পাতা:প্রবাসী (ঊনত্রিংশ ভাগ, দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/৬৭৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ج جوا প্রবাসী മ്മ कांग्लन, 9లిNు [ ২৯শ ভাগ, ২য় খণ্ড এইরূপ ভাবের কথা আছে । গীতায় আছে,— “অসক্তং সৰ্ব্বভৃচ্চৈব নিগুণং গুণভোক্তৃ চ ।” সাংগ্যের মতে অহঙ্কারের উদ্ভব প্রকৃতি হইতে । সেইরূপ বেদাস্তের মতে অহংজ্ঞানের উদ্ভব অবিদ্যা হইতে । যেমন প্রকৃতি একাকী অহঙ্কারের স্থষ্টি করিতে পারে না, পুরুষের সংসর্গে অহঙ্কারের স্বষ্টি করে, সেইরূপ অবিদ্যা ব্ৰহ্মের সান্নিধ্যে “অহংজ্ঞানের স্থষ্টি করে। ব্ৰহ্ম তাহাতে কোনরূপ লিপ্ত বা আসক্ত থাকেন না বা ব্রহ্মের স্বরূপের কোন ব্যতিক্রমও হয় না । শঙ্করাচাৰ্য্য তাহার অধ্যাস-ভাস্থ্যে অপূৰ্ব্ব প্রতিভার পরি . দিয়াছেন। তিনি সকল দিকৃ বজায় রাখিয়া, অপূৰ্ব্ব কৌশল অবলম্বনপূর্বক, পূর্ণভাবে কেমন র্তাহার অদ্বৈতবাদটী সমর্থনা করিয়াছেন। তাহার এই ভাষ্য উত্তমরূপে না বুঝিলে তাহার অদ্বৈতবাদ অসঙ্গতি-দোষে দুষ্ট বলিয়া বোধগম্য হইবার সম্ভাবনা । শঙ্করাচার্ধ্যের মতটা এক শ্রেণীর বৌদ্ধ মতের সদৃশ বলিয় মনে হইতে পারে। এই শ্রেণীর বৌদ্ধের অনাত্মবাদী। শঙ্করাচাৰ্য্যও প্রকারাস্তরে অনাত্মবাদী ইহাও মনে হইতে পারে। অনাত্মবাদী বৌদ্ধদিগের মতে নিৰ্ব্বাণ সাধিত হইলে কিছুষ্ট থাকে না। মনে হইতে পারে, শঙ্করাচার্ধ্যের মতে নিৰ্ব্বাণ বা মুক্তিতে তাহাই হয় । বিবরণাচাৰ্য্য প্রভৃতির মতে জীব ও ব্রহ্মে কোনও ध८डन नांझे । उक्रझे अविभाiशरष्ठ श्ब्रां खौदांकांब्रिउ झन । অবিদ্যা তিরোহিত হইলেই ব্রহ্মের জীবভাব বিদূরিত হয়, অর্থাৎ ব্রহ্ম অজ্ঞানমুক্ত হন। অজ্ঞানমুক্ত হওয়া যে বাঞ্ছনীয়, সে বিষয়ে সন্দেহ থাকিতে পারে না । ভামতীকারের भट्ऊ छौरुझे अदिलTांद्र वांथञ्च । अविनTा चखईिङ इडेंटल সে স্থলে জীবের নিকট ব্ৰহ্ম স্ব-স্বরূপে প্রতীত হন। ভামতীকার শাঙ্কর ভায্যেরই টীকাকার, স্থতরাং তিনিও অদ্বৈতবাদী। জীবভাব যে ব্রহ্মেরই অংশবিশেষ, তাহা তাহার অভিপ্রায়। তবে জীব ব্রন্ধের অংশরূপে অনাদিকালাবধি অবস্থিত। যাহা অনাদিকালাবধি অবস্থিত, তাহার স্থিতি স্বতরাং অনন্তকালব্যাপী । রামানুজাচার্ধ্যের মতে ঈশ্বর জীব হইতে পারেন না। মোক্ষ ঈশ্বরের প্রতি ভক্তিতে। ঈশ্বরের প্রতি দান্ত ভাবে জীবের চরিভার্থতা । কিন্তু এইরূপ মনে হইতে পারে যে, শঙ্করাচার্য্যের মতে জীব ব্রহ্মও নহে, এবং জীবের পারমার্থিক अखिरु७ नाइँ । चौद अविनागङ्कङ, श्ख्बाइ चौबझ मिथn ब वजौक। बांश खविना व वखानगङ्गउ ७ष६ স্বতরাং অলীক, তাহার জ্ঞানের উপর নির্ভর করা চলে না। ব্ৰহ্ম নিৰ্ব্বিকার ও অনাসক্ত, স্বতরাং ব্রহ্মের সহিত জীবভাবের কোন সম্পর্ক নাই, জীব ব্ৰহ্মকে জানিতেও পারে না, এবং ব্রহ্মে জীবের চরিতার্থতাও श्टङ भारब्र न । इंश ७क अकांब्र चूंछदांम । औदन ও সংসার যদি দুঃখেরই মূল হয়, তাহ হইলে এই মতের সার্থকতা থাকে। এই মতে নিৰ্ব্বাণ বা মুক্তি সাধিত হইলে সবই শূন্য হইয়া যায়। আমি যদি না থাকিলাম, ব্ৰহ্ম থাকিলেন, কি না-থাকিলেন তাহাতে কিছুষ্ট আসিয়া যায় না। আমি থাকিলে তবে জগৎ, ব্ৰহ্ম বা ঈশ্বরের অস্তিত্বে • বা মঙ্গলে আমার সার্থকতা হইতে পারে, নচেৎ এ সকল থাকিল বা গেল, তাহাতে কিছুই আসিয়া যায় না। যদি স্বীকার করা যায় যে, আমি পারমার্থিক ভাবে জীব নহি, আমি অবিদ্যাকল্পিত মিথ্যা অধ্যাস, তাহা হইলে প্রকারাস্তরে শূন্যবাদই স্বীকার করা হয়। যাহার শাস্কর ভায্যের এইরূপ অভিপ্রায় বুঝেন, তাহাদের শঞ্চরাচার্য্যকে প্রচ্ছন্ন বৌদ্ধ বলিবার অভিপ্রায় এই যে, শঙ্করাচাৰ্য্য ব্ৰহ্মকে মধ্যে রাখিয়া তাহার বৌদ্ধত্ত্ব প্রচ্ছন্ন রাখিয়াছেন । কেহ কেহ এইরূপ অল্পমান করিতে পারেন যে, তিনি বাস্তবিক প্রচ্ছন্ন বৌদ্ধ নহেন, তবে তিনি পূর্ণদ্বৈতবাদ সমর্থন করিতে গিয়া বিশেষ গোলযোগে পড়িয়া উক্ত কৌশলের অবতারণা করেন ও তাহাতে তাহাকে একটু গোজ দিতে বাধ্য হইতে হয়। তিনি কৌশল অবলম্বন করিয়াও সকল দিকৃ বজায় রাখিতে পারেন নাই। তাহার উদ্বেগু শূন্যবাদ প্রচার করা নহে, পূর্ণদ্বৈতবাদ প্রচার করাই তাহার উদ্দেশু। বাস্তবিক পূর্ণদ্বৈতবাদই যে সম্পূর্ণরূপে সমীচীন ও সঙ্গত, তাহ বিশিষ্ট দার্শনিকদিগের মত। আমরা श्रृं4ीरैषङबांन शंफ़ चञ्च ८कांन७ भडक बूख्गित्रछ