পাতা:পলাতকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/৭৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পলাতকা কাদো-কাদো কণ্ঠে তাহার করুণ মিনতি সে ভুলতে পারি কি সে ! মনে পড়ে নীরব ব্যথা তার বাবার কাছে যখন খেতেম মার ; ফেলেছে সে কত চোখের জল, মোর অপরাধ ঢাকা দিতে খুজিত কত ছল । আরো কিছু বড়ো হলে আমার কাছে নিত সে তার বাংলা পড়া ব’লে । নামতাটা তার কেবল যেত বেধে ; তাই নিয়ে মোর একটু হাসি সইত না সে, উঠত লাজে কেঁদে । তামার হাতে মোটা মোটা ইংরেজি বই দেখে ভাবত মনে, গেছে যেন কোন আকাশে ঠেকে রাশীকৃত মোর বিদ্যার বোঝা— যা-কিছু সব বিষম কঠিন আমার কাছে যেন নেহাত সোজা । হেন কালে হঠাৎ সে-বার, দশমীতে দ্বারিগ্রামে ঠাকুর ভাসান দেবার বাস্তা নিয়ে তুষ্ট পক্ষের চাকর-দরোয়ানে বকাবকি লাঠালাঠি বেধে গেল গলির মধ্যখানে । তাই নিয়ে শেষ বাবার সঙ্গে মনুর বাবার বাধল মকদ্দমা, কেউ কাহারে করলে না আর ক্ষমা । কুয়ার মোদের বন্ধ হল— १२