো, তাই নিয়ে তার কত নালিশ শুনতে হয় । তা ছাড়া তার পান-সাজাটা মনের মতো নয় । মায়ের সঙ্গে তুলনাতে পদে-পদেই ঘটে যে তার ত্রুটি । মোটামুটি— আজকালকার মেয়ের কেউ নয় সেকালের মতো । হয়ে নীরব নত, মঞ্জুলী সব সহ করে, সর্বদাই সে শান্ত, কাজ করে অক্লান্ত । যেমন করে মাতা বারম্বার و 8