পাতা:প্রবাসী (পঞ্চম ভাগ).djvu/২১৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


8eb・ SAM AAAA S S S S জাতীয় মূল্য সমান, এবং হর ত তাহার নিজমূলা পঞ্চাশ টাকাই বটে। এখানেও তাহার নিজমুল হয় ত পঞ্চাশ টাক, কিন্তু তাঙ্গর জাতীয় মূল্য বাঙ্গালীর অপেক্ষ হয় ত দশগুণ অধিক । কি গুণে তাঙ্গর মুল্য বাড়িয়ছে, তাহ ভাবিয়া দেখা কর্তব্য। কেহ ন-কেহ তাহার জাতীয় মূলা বুদ্ধি করিয়ছে, কেহ-লা-কেহ স্বাৰ্থত্যাগ করিয়াছে। জাতীয় ভাবের সঙ্গে উৎসাহ চাই । "আমার দিবার কিছু নাই, “আমার করিবার কিছু নাই, “আমি দীনহীন, আমি স্বদেশের নিমিত্ত কিছু করিতে পায় না”—ইত্যাদি অজ্ঞত দীনতা নৈরাশ্বাস্থচক বাক্যে বাস্তধিক কিছু না কয়িবার ইচ্ছা প্রকাশ পায়। “নাই” বলিলে সাপের বিষই উড়িয়া যায়। “নিশ্চয়ই পারিব”—এরূপ বাক চাই । কেবল বাক্য নহে, মনের সাহস চাই, আত্ম-বিশ্বাস, দৃঢ় প্রত্যয় চাই। যে সকল জাতি উন্নতির পথে ধীবনান । হইতেছে, তাহারাও মহিষমতি, দেবতা নহে। আমরা কি মানুষ নই? বরং শুনিয়া আসিতেছি, আমরা বহুকাল হইতে ‘মানুষ । প্রাচীন ঋবিগণের আশীৰ্ব্বাদ আমাদের মস্তকে বধিত হইতেছে, তাহাদের চির-সঞ্চিত জ্ঞান আমাদিগকে স্বভাবতঃ উন্নত করিয়া রাখিয়াছে, প্রাকৃতিক ধনে দেশ আমাদিগকে ধনশালী করিয়া রাখিয়াছে, রাজার স্বশাসনে শাস্তিমুখ বিলাজ করিতেছে, বিদেশীয়ের সহিত পরিচয়ে উন্নতির পন্থ সুস্পষ্ট লক্ষ্য হইতেছে, ইত্যাদি কত বিষয়ে আমাদের কত সুবিধা আছে। আলস্ত পরিত্যাগ করিয়া, মানবধৰ্ম্ম বিশ্বাস করিয়া, মনে সাহস ও উৎসাহ লইয়। ধৰ্ম্ম রক্ষা করিলে ধৰ্ম্মই আমাদিগকে যুগল করিবে। তারতের প্রাচীন শিল্পগৌরব কোন ছার! সে গৰ্ব্বে কত কাল চলিবে । যে জাতি বহুকাল হইতে কলাবান আছে, সে জাতি দৈববিড়ম্বনার কিছুদিন আত্মবিস্তৃত হইলেও তাগব উপার্জিত ধৰ্ম্ম তাহাকে ত্যাগ করিতে পারে না । সে গে পুরুষানুক্রমে সংক্রমিত হইয়া বওঁমান কলাজীবীব মস্তিষ্কে ও হস্তে প্রচ্ছন্নভাবে বিদ্যমান আছে। ইহা আশার কথা বটে ; কিন্তু ইহাও সত্য, বাহিরের সাহায্য ন পাইলে, অবস্থা স্বয়ং অন্তকুল হয় না। জুড়ের গতি সম্পাদন নিমিত্ত যেমন বাহিরের বল আবখক, স্বদেশয় সমাজের রুডল্ফ বিনাশ নিমিত্ত মতল শক্তি আবখ্যক । প্রবাসী । ৫ম ভাগ । - - নানা