পাতা:প্রবাসী (পঞ্চম ভাগ).djvu/১৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


২৮ ও অম্লজান সংযোগে প্রস্তুত (nitrous oxide) এক বায় আবিষ্কৃত হয়। ডেভী পরীক্ষা করিয়া দেখাইলেন যে, এষ্ট বা সেবন করিলে যে কেবল জীবনধারণ করা যায়, তাহ নয়, ইহাতে নাড়ী দ্রুততর হয়, মানুষকে ক্ষিপ্তের মত নাচায় এবং চিত্ত প্রফুল্ল রাখে। ইহার নাম সেই সময় হইতে হাসিবার (laughing), so *so coz (laughter-causing) gas অর্থাৎ হাস্তোৎপাদক বায়ু হইল । চারিদিকে এক “হৈ চৈ” পড়ির গেল। মদির (a liquid), আফিং ( a solid ) সেবন করিলে মনে কত যুকম ভাবের উদয় হয় ; দুঃখের বিষয় তাহার প্রত্যক্ষ প্রমাণ দিতে অক্ষম। পাঠকগণ ডিকুইন্সি বা কমলাকাস্তের সাক্ষাগ্ৰহণ করুন। চিত্রকর গিলরে কর্তৃক অঙ্কিত যে চিত্রের প্রতিলিপি আমরা দিলাম, তাহাতে দেখা যাইবে রয়াল ইন্‌ষ্টিটিউশনের কোবাধ্যক্ষ সার জন হিপল্লী হাস্তোদীপক বায়ু সেবন কৰিতেছেন এবং রম্ফোর্ড ও অনেক যৌথীম সাহেব ও মেম ষ্টা করিয়া দেখিতেছেন। ডাক্তার গার্গেট বায়ুপ্রয়োগ কপিতেছেন, ডেষ্ট্ৰী তাঙ্গাল সহকারিতা করিতেছেন, রফোর্ড দ্বারের নিকট দাড়াইয় আছেন । ডেভীর থ্যাতি তাহাকে রয়্যাল ইন্‌ষ্টিটিউশনের সংশ্রবে অনিয়ন করিল। সে সময় তিনি তরুণবয়স্ক যুবক মাত্র। তাহার বয়স তখন তেইশ পূর্ণ হয় নাই। রমফোর্ড প্রথমতঃ চেহারা দেখিয়া ভাবিলেন, এ ছেলেমানুষ আবার লেক্চার দিবে কি ? এই জন্ত বুফোর্ড তাহাকে প্রথমে এক ক্ষুত্ৰগৃঙ্গে বক্তৃতা দেওয়াইয় তাহার ক্ষমতায় সস্তুষ্ট হইয়া পরে তাহাকে সৰ্ব্বসাধারণের সমক্ষে বক্তৃতা দিতে অনুমতি দেন। কিছু দিনের মধ্যে ডেভী রয়্যাল ইন্‌ষ্টটিউশনের সর্বেঃসৰ্ব্বা হইলেন । এষ্ট সভা লগুনের ধনী ও সেীন লোকদেল চ্যদা দ্বারা চলে। ডেষ্ট্ৰীব অপূৰ্ব্ব কবিত্ব ও বাগিতায় ইহার প্যাতি সৰ্ব্বত্র ছড়াইয়া পড়িল ; এবং ইহার প্রতি লোকের অনুরাগ প্রগাঢ় হইয়া উঠিল। ডেভীও সৰ্ব্বত্র ধনী ও বিলাসীদের ভবনে নিমস্থিত হইতে লাগিলেন । দিনে বিজ্ঞানাঙ্কুশীলন ও রানিতে সামাজিক আমোদ প্রমোদেতাহার সময় অতিবাহিত হইত। সৌধীন লোকদের বাড়ীতে থাইতে