পাতা:পলাতকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/৫৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।

মালা

আমি যেদিন সভায় গেলেম প্রাতে,
সিংহাসনে রানীর হাতে
ছিল সােনার থালা,
তারই ’পরে একটি শুধু ছিল মণির মালা।

কাশী কাঞ্চী কানােজ কোশল অঙ্গ বঙ্গ মদ্র মগধ হতে
বহুমুখী জনধারার স্রোতে
দলে দলে যাত্রী আসে
ব্যগ্র কলােচ্ছ্বাসে।
যারে শুধাই ‘কোথায় যাবে’ সেই তখনি বলে,
‘রানীর সভাতলে।’
যারে শুধাই ‘কেন যাবে’ কয় সে তেজে, চক্ষে দীপ্ত জ্বালা,—
‘নেব বিজয়মালা।’

কেউ বা ঘোড়ায় কেউ বা রথে
ছুটে চলে, বিরাম চায় না পথে।

মনে যেন আগুন উঠল খেপে,
চঞ্চলিত বীণার তারে যৌবন মাের উঠল কেঁপে কেঁপে।
মনে মনে কইনু হর্ষে, ‘ওগাে জ্যোতির্ময়ী,
তােমার সভায় হব আমি জয়ী।

৫৩