পাতা:প্রবাসী (পঞ্চম ভাগ).djvu/২৮৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


নানাভাই দাবার নামক জনৈক বিত্তশালী পারসী সওদাগর কর্তৃক ১৮৫৪ খৃঃ বোম্বাইয়ে (তারদেওএ ) প্রথম কল্প প্রতিষ্ঠিত হয়। এই কলের নাম “The Bombay Cotton Spinning and Weaving Company” রাখা হইয়াছিল। এই কলের কার্য স্বচারুরূপে নিৰ্ব্বাহ হওয়ায় ইহা অত্যন্ত লাভজনক হইয়াছিল। ১৮৮৭ খৃঃ এই কলটি পুড়িয়া যায়। পরিশেষে পুনৰ্নিৰ্ম্মিত হইয়া এথন “মোতীলাল মিল” নামে অভিহিত হইতেছে । ১৮৫৫ খৃঃ হইতে বর্তমান কাল পর্য্যস্ত ভারতে এই কলের কার্য্য ক্রুত উন্নতিলাভ করিয়াছে বলিয়া প্রকাশ পায়। আশ্চর্য্যের বিষয় এই যে ভারতে স্থাপিত এই সকল কলের অধিস্বামিগণের মধ্যে অধিকাংশই পূৰ্ব্বশিক্ষা গ্ৰহণ না করিয়া কাৰ্য্যে নিবিষ্ট হন ; তাহদের মধ্যে অনেকেই কলের ভিন্ন ভিন্ন অংশের নাম পৰ্য্যন্ত অবগত আছেন কি না সন্দেহ। অধ্যক্ষগণের মধ্যে ইউরোপীয়গণই কার্য্যে মুশিক্ষিত। ভার তীয় কারিকরগণ সাধারণ ইউরোপীয় শ্রমজীবী অপেক্ষা অল্প-ক্ষ। কলকজা জলও অপেক্ষাকৃত অল্পকাল স্থায়ী, কিন্তু এই সকল অভাব অসুবিধা সত্ত্বেও ভারতে এই কলের কার্য্য সফলতা লাভ করিয়াছে। এ পর্যন্ত যতগুলি কল স্থাপিত হইয়াছে, তন্মধেী শতকরা ৭-৭২টি বোম্বাই প্রেসিডেন্সীর অন্তর্বর্তী হইলেও কলম্বো, দিল্লী,উত্তর-পশ্চিম প্রদেশ, হায়দ্রাবাদ, নাগপুর প্রভৃতি বিভিন্ন অঞ্চলেও স্থাপিত হইয়াছে। পূৰ্ব্বে উল্লিখিত হইয়াছে, আর্দ্রতা-বহুল বায়ু কাপাসস্থত্রের মজবুতি রক্ষা করে ; সেই জষ্ঠ ল্যাঙ্কেশায়ারের জল-বায়ু কাপাস-শিল্পের উপযোগী ; এবং সেই জন্যই ল্যাঙ্কেশায়ার এই শিল্পের একটি কেন্দ্রস্থল। ভারতবর্ষ গ্রীষ্মপ্রধান দেশ। এতদ্ভিন্ন ভারতেয় বিভিন্ন স্থানের জলবায়ুর মধ্যে তারতম্য এত অধিক যে, ভিন্ন ভিন্ন স্থানে স্থাপিত কল ভিন্ন ভিন্ন প্রকার অসুবিধা ভোগ করে। তুলা যত শুদ্ধ হয় ইহার মজবুতি ততই কমিয়া যায় এবং ইহা হইতে স্বত্র প্রস্তুত করা ততই শক্ত হইয়া পড়ে। সুতরাং তুলতে শতকরা অনুন আট ভাগ আর্দ্রতা থাকা আবশ্বক , অর্থাৎ বায়ু এরূপ হওয়া ধৰ্ব্বকার যে তাঁহা হইতে তুলা শতকরা আট ভাগ জল গ্রহণ করিতে পারে। ভারতের বায়ু সকল সময়ে এতু