যাইলাপ সময় তাড়াতাড়ি সরল কামিজ ও মোজ প্রবাসী । ৫ম ভাগ । খুলিন্তে ভুলির গিয়া তিনি ভাতাই উপর আবার পরিষ্কার কামিজ ও গোজ পাবতেন। এইরূপে তিনি কখন কথন পাচটা কামিজ ও পাঁচজোড় মোজা পলিয়া অজ্ঞাতসাপে স” সাজিতেন। এই বয়্যাল ইনষ্টিটিউশনের সঠিত সংস্পষ্ট গুইবার কিছু পরেই ডেভ কয়েকটা স্তন আধিক্কার করিলেন। ইহাতে বৈজ্ঞানিকজগতে নবযুগের আবির্ভাব হইল এবং তাতার যশ:সৌরভও দিকদিগন্ত পবিব্যাপ্ত হইল। এই বিষয়ে কিছু বলা ঘাইতেছে । পূৰ্ব্বে যে পঞ্চভূতাত্মক দেহ ও অষ্টান্ত পখিব পদার্থেব কথা উল্লেখ করা গিয়ছে, ইহার মুলে বৈজ্ঞানিক গৃঢ় তত্ত্ব নিহিত বহিস্থাছে। হিন্দুব বলেন এই নশ্বর দেহ ভন্ম হইয়া গেলে দেহের যে অংশটুকু বায়ু বেরৎ) হইতে উৎপন্ন তাহ বায়ুযাৎ হয়, যাহা জল হইতে উদ্ভুত তাঙ্গ জলে পুনরায় মিশিয়া যার ; যাহা মৃত্তিক ( ক্ষতি ) হইতে গঠিত, তাহ মাটি হইয়া যায়, ইত্যাদি। ক্যাভেওয ও লাভোয়ামিয়ের সময় পর্যন্ত মোটামুটি বলিতে গেলে এইরূপ ধারণাই বদ্ধমূল ছিল। সারশুমুলক অনুমান হইতে প্রাচীনেরা ভাবিতেন যে, যেমন দেহ ভক্ষ্মীভূত হইলে কেবল মৃত্তিকার ভাগ (যথা অস্থিভষ্ম ইত্যাদি । পড়িয়া থাকে, আর সমস্ত উপকরণ অষ্টান্ত ভূতের সহিত মিশিয়া যায়, তেমনি শুষ্ককাষ্ঠ ভস্ম হইলেও ঐ প্রকার হয় : অর্থাৎ কেবল ভষ্ম ( ছাই ) অবশিষ্ট থাকে । তেমনি, প্রধান পণ্ডিতগণ স্থির করিলেন, ধাতুও পঞ্চভূতাত্মক • মুতবা লৌহ, তায় প্রভৃতি অগ্নিদগ্ধ করিলে অপরাপর উপাদান ( বায়ু, জল ইত্যাধি ) চলিয়া যায়, কেবল মৃত্তিকার অংশ পড়িয়া থাকে। আমাদের কবিরাজ নহাশয়ের আয়ুৰ্ব্বেদ ও তন্ত্রোক্ত এষ্ট সমস্ত ধাতুভশ্ব এখনও ঔধধর্থে ব্যবহার কবিয়া থাকেন। গাছ পালা পোড়াইলে যে ছাই পড়িয়া থাকে (বৃক্ষক্ষা ), তাহাও "মার্টির" সামিল গণ্য হয়। অতি পুবাকাল হইতেই এই গাছ পালার ছাঁই ( বিশেষত: কলীর "বাস্নাল" ) কাপড় পরিষ্কার করিবার জন্য ব্যবহৃত ইষ্টয়া অ|সয়াছে। কিন্তু আর এক প্রকার ক্ষার আমাদেল দেশে পাওয়া যায়। সাধারণতঃ ইহা সাঞ্জিমাটি নানে পন্ধি • যথা পারদ সম্বন্ধে রসার্ণব বলেন “পঞ্চভূতাত্মক: স্ততঃ ১n. so ।

