পাতা:প্রবাসী (ঊনত্রিংশ ভাগ, দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/৬৭১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


శ్రీశిe ہے نہایت تھی- یھ مہم = = = = ماہ* পূৰ্ব্বে দেখিয়াছি,রজু আকৃতিতে সৰ্পসদৃশ। সৰ্পে আমাদের আশঙ্কার কারণ আছে। অন্ধকারে রজ্জ্বর অপরাপর বিশেষত্ব প্রচ্ছন্ন থাকিয়া কেবল ইহার সর্পসদৃশ ভাবটা যখন আমাদের বোধগত হয়, তখন পূর্ব-সংস্কারবশতঃ মনোমধ্যে ভীতির উদয় হয় ও সেই ভীতিজনিত মোহবশতঃ আমাদের রজুতেই সর্পভ্রম হইতে পারে। এই প্রকার যত ভ্ৰম, তন্ম লে এই ভাবের বিশিষ্ট কারণ থাকে। ব্ৰন্ধে জগদত্রমের মূলে এই ভাবের বিশিষ্ট কারণ আছে কি না, তাহাই দেখিতে হইবে। যদি এই ভাবের কারণ থাকে, তাহা হইলে বুঝিতে পার! যাইবে, জগদম্ৰম অজ্ঞানবশতঃ হইয়া থাকে। যদি স্বীকার করা যায় যে, ত্রন্ধে জগদপ্রমের মুলে এই ভাবের বিশিষ্ট কারণ আছে, তাহা হইলে বলিতে হয় যে, ব্ৰহ্ম ছাড়া এমন কোন কিছু আছে, যাহা জগৎসদৃশ ও যাহার ব্রন্ধের সহিতও সাদৃপ্ত আছে । আত্মার ব্রহ্মসম্বন্ধে ও তৎসম্বন্ধে জ্ঞান আছে, আমর ভ্রমবশতঃ ব্রহ্মের উপর সেই বস্তুর ধৰ্ম্মের অধ্যাস করিয়া থাকি। তাহা হইলে জগৎ ও ব্রহ্ম উভয়ই সৎ বলিয়া প্রতিপন্ন হয়। অর্থাং ব্ৰহ্মও আছে, জগৎও আছে এবং ব্রহ্ম ও জগৎ উভয়েরক্ট সম্বন্ধে আমাদের জ্ঞান আছে ; প্রমবশতঃ আমরা ব্ৰহ্মকেই জগৎ মনে করিতেছি । কিন্তু ব্ৰহ্মও জগৎ এক নহে, আমাদের ভ্রমবশতঃ ব্রন্ধের স্বরূপ প্রচ্ছন্ন রহিয়াছে। স্থতরাং জগদাকারে আমরা ব্ৰন্ধকেই দেখিতেছি। ভ্রম বিদূরিত হইলে ও তৎফলে ব্রহ্মের স্বরূপ প্রকাশ পাইলে, আমরা স্বরূপত ব্ৰহ্মকেই দেখিব, এবং ব্রহ্মে জগদশ্রম আর সম্ভব হইবে না । কিন্তু শঙ্করের উদ্ধৃত শ্রতিবাক্যের এইরূপ তাৎপৰ্য্য নহে, শঙ্করও স্বয়ং এ কথা স্বীকার করেন না, স্বয়ং শঙ্করাচার্ষ্যের অভিপ্রায় এই যে, জগৎ বা জগদাকারের কিছুই নাই । আছেন কেবল ব্ৰহ্ম ৷ ব্ৰক্ষ্ম ছাড়া অপর কোন আত্মারও অস্তিত্ব নাই। শঙ্করাচার্য্যের মতটাই এখন আলেto্য । - ব্রহ্মের সত্তা স্বীকার করা হইয়াছে, জগতের সত্তা স্বীকার করা হয় নাই। অহংজ্ঞানজ্ঞেয় আত্মারও পারমার্থিক সত্তা অস্বীকৃত হইয়াছে। ব্ৰহ্ম সচ্চিদানন্দস্বরূপ, এই শ্রতিবাক্যের সহিত