পাতা:প্রবাসী (পঞ্চম ভাগ).djvu/৩১৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


-- (Iළු8 প্রবাসী । - [ ৫ম ভাগ । - - -- --Info-farmerBot (আলাপ) ১৪:২৬, ২১ মে ২০১৬ (ইউটিসি)്Info-farmerBot (আলাপ) ১৪:২৬, ২১ মে ২০১৬ (ইউটিসি) -- --~~ -- কোন কোন স্থলে দ্বিধৰ্ম্ম শত্রর বিরুদ্ধে সঞ্চালিত হইছিল, ঞ্চিয় পাণিগ্রহণ করেন। সাফিয়া ইহুদীন - ১৯ম, সফিয়া। - আল্লর নহে । ছিলেন । ইহুদীদিগের থায়বার নামক কোরেশদিগের পরাক্রান্ত অধিনায়ক আৰু সফিয়ান স্বীয় কল্প উন্মে হদিবীকে তাবুসালমার করে সমর্পণ করেন। আবুপালগ্ন ইস্লাম অবলম্বন করিলে মহম্মদ তাহাকে পত্নীসহ আবিসিনিয়ায় আশ্রয়গ্ৰহণার্থ প্রেরণ করেন—অনুসলিম অবিমিনায় প্রাণত্যাগ করে। ইসলাম সম্যক প্রতিষ্ঠা পাইবার পর মহম্মদ যখন জগতের বিভিন্নদেশীয় নরপতিগণকে ইসলামের শাস্তিময় আশ্রয়ে আহবান করিয়া আমন্ত্রণ প্রেরণ করেন, তথন আবিসিনিয়া রাজও এইরূপে অঙ্গিত হয়েন। এই আমন্ত্রণের সঙ্গে আবিসিনিয়া রাজকে আদেশ করা হয়, যে মহম্মদ ইতিপূর্বে র্তাহীর যে সকল মোসলেম শিষ্ণুকে আবিসিনিয়ায় প্রেরণ করিয়াছিলেন তাহারা বাহাতে নিদিয়ে প্রত্যাবর্তন করিতে পারে তিনি সে বিষয়ে যত্নবান হুয়েন । মৃত আবুসলিমার পত্নী উম্মেহুবিবাও এই সময়ে আবিসিনিয়ার রাজার আশ্রয়ে কালতিপাত করিতেছিলেন। আদেশপত্রে মহম্মদ নির্দেশ করিলেন যে আবিসিনিয়া রাজা যেন উন্মেহুবিবাকে তাহার নিকট প্রেরণ করিবার বিশেষ বন্দোবস্ত পূৰ্ব্বাহ্নেষ্ট করিয়া দেন। উম্মেহবিবা নিৰ্ব্বিঘ্নে প্রত্যাবর্তন করিলে মহম্মদ তাহার পাণিগ্রহণ করেন। (খৃঃ অঃ ৬২৮) । আবুহুফিয়ান ইসলামের কিরূপ এক পরম পরাক্রান্ত শত্র ছিলেন তীস্থা ইতিহাস-পাঠক মাত্রেরই জান। আছে। কল্প উন্মে হবিবা বিবিকে পত্নীস্থানীয় করিলে আবুহুফিয়ানের মহম্মদের প্রতি বৈরভাব প্রশমিত হইবেইহাই উম্মেহবিধ বিবির পাণিগ্রহণের নিগূঢ় উদেহু। এই পরিণয় সম্বন্ধে উলষ্টল সাহেব বলিয়াছেনঃ– “The Prophet was noved by motives of policy to add the lady to his long list of spouses, hoping that she might thereby be criabled to soften in some measure the animosity of her father- a bitter unrelenting, aud withal powerful opponent of the Faith of Islam.” _ - মহম্মদ সাফিয়া ও মাযমুনা লক্ষ্মী আর দুইটা রমণীর - - ৯ম,উন্মে হবিবা । - • See Woslaston’s “Mohammcd—His Life and Doctrines.” - - - দুর্গশ্রেণী রক্ষা করিতে যাইথ তাহার স্বামী কিনান নিহত হয়েনা (খুঃ অঃ ৬২৮) । সারমর্যাদ অক্ষুণ্ণ রাখিতে মহম্মদ সৰ্ব্বাগ্রে মনোযোগী হইতেন । শত্র পরাভূত হইলে পরে তিনি তাহদের স্বীকস্তাগণের রক্ষার বিধান করিয়া দিতেন । এগুলেও যথারীতি মহম্মদ কিনানের আত্মীয়গণের বৃক্ষার ভার বিলাল নামক জনৈক ভূত্যের উপর অর্পণ করেন। বিলাল যথাসময়ে কিনানের পত্নী সাফিল ও । তাহার ভগিনীকে মহম্মদের নিকট উপস্থাপিত করিল। বিলাল এই রমণীদ্বয়েব প্রতি ভূতাজনোচিত কোন কঠোর ব্যবহার করায় তাহার। মহম্মদ সমীপে অভিযোগ আনয়ন করিলেন। তিনি বিলালের যথাযথ শাস্তিবিধান করিলেন। মহম্মদের এই সাধু ব্যবহারে এবং ইসলামের স্বতঃ চিত্তাকর্ষক শক্তির প্রভাবে মুগ্ধ হইয়া রমণীদ্বয় ইসলামে অমুরাগিনী হন এবং মহম্মদ সমীপে আপনাপন মনোভাব ব্যক্ত করেন। মহম্মদ উঠাদিগকে স্বধৰ্ম্মে দীক্ষিত করিলেন এবং ইহাদের ভক্তিগুণে আকৃষ্ট হইয়া সাঞ্চিয় বিবিকে স্বীয় পত্নীরূপে গ্রহণ করিলেন—অপর রমণী তাহারই কোন বিশ্বস্ত সহচরকে সমপিত হইলেন । মক্কায় মহম্মদের সহিত মায়মুনা বিবির পরিণয় সম্পাদিত হয় । যখন মহম্মদ ইহার পাণিগ্রহণ করেন তখন ইছার বয়স ৫. বৎসর। এই বিবাহে মহম্মদের এক নিগূঢ় উদেশ্ব ছিল। থালিদ ইবৃন্ন ওয়ালিদ নামক এক পরাক্রান্ত কোৱেশ বংশীয় বীরপুরুবের সহিত মায়মুনা বিবির ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল। খালিদ ইসলামের পরম শত্রু ছিলেন এবং ওদের যুদ্ধে অমিতবিক্রমে কোরেশ-কুল রক্ষা করিরাছিলেন। মায়মুন বিবি হজরতের সহিত পশ্ৰিণীত হইলে খালিধ মোসলেম পক্ষ অবলম্বন করিলেন। ইবৃন আব্বাস নামক আর একজন বিখ্যাত কোরেশ বীরও তাহার সঙ্গী হইলেন। মায়মুনা বিদির পাণিগ্রহণের ফলেই এই দুষ্ট জন বীরপুরুষ মোসলেম-সমাজে আনীত হইয়াছিলেন। উত্ত্বরকালে খালিদের বীরত্ব মোসলেম রাজ্য বিস্তারে কতটা সহায়তা করিয়াছিল তাহ ইতিহাসজ্ঞের অবিদিত নাই। - ১১শ, মায়মুন । - __ Kuntaire Press. Calcutta.