পাতা:প্রবাসী (পঞ্চম ভাগ).djvu/৩৪৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


- SM SMSMSMSMSMSMSMS SS - অনেক অভিলষিত কাৰ্য্য থাকিত । &b: স্বীয় স্বার্থসাধক সৰ্ত্তে তাহাদের এমনই বদ্ধ কলিয় রাথিত যে, শিল্পিগণ সীমান্ত উপার্জনে এবং কখনো বা গ্রাসাচ্ছাদনেয় উপযোগী মাত্র আয়েই সস্তুষ্ট থাকিতে যাধা হইত। (৩) তাহারা স্বতন্ত্র ও স্বাধীনভাবে কারবার করিত। যৌথ কারবার স্থাপনের কোন চেষ্টাই ছিল না। (৪) তাহদের কোন প্রকার শিক্ষাই না থাকায় তাহদিগকে স্বীয় স্বাভাবিক প্রত্যক্ষ কাৰ্য্যসম্পাদনোপযোগী অতুভব*fF, (intuitive knowledge) istoristfors af grk ংশগত কৰ্ম্মকুশলতার উপরই সম্পূর্ণ নির্ভর করিতে হইত। বিজ্ঞানের সাহায্যলাভ ত তাহাধের ভাগে ঘটেই নাই, তাঁহাতে আবার ভূতত্ত্ব তখন ভারতে কার্যাত; একপ্রকার অজ্ঞাত ছিল । তাঁহাদের খননকাৰ্য্য সুতরাং ধাতুরেখার উপরে উপরেই বদ্ধ ছিল । তাঙ্গর দুষ্টান্ত মহীশূরের স্বর্ণথনিগুলি । (৫) তাহাদের কৰ্দমোত্তলনী ন টানাকল, এবং রন্ধুকরগোপযোগী যন্ত্রাদি ছিল না এবং তজ্জন্ত তাম্রখনিতে জ্বল প্রবেশ করিয়া বিস্তারিত ভাবে কাৰ্য্য করিবার পথে প্রবল বিঘ্ন উৎপাদন করিত। উপযুক্ত যন্ত্রের অভাবে সুবর্ণের আকরভূমিতে স্ফটিক চূর্ণ করিতে সৰ্ব্বদাই বিলক্ষণ বেগ পাইতে হুইত । & (৬) তাহারা চিরকালই সেই সাবেক প্রণালীতে কাৰ্য্য করায় অনেক অপচয় হইত। এই হেতু উড়িষ্যার অনেক খনিতে প্রস্তরীভূত অঙ্গার বা ধাতুমলের সঙ্গে শতকরা ৩০ হইতে ৪০ ভাগ ধাতু চলিয়া যাইত। তদৃভিন্ন তাহারা যেমন কেবল কাঠের কয়লাই ব্যবহার করিত, তেমনি প্রয়োজন মত কাষ্ঠও সৰ্ব্বদা মিলিত না। ( ৭ ) খনক ও ধাতুশিল্পিগণ রাজার নিকট কোন প্রকার সাহায্যই পাইত না । কারণ সে কালের রাজাদের শ্রমশিল্পবিভাগে প্রজাবর্গের সাহায্যদানাপেক্ষ অন্যানা ভঁাতাদের আদশষ্ট স্বতন্ত্র প্রকারের ছিল । (৮) পক্ষান্তরে উহার এত অধিক কর বসাইতেন এবং প্রাপ্যাংশ এমন অতিরিক্ত পরিমাণে আদায় করিতেন যে, তত্ত্বারা উক্ত শিল্পের মূলে কুঠারাঘাত করাই হইত। আকরভূবি ইজার འཚེམ་ সূর্তগুলি বড়ই কঠিন ছিল। ਾਂ I SAAAAAAS AAAAAMSMSMSMSMMSMMSMMSMSMMS MSMS তাহায় সৃষ্টান্ত বেল্লারী জেলার হীরকখনি। তথাকার সর্বগুলি—(ক) এক প্যাগোড়া মুদ্রা (প্রাচীন স্বর্ণমুদ্রা) বা তদতিরিক্ত ওজনের হীরক উঠিলেই তাহ রাজার প্রাপা ছিল । (খ) তান্নয় ওজনের হীরকখণ্ডের উপল শতকরা ১০ ভাগ হিসাবে সেলামী দিতে হষ্টত এবং (গ) এ ছাড়া মাসে মাসে রাজাকে মূল্যবান নজর দিতে হঠত। কিন্তু তাহার কাঁকর ধুইয়া টুেকু সোধা পাটত তাঙ্গতেই সন্তুষ্ট থাকিতে যাধা হইত। মোটের উপর উভয় অমুকুল ও প্রতিকূল অবস্থার তুলনা করিলে দেখা যায় দেশের খনিশিল্প নিতান্ত দুৰ্ব্বল ভিত্তির উপর প্রতিষ্ঠিত ছিল। তাহাল না কোন শৃঙ্খলা না কোন তত্ত্বাবধান ছিল। মূলধনের সংস্থান ত ছিলষ্ট না. যথায় উন্নতির কোন চেষ্টাই ছিল না তথায় --, -, -, -- -- অনন্তক্ষেত্র পড়িয়া থাকিলেই বা উন্নতির সম্ভাবনা কোথায় । এ অবস্থায় যে কোন শিল্পকলা ততদিনই আত্মরক্ষা করিতে সমর্থ হয় যতদিন চতুৰ্দ্দিকের প্রতিযোগিতার অবস্থা তাহারই অনুকূলে থাকে। তায় বেশী সে কখনই দাড়াইতে পারে না । ভারতীয় খনিশিল্পেরও ঠিক সেই দশা হইয়াছে। যতদিন জগতের অন্যত্র অধিক উন্নতি হয় নাই ততদিন ভারতীয় শ্রমিকগণ আপনাদের গও বঞ্জীয় রাখিয়াছিল। তাহার পর মহা পরিবর