পাতা:প্রবাসী (একত্রিংশ ভাগ, দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/২৫৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

২২e . প্রবাসী—অগ্রহায়ণ, ১৩৩৮ পুত্রে তোমার প্রাসাদ থেকে বাহির হয়ে যাচ্ছি, আর ফিরব না । করেছি, এইমাত্র মাতৃদেহ স্পর্শ করে যে-শপথ করেছি, তা ভঙ্গ করা চন্দ্রগুপ্তের পক্ষে সম্ভব নয়। ভ্রাতা, সিংহাসন তোমার, আমি ভিক্ষা করে খাব । তুমি পিতার জ্যেষ্ঠপুর, পিতৃসংকারের যথার্থ অধিকার, এইবার চল । দত্ত । নিশ্চিস্তমনে চল রামগুপ্ত । আমরা মাতা [ ৩১শ ভাগ, ২য় খণ্ড - مد - به مس-می-مه به مدد রুচি। এইবার যাওয়া যেতে পারে, রামচন্দ্র । এতক্ষণে পরমেশ্বর, পরমভট্টারক পয়মবৈষ্ণব মহারাজাধিরাজ সমুদ্রগুপ্তের সংস্কারের উপায় হইল । ক্রমশঃ তাজমহল শ্ৰীকৃষ্ণধন দে বল আজি তাহীদের কথা,--- মৰ্ম্মরের বুকে যার লিখে গেছে বাথার বারতা, যৌবনের কত ব্যর্থ গান ! কত গভীর নিঃশ্বাস রেখে গেছে তুষাদগ্ধ জীবনের মৌন ইতিহাস শুভ্ৰ পাষাণের গায়ে ! সভা বল,—এ তাজমহল ক’দের বেদনাস্তুপ । কাদের সঞ্চিত অশ্রজল ? কোন তীব্র অভিশাপ যৌবনের স্বশ্বস্বল্পহার আজিও ফিরিছে হেথা ? সীমাহীন কোন সে সাহার আজিও নিসাণ্ডবক্ষে জালিয়াছে মিথ্যা-মরীচিকা— কোন যুগযুগাস্তের অনিৰ্ব্বাণ প্রেমবহ্নিশিখা ! বল আজি তাঁহাদের কথা,— কঠিন পাষাণ-বুকে ফুটায়েছে যারা পুষ্পলতা যৌবনের পুষ্পবিনিময়ে । কোন দূরান্ত-প্রিয়ায় কৰ্ম্ম-অবসরে তারা স্মরিয়াছে এমনি সন্ধ্যায় যমুনার কলগীতিমাঝে! তন্দ্রাহীন মধ্যরাতে নিঃশব্দে পাঠায়েছিল বিরহের তীব্র বেদনাতে রচি কোন মেঘদূত ? কোন উষা-তারকার সাথে কহেছে প্রিয়ার কথা ? কোন অলক্ষিত অশ্রুপাতে নীরবে আনতমুখে পাষাণ কাটিয়া ধরে থরে আপনারি প্রেমন্থতি একে গেছে পাষাণ-অক্ষরে । বল আজি তাহাদের কথা,— বাইশ বৎসর ধরি ভাঙিয়াছে যারা নীরবতা হেথা মৌন ধরণীর ! ঐশ্বর্ষ্যের মণিময় দ্বারে ঢেলে দিয়ে গেছে যারা নিঃশেষে উজাড়ি আপনারে তুচ্ছ এ-বিনিময়ে ! কত শাস্ত বসন্ত-সন্ধ্যায় নিৰ্ম্মম পাষাণপ্রাস্তে লুটাইয়া অসহ তৃষ্ণায় কত তপ্ত দীর্ঘশ্বাস রেখে গেছে দক্ষিণ বাতাসে ! সে বেদন অভিশাপ লেখা নাই কোনো ইতিহাসে । কত যৌবনের ফুল ঝরে গেছে কে রাখে সন্ধান, সহস্ৰ হৃদয় ভাঙি গড়েছে এ তাজ শাজাহান ! বল আজি তাহাদের কথা,-- যে মোহন যাদুদণ্ডে ফুটিয়াছে বিরহীর ব্যথা, যুগযুগাস্তের বুকে মর্শ্বরের শুভ্র শতদল,— সীমাহীন নভোতলে মৃত্যুহীন প্রেম আচঞ্চল অম্লান মূরতি ধৰি,—সে কি শুধু এক-নৃপতির ? ষে মন্ত্রে চেতন লভি দাড়ায়েছে তুলি উচ্চশির অপূৰ্ব্ব প্রেমের স্বপ্ন,—সে কি শুধু রাজার আদেশ ? শিল্পীর হৃদয়তলে যে কামনা হয়েছে নিঃশেষ দিশাহীন হাহাকারে,—সে কি শুধু পাষাণের গায়ে মিথ্যা-ইতিহাসে আজও অলক্ষিতে রহিবে লুকায়ে