আকারে সে শক্তি উপস্থিত হইতেছে। এতদিন কল্যজীবী বিদ্যাফে, এবং বিদ্যাজীব কলাকে দূরে রাখতেছিলেন। এখন বিষ্ঠা ও কলার মণিকাঞ্চন যোগ সস্তাবিত হুইবার লক্ষণ দেখা ধাইতেছে। আশা হইতেছে, এই যোগ ক্রমশঃ দৃঢ় ও বহুব্যাপ্ত হইবে । সুলভ সংবাদপত্র ও বিবিধ বিষয়ক মাসিকপত্রের প্রচলনে বিজ্ঞানের উচ্চ বিষয় সকল সাধারণ পাঠকের সগুথে উপস্থিত হইতেছে। গত দৃশ পনর যুৎসরের মধ্যে এদেশের অনেকাংশে জীবনীশক্তির নূতন প্রভাব পরিস্ফুট হইতেছে। যে চিন্তাম্রোতের প্রশ্বাহ আরম্ভ হইযtছ, কালে তাহার যেগ বঞ্চিত হইবে, বাধাগ্রাপ্ত হইলে তাহার উচ্চামৃত উপাচত হইবে। যেহেতু চিন্তাস্ত্রোতের কারণ আকৰ্ম্মক নহে, কিংবা ক্ষেত্ৰ দুর্ভেয় পীধাণময় নহে। দেশের অধিকাংশ উচ্চশিক্ষাপ্রাপ্ত ব্যক্তি ওকালতি বরিতেছেন। বিপ্ত বুদ্ধি ধন মান তাহাদের পয্যাধ আছে। তাহাদের ব্যবসারের গুণে তাহাব দেশের অভাবমোচনার্থ রাজদ্বারে আবেদন ও কাতরপ্রার্থনা করিয়াই স্ব স্ব কৰ্ত্তব্য সম্পাদিত হইল মনে করিতেন। বোধ হয়, সেই ব্যবসায় ধৰ্ম্মে তাহার সাধারণ লোকের সহিত মন খুলিয়া মিশিতে পারিতেন না। দেশের সাধারণ লোকের অবস্থা সম্যক পরিজ্ঞাত হইযাও অধিকাংশ ব্যবহারজীবী প্রার অকৰ্ম্মে জীবন অতিবাহিত করিতেন। এই প্রবল শক্তির অপচয়ে দেশ নির্জীব হইতেছিল। দেশের উৎকৃষ্ট বিদ্যাবৃদ্ধি দেশের হিতকল্পে নিয়োজিত ছিল না। এখন নানকারণে সে অবস্থার পরিবর্তন হইতেছে। ভরণপোষণার্থ পরিশ্রম ব্যতীত ব্যবহারঞ্জাবগণ মানবের অন্ত ধৰ্ম্ম যুক্ষয়ে মনোনিবেশ করিতেছেন - কেহ কেহ হৃদয়ঙ্গম কয়িয়াছেন, অর্থে পার্জনই মানবজীবনের উদ্বেগু নহে, মানবধৰ্ম্ম পালনের উপায়মাত্র। দেশীয় ব্যঞ্জা ও জমাদারবর্গ প্রজার সহিত মিশিতে পারিতেন না। নানা কারণে উভয়ের মধ্যের সম্বন্ধ মধুর ছিল না। এখন অনেক রাজ ও জমাদাল বুঝিতেছেন, তাহদের স্বার্থ আর প্রজাদেৰ স্বার্থের মধ্যে ঐক্য আছে। তাছার বুঝতেছেন, অর্থোপার্জনেই বিদ্যানুশীলনের সার্থকতা নহে। তাঙ্গদিগের সনে জ্ঞানপিপাসা উদ্ভূত হইয়াছে। কুকৰ্ম্ম ও অকৰ্ম্মেয় পরিবণ্ডে দেশের ধনবল সকৰ্ম্মে নিয়োজিত হইতেছে । - ৭ম সংখ্যা । ] একবাল ভাবর্তীতে লিগিয়াছিলাম, এই বঙ্গদেশেই এমন পঞ্চাশজন জমীদার পাওযা যাইতে পারে, যাহারা ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র কলার উন্নতিকল্পে বৎসরে দুই চারি হাজার টাকা অক্লেশে ব্যয় করিতে পারেন। দেশে ছুরী নাই ? কোন জীদার সংকল্প করিয়া বলিখেন, “চুর আমি করাইব ।” কেহ বলিবেন আসি, “আমি ছুচ কলাইব ।” কেহ প্রতিজ্ঞ কবিলেন, "আমি দেশীয় গৌজাতির উৎকৰ্ষ সাধিত করিব।” এইরূপ উৎসাহে উত্তেজিত হইয়া দশ বৎসর কাজ করিলে পঞ্চাশটি না হউক পচিশটি ক্ষুদ্র কলাও প্রতিষ্ঠিত হইতে পরিবে। চলিত কথায় আছে, তিল কুড়ান্টয়া তাল কয়৷ ধাইতে পারে। ক্ষুদ্র পুত্তিকা প্রকাও বল্লীক নিৰ্ম্মাণ চরিতে পারে, ক্ষুদ্র বাবর নদীতে সেতুনিৰ্ম্মাণ করিয়া জলস্রোতঃ রোধ করিতে পারে। উন্নতিকাম সমাজে ত্ৰিবিধ সেবকের প্রয়োজন আছে । . এক শ্রেণী প্রকৃতিয় গুপ্ত রহস্ত উল্লুেদে জীবন উৎসর্গ করিবেন, এক শ্রেণী দেশীয় বিদেশীয় স্বরীর আবিষ্কারফল সাধারণের মধ্যে বিতরণ করবেন, অন্ত শ্রেণী সেই সকল ফল সমাজেল সৰ্ব্বসাধারণের মুখস্বচ্ছন্দতা বৃদ্ধির নিমিত্ত কার্যো প্রয়োগ করিবেন। এক জন সত্য অবিস্কার করে, দশজন প্রচাল করে, পচিশ জন কাজে প্রয়োগ করিয়া তাঁহ সার্থক করে । সমাজের সকলেই প্রভু, সকলেই দাস : কিংবা কেত হাত, কেহ মাথা, কেহ হৃদয় ইত্যাদি এক বিরাট পুরুষের অঙ্গপ্রতাঙ্গ। প্রত্যেকেরই স্বাধীনতা ও পরাধীনতা আছে , প্রত্যেকেরই স্বীয় বৃত্তি আছে এবং সমাজরূপ দেহরক্ষাবৃত্তিও আছে । পিপীলিক সমাজের বৃত্তান্ত সকলেই অবগত আছেন। ভাবিয়া দেখিলে, সভ্য মানবসমাজ পিপীলিকা সমাজ ব্যবস্থার হার ব্যবস্থা অনুসন্ধান করিতেছে । কোনও পিপীলিকা শিল্পী, কেন শিল্পী সে জানে না : কোন পিপীলিকা প্রহরী, কেন প্রহরী সে জানে না ; কোন পিপীলিকা খাদ্যসংগ্রাহক, কেন খাদ্যসংগ্রাহক সে জানে না । এইরূপ সকলেই কাজ করিতেছে ; কিন্তু কেহই নিজের কাজ ও পরের কাজ ভিন্ন ভাবে না। সমবেত চেষ্টার গুণে পিপীলিকা সমাজ ধ্বংসমুথে পতিত হর না। আমাদের দেশে চেষ্ট এইরূপ সমবেত হইবার উপক্রম হইতেছে। রাহারা দেশের দুর্গতি ভাযিয়া নৈরাষ্ঠের করুণ সঙ্গীতে অপর সকলকে মোহগ্ৰাপ্ত করেন, তাঙ্গদের হৃদরের কোমলতান প্রশংসা করিতে পারি, কিন্তু কঠোরতার অভাবে দেশে কলার বিস্তার। Bలన --- নৈরাঙ্গের অলসতাই পরিণাম হয়। উদ্যোগিনং পুরুষসিংহমুপৈতি লক্ষ্মী দৈবেন দেন্সমিতি