পাতা:পলাতকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/৬৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।




পলাতক

লক্ষ্য ক’রে বৈতরণীর ঘাট ;
গম্ভীরতার স্তম্ভিত ভার বহন ক’রে প্রাণটা হবে কাঠ ।
সময় নষ্ট হবে না আর দিনে রাতে,
দৌড়বে মন লেখার খাতার শুকনো পাতে পাতে ;
বৈঠকেতে চলবে আলোচনা
কেবলই সৎপরামর্শ, কেবলই সদৃবিবেচনা ।

ঘরের সকল আকাশ ব্যেপে
দারুণ শূন্য রয়েছে মোর চৌকি টেবিল চেপে ।
তাই সেখানে টিকতে নাহি পারি ;
বৈরাগ্যে মন ভারী,
উঠোনেতে করছিনু পায়চারি।
এমন সময় উঠল মাটি কেঁপে—
হঠাৎ কে এক ঝড়ের মতো বুকের পরে পড়ল আমার বেীপে ।
চমক লাগল শিরে শিরে,
হঠাৎ মনে হল বুঝি বিজুই আমার এল আবার ফিরে ।
অামি শুধাই, কে রে ! কী রে ?
‘আমি ভোলা সে শুধু এই কয়,
এই যেন তার সকল পরিচয়— আর কিছু নেই বাকি ।
আমি তখন অচেনারে হু হাত দিয়ে বক্ষে চেপে রাখি।
সে বললে, “ঐ বাইরে তেঁতুল গাছে
No 8