কাহারও বিরোধ নাই। ব্রহ্ম সং, €RFi-FRడా, లిరిు AA AMAMAAA AAAA AAAA AAAAM ATA SAeA TTT [२>* छांनं, २ब्र थ७ ്ബ് ബ هم - عص جمعیستمینست =sخ-- কেন না, ব্ৰহ্ম বিদ্যমান আছেন। তিনি চৈতন্তস্বরূপ, কারণ একমাত্র চৈতন্তেরই সত্তা আছে । আনন্দের সহিত চৈতন্তের নিত্যসম্বন্ধ । আনন্দ বাদ দিলে চেতন-সত্তার किहूद्दे १i८क ना । देश नर्विदानिनव्यङ, अर्थां९ जकल বৈদাস্তিকই-ইহা স্বীকার করিয়া থাকেন। যাহা সৰ্ব্ববাদিসম্মত, তৎসম্বন্ধে তর্ক নিম্প্রয়োজন। কিন্তু জগৎ বা अदिला वांमिल ८कांश इह८ङ ? शाशव्र विलाभांनड: আছে, তাহা সখ, যাহার বিদ্যমানত নাই তাহ অসৎ । সৎ-এর আর একটী বিশেষণ এই যে, তাহার কোনরূপ পরিবর্তন হয় না। একমাত্র ব্ৰহ্মই অপরিণামী, সুতরাং একমাত্র ব্ৰহ্মই সখ । জগৎ পরিণামী, সুতরাং জগৎ সং নন্থে। জগতের অস্তিত্ব প্রতীয়মান, বস্তুতঃ জগতের অস্তিত্ব নাই, সেই হিসাবে জগৎ অসৎ । কিন্তু জগং প্রতীয়মান হুইবার পক্ষে কারণস্বরূপ অবিদ্যা, স্বতরাং অবিদ্যা অসৎ নহে। কিন্তু অবিদ্যা নিত্যপরিণামী এবং বিদ্যার আবির্ভাবে, অবিদ্যা অদৃপ্ত হয়, স্বতরাং জবিদ্য সৎ নহে। যাহা সখও নহে, অসৎও নহে, তাহা অনিবার্ঘ্য । অতএব অবিদ্যা অনিৰ্ব্বাচ্য । অবিদ্যাকে মায়াও বল, ङ्ग्न । ७झे भांग्र! द! अदिनTi अप्ऋब्रझे अ६*दिद्यय অবিদ্যার ব্ৰহ্ম ব্যতিরিক্ত স্বতন্ত্র অস্তিত্ব থাকিতে পারে না ; বিদ্যা ও অবিদ্য। ব্রহ্মেরই অংশভূত। আলোকের সহিত অন্ধকারের যে সম্বন্ধ, বিদ্যার সহিত অবিদ্যারও সেই সম্বন্ধ । যেমন অন্ধকারের বিনাশে আলোকের উদয় ওঁ আলোকের বিনাশে অন্ধকারের উদয় হয়, তদ্রুপ অবিদ্যার তিরোধানে লিদ্যার আবির্ভাব ও বিদ্যার তিরোধানে অবিদ্যার আবিভাব হয় । বিদ্যার আবির্ভাবে তত্ত্বের প্রকাশ হয় ও অবিদ্যার আবির্ভাবে মিথ্যাভূত জগতের প্রকাশ হয়। যখন তত্ত্বের প্রকাশ হয়, তখন ব্ৰহ্ম ব্যতীত चाग्न किछूब्रई गडl छेत्रजकि श्ब्र न। । शङब्रां९ उशन কোনরূপ ভেদজ্ঞাম থাকে না। কিন্তু যখন মিথ্যাভূত জগতের প্রকাশ হয়, অর্থাৎ যখন বিদ্যার তিরোধানে অবিদ্যা আত্মাকে আশ্রয় করে, তখনই অভেদাত্মক জ্ঞাত বিষয়ও বিষয়িভেদে দুই ভাগে বিভক্ত হয় অর্থাৎ তখন আত্মা বিযন্ত্রিরূপে পরিণত হইয়া, বিষয়ৰূপ জগৎকে সম্মুখে अन्नश्छब क८ब्र ।