কাপুরুষাং বদস্তি-ইল আমাদেরষ্ট পিতামতগণের উপদেশ। র্যাহারা দেশের বর্তমান অবস্থা দেখিয়া অত্যন্ত দুঃথ অস্বভব করেন, শীঘ্র সে অবস্থার উন্নতির অভাবে তাহারা স্বভাবতঃ নিরাশ হুইয়া পড়েন। কিন্তু ভাবিতে ইষ্টবে, আমাদের দষ্টি অল্পদিন মাত্র দেশের কলার প্রতিপতিত হইয়াছে। নবা জাপান এক উদ্দেশু লইয় জন্মগ্রহণ করিয়াছে । নব্য তারতের উদ্দেশু এতদিন বিক্ষিপ্ত ভাবে ছিল। নব্য-বঙ্গ যাহাতে হাত দিয়াছে, প্রায় তাহাতেই সফলকাম হইয়াছে, হয় নাই একটিতে—কৰ্ম্মের ব্যবস্থায়। ইহার মুলে আরও একটি গুরুতর ক্রটি রহিয়াছে,—পরম্পর বিশ্বাসের অভাব,—প্রত্যেকের প্রভুত্বের ইচ্ছা । কিন্তু ঠেকিয়া শেখার মত উৎকৃষ্ট শিক্ষণ আহু কোন উপায়ে হয় না। বাঙ্গালী মাতুৰ হইলে পডিম্বাই উঠিবে, পড়িয়াই থাকিবে না । আর, বাঙ্গালী যে মানুষ, তাহ দেশ বিদেশে খ্যাত নহে কি ? নৈরাশ্যের আলস্ত ত্যাগ করিতে হইবে বটে, কিন্তু আত্মপ্রতায়ের উদামতাও ভাল নহে। মাহসে কাৰ্য্যসিদ্ধি হইতে পারে, তেমনই অতি সাহসে বিপত্তিও ঘটিতে - পারে। এই দুই দিক্ বিচার করিয়া মন স্থির রাখিয়৷ মানবধৰ্ম্মরক্ষার ব্ৰতী হইলে ফল অচিরে প্রতাক্ষযোগ্য । হইবে কৰ্ম্মৈবকারণং চার স্বৰ্গতি ছৰ্গতিং প্রতি— । ইহ আমাদেরই নীতিশাস্ত্রকারগণের উপদেশ। মীন বলে । সাহেব সন্তাই বলিয়াছেন, সেই ব্যক্তিই হর্থী যিনি দিবাশেষে বলিতে পারেন, “আমি পরিবারবর্গের ভরণপোষণ এবং নিজের ভবিষ্যৎ জরা ও কষ্টকর কাল ভাবিয়া অর্থসঞ্চয়ের নিমিত্ত আঞ্জ পরিশ্রম করিয়াছি, এবং সেই সঙ্গে আমার দেশের হিতের নিমিও৪ কিছু করিয়াছি।”e (২) উপায় । ক্রয় বিক্রয়। দেশে কলার বিস্তার ইচ্ছা করিলে দেশের লোকের কি প্রকার গুণ থাকা আবগুক, তাহার যৎকিঞ্চিৎ আভাস পূৰ্ব্বেই - industral hidia. By Glyn Barlow, M.A. prin. copal. Victoria College, l'aiglial, Formerly solitor of the Madras Tuties.” Published at Madras fix Messrs G. A. Natesau & co. Price Rs 1-8 statorz arofstso visãown মধ্যে যদি কেহ এই গ্রন্থ পাঠ না করিয়া থাকেন, তাছা হইলে ওঁাছাকে উৎ অবিলম্বে পাঠ করিতে অনুরোধ করি। এমন বোধ ভাষায় এদেশের BB BB BBBB BBB BBB BB BB BBBBB BBBS BB ন। বালে সাহেবের কোন কোন উপদেশ পরে আলোচন করা যাইবে।