  • "le "1íinclu Clwaustry" sanstrt rex. p. 10.

t l - ১ম সংখ্যা । ] চিত। চরক প্রতেও এই দুষ্ট ক্ষারের উল্লেখ আছে ται απε{a. *f**: *a*a , Iileially the ash ob|ained by burning the spikes of tourley) g issol ক্ষার । সস্তা বিলাতী সাবানের উৎপাতে আল কলায় বাস্নার চাই এপন কাপড় সাফ করিবার জন্য ব্যবহার হয় KSDB BBB BBBB BBB BB 00S00S BBB বয়স্ক, তাহারা স্মরণ করিতে পারেন দরিদ্র লোক এই “সাবনষ্ট” ব্যবহার করিত এবং এই কালকে একটু “তীব্র” করিবার জন্য ইঙ্গর জলের সহিত একটু চুণ মিশাইত। প্রাচীন হিন্দু ঋষিগণ জানিতেন যে, যবক্ষার ও সঞ্জিক খার বিভিন্ন । কিন্তু ইউরোপে গ্ৰীক দার্শনিকগণ এই ইয়ের প্রভেদ বড় একটা বুঝিতেন না ; গোলমাল করিয়া ফেলিতেন। ডেভী «gs «førsten "The incients do not seem lo have distinguished between the two alkalies" তাহাৰ সময় অবধি ধারণা ছিল যে, পূৰ্ব্বোক্ত এই দুষ্ট vrja Top afsrol t alkaline eartlis ) gefix of মৌলিক পদার্থ মাত্র ( elements )। ক্যাভেঞ্জিন リ。 দেখান যে অম্লজান ও উদজান মিশাইয় তাহার মধ্যে তাড়িত স্ফলিঙ্গ চালাইবামাত্র ভয়ানক"আওয়াজ" হয়-নেল তোপধ্বনি আর এই দুষ্ট বায়ুর পরম্পর রাসায়নিক সংযোগে জল প্রস্তুত হয়। ইহাতে প্রতিপন্ন হুইল সে জল আর ভৌতিক বা মৌলিক পদার্থ নহে। এই প্রকান দুষ্ট বা ততোহধিক মৌলিক পদার্থ সংযোগে যৌগিক (compound · পদার্থ প্রস্তুতকরণকে synthesis ( সংশ্লেষণ ) কঙ্গে । ক্যাভেণ্ডিবের পরীক্ষাল প্রায় ১৫ বৎসর পরে ( ১৮০০ খৃঃ অঃ ) কালক্টিল এবং নিকলসন নামক দুই বৈজ্ঞানিক গুলের ভিতর তাড়িতপ্রবাহ চালাইয়া জলকে অম্লজান ৪ উদজান নামক বায়ুতে পৃথক করিয়া মেলিলেন । ইহাকে বিশ্লেষণ analysis) কহে । ১৮৪৭ খৃঃ অঃ ডেউ এই প্রকারে "তীব্র” বা “তাক্ষু” যবক্ষার ও সজ্জিকাক্ষারের ভিতর এই ৬াড়িতপ্রবাহ চালাইয়া বেথাইলেন যে, ইহাদের প্রত্যেকে মৌলিক পদার্থ ন হইয়া অম্লজান, উদজান ও দুই নবধাতুর সংযোগে গঠিত। এই দুষ্ট ধাতু রেপোর ন্যায় সাদা ও

  • কৌতুহলী পাঠক হিন্দুরসায়নের ইতিহাস ১৬ ইষ্টতে ২২ পৃষ্ঠা দেখিতে পারেন।

প্রবাসী বাঙ্গালীর পত্র। ২৯ চকচকে-নাম পেটাসিযম ও সোডিয়ম ৷ ডেউী যখন প্রথমে এষ্ট দুষ্ট ধাতু পুথক করিলেন, তপন তিনি এষ্ট অদ্ভুত আবিষ্কারে “মাতোয়ারা" হষ্টয়া হয়ে গুতের মধ্যে ইতস্ততঃ মৃত্য করিতে লাগিলেন। অনেকক্ষণ পরে প্রক্সতিস্থ হইয়। তবে আবাল গবেষণাকাৰ্য্যে প্রবৃত্ত হইলেন । রসায়নশা?ে নবযুগের আবির্ভাব ইষ্টল। ডেষ্ট্ৰী কছুক পেটাসিয়াম ৪ সোডিয়ম আবিষ্কারের পর আরও অনেক “ভত” আবিষ্ণুত ভক্টতে লাগিল আজকাল প্রায় ৭০ সত্তরট। ভৌতিক পদার্থ জানা গিয়াছে। সার হামুফ্রী ডেভী। o ডেভার এশঃসৌরভ দিকৃদিগন্তে বিকীর্ণ ইষ্টয় পড়িল । দরিদ্রসন্তান ডেভার মাথা ঘুরিয়া গেল। ৮ম ও বিলাসী সমাজে তাহলে আদর আমন্ত্রণাধির বিষয় পূপেষ্ট উল্লিখিত হইরাচ্ছে । ইহাতে যে তাহার অনেক শক্তিক্ষ্য হইয়াছিল, তদ্বিষয়ে সন্দেহ নাই । জ্ঞানাথেষ্টীব পক্ষে মাৰ্য্যঙ্গষিগণের আদশষ্ট আয়ুকরণীয়। চালচলন সালসিপে, তপস্বীর মত হষ্টবে, এবং মন উচ্চ চিঙ্কার ব্যাপৃত থাকিবে, ইহাই আমাদের অ}বশ হওয়া উচিত।