আর্দ্রতাবিশিষ্ট থাকে না বলিয়া কলের &b-8 প্রবাসী । [ ৫ম ভাগ। অধ্যক্ষগণ বায়ুর আর্দ্রতা সংরক্ষণ করিতে নানা কৃত্রিম উপায় অবলম্বন করেন । সচরাচর কারখানা ঘরের দ্বার উপ-স্থার সকল বন্ধ করিয়া মেজের উপর জল ঢালিয়া দিয়া তন্মধ্যবৰ্ত্তী বায়ুর আর্দ্রতা সম্পাদিত হয় । ইহাতে বায়ু দূষিত হুইগ কলের শ্রমজীবীগণে স্বাস্থ্য নষ্ট করে। বিলাতের কোন | কোন সহৃদয় ইংরাজ, কলওয়ালাদের এই স্বাস্থ্যহানিক । উপায়ের বিরুদ্ধে তীব্র মন্তব্য প্রকাশ করিয়াছেল ৷ ੱਂ। নষ্ট-স্বাস্থ্য কারিকরগণ বাধ্য হইয়া কলের কার্য্য পরিত্যাগ পূৰ্ব্বক কৃষিকার্য্যে নিবিষ্ট হয় । ইহাই তাহদের স্বল্পদক্ষতার অন্যতম কারণ । উল্লিখিত অভাব অসুবিধা সত্ত্বেও ভারতে কলের সাহায্যে স্বত্র ও বক্স প্রস্তুতকরণের কারবারসমূহ লাভজনক প্রতিপন্ন হইয়াছে। ইহা হইতেই ভারতে কাপাসশিল্পের মূল্যবস্তু সহজে অনুমান করা যায়। আর, কল-কারখানা প্রচলনের পূৰ্ব্বে তত্ৰত বস্ত্রশিল্পিগণের হস্তে কত বড় একটা লাভজনক কার্য ন্যস্ত ছিল তাহীও ইহা হইতে স্পষ্ট বুঝা যায়। এই কার্য হীরাইয়াই তাহার এত দুঃস্থ হইয়া পড়িয়াছে। ভারতে স্থাপিত কলসমূহে স্বশ্বতর স্বত্রনিৰ্ম্মাণের চেষ্ট্র চলিতেছে। এই চেষ্টা সম্পূর্ণরূপে ফলবতী হইবার পথে । দুইটি বিশেষ অন্তরীয় রহিয়াছে। সেই দুইটি প্রতিবন্ধকের প্রতিবিধান কয়ী অবিশুক । প্রথমতঃ, ভারতে তুলার চাষের উন্নতিবিধান করিতে হইবে। এখন ভারতে যে তুলা উৎপাদিত হয়, তার হইতে খুব স্বল্প স্বত্র প্রস্তুত হওয়া সম্ভবপর নহে। দুঃখে৷ বিষয় ভারতবর্ষে কাপসিপণ্যের ব্যবহারোপযোগিতার বৃদ্ধিঃ সঙ্গে এই পণ্যের উৎকর্ষ বৃদ্ধি পায় নাই ; বরঞ্চ তা ; অপেক্ষাকৃত অপকৰ্ষ লাভ করিয়াছে। গুজরাত অঞ্চলে যে অতি উৎকৃষ্ট তুলা উৎপাদিত হইত, তাহা এখন অতি দুলভ হইয়া পড়িয়াছে। ভারতের কৃষিকাৰ্য্য সম্পূর্ণরূপে অশিক্ষিত দরিদ্রাবস্থাপন্ন ব্যক্তিদ্বারা নিৰ্ব্বাহ হইয়া থাকে। ধনী ও শিক্ষিত ব্যক্তিগণ চাষের কার্যে আদৌ মন দেন না। . ইহ উজাদের নিকট অসম্মানকর বলিয়া বিবেচিত হয়। কাজেই স্থ ঋণগ্রস্ত কৃষাণগণ স্বচারুরূপে শৃঙ্খলার * কৃষিকাৰ্য চালাইয়া আশানুরূপ শস্ত উৎপাদিত করিতে পারে না। ভারতের সকল অংশে সমভাবে বৃষ্টিপাত ইর