পাতা:প্রবাসী (ঊনত্রিংশ ভাগ, দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/৭৬৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


৫ম সংখ্যা ] আত্ম-প্রসঙ্গ ৭১৩ - || ষ—ষটপদাতিথি । ১ স—সহকার, সীধুরস, স্বমদন, স্ত্রীপ্রিয়। ৪ দেশভেদে পৰ্য্যায়ভেজ–সমগ্র হিন্দুস্থানে এই ফল জামনামেই প্রসিদ্ধ। অবগু দেশ বা ভাষাভেদে এর অন্যান্ত কয়েটি পৰ্য্যায়ও আছে ; নীচে তারও এক তালিকা দিচ্চি । ७ । विशांब्र ७ खेष्क्लेिशा অাম २ । यझांब्रॉड़े उषांशांशकल ৩ । কর্ণাট মাবিন ফল ৪। তৈলঙ্গ মাবিড়ি e । सघब्रॉछै অাংবে। ৬ । আসাম অাম ৭ । ফারসী स्रांश्नां ৮ । আরবী अश्छ ৯। লাটিন ম্যাজিফেরা ইণ্ডিকা (Mangifera Indica) ১• । ডাক্তারী নাম witzwi-fi (Mango tree) ss । झे९ब्रांशैौ Artzal (Mango) আগমের খঙাল আমের গুণ বহু এবং বহুমুখী। কথায় বলে— যদি পাই আমের রসী খাই না খাই গায়ে ঘসি— এই বিভাগে অামের অবস্থাভিন্ন গুণই বর্ণিত হচ্চে । জাজ-মুকুঙ্গ—আম্রপুষ্প বা আম্রমুকুল । সাধারণতঃ চলতি ভাষায় একে আমের বকুল বা আমের বোল বলে। এর দ্বারা অতিসার, কফ, পিত্ত, প্রমেহ এবং রক্তদোষ নষ্ট হয় । তা ছাড়া জামের মুকুল রুচিকারক, ধারক এবং বায়ুবৰ্দ্ধক । कछि उञांभ-ककिं चांदप्रब चांम कषांञ्च, शशंकवृख् ঈষদয়। এতে বায়ু, পিত্ত এবং রক্ত বৰ্দ্ধিত হয়। एब्रन्थ बा कैंiन्न जांब-कैछ चाप्यत्र चार जडि অন্ন। গুণ,—কচিজনক, স্নিগ্ধতাকারক, শীতলম্পর্শ ७द६ cणथन, चर्ष९ि खमॉफैबक कध छे९८कश्रृंक । क्रूि Se-Yల কাচা আমের গুণ অপেক্ষ দোষটাই ফলতঃ কিছু বেশি ; যথা-কক্ষ, ত্রিদোষজনক ও রক্তদূষক। রসনা কালিয়ে নেবার জন্তে, অন্নপ্রিয় অনেকেই– বিশেষ করে বাঙালী মেয়েরা-লবণ সহযোগে অত্যধিক মাত্রায় কাচা আম খেয়ে থাকেন । তাদের জেনে রাখা फेङि-अज्रारू झैक थो७ब्रोब्र कट्ण भूञ्जकडे, cकोछेँবদ্ধতা, চোখের দোষ এবং উত্তরকালে দাতের এমন অবস্থা হয় যে, কোনো শক্ত জিনিষ দাতে চিকুতে গেলেই দাভের সঙ্গে সঙ্গে সমস্ত শরীর শিৱ শিল্প করে ওঠে। এক কথায়—তা, রোম ও দন্তের হর্ষজনক । আর, বিশেষ করে মেয়েদের, এও জেনে রাখা ভাল যে, বেশি টক যারা খান তাদের চোখ এবং ক্র সঙ্কুচিত হয়ে যায় । এ ছাড়া বেশি টক খাওয়ার ফলে ভ্ৰম (ঘূর্ণি-রোগ ) পিপাস, দাহ, তিমির নামক নেত্ররোগ, জর, কণ্ডু, পাণ্ডু রোগ, বিসর্প, শোখ, विट्झांफेक ७भन कि छूछे ८ब्रांगं श्रृं*ाख छ्वांब्र जखांदनां आोर्छु । এ হ’ল স্বাভাবিক কাচা আমের দোষ। অস্বাভাবিক কাচা আমের কিন্তু কতকগুলি গুণ আছে । মাচুষের প্রয়োজনান্থবৰ্ত্তী হয়ে সিদ্ধ, পঙ্ক প্রভৃতি বিভিন্ন প্রক্রিয়ার পাকচক্র ঘুরে যে আম বেরিয়ে এসেচে ( যেমন—আচার, চাটনি, অম্বল প্রভৃতি) অস্বাভাবিক কাচা আমি বলতে তাহাই বুঝতে হবে। প্রথমে আটপৌরে জিনিষটারই গুণ বর্ণনা করি। অক্সে-পেশী—চলতি ভাষায় সাধারণতঃ একে আমচুর বা জামশী বলে। কাচা আমের কসী ও খোলা ফেলে ( খোসা না ফেল্পেও চলে ) তাকে খণ্ড-খণ্ড করে কেটে রোদে শুকিয়ে নিলেই আমচুর তৈরি হয়। অবগু শুকাবার সময় পরিমাণ মত মুন, হলুদ মাখিয়ে নিলে তা শীগগির নষ্ট হতে পারে না । এর স্বাদ— অম্ল-মধুর-কষায় ; গুণ-ভেদক, কফ, এবং বায়ুনাশক। যাদের স্বভাবতঃ কোষ্ঠবদ্ধত আছে তার নিয়মিতভাবে আমচুর খেলে পেটের উদ্বেগ কমে আসে। জালি-জালি আয়ুৰ্ব্বেদ-সম্মত আচার। প্রস্তুতবিধি-কঁচা আম বেশ করে পেষণ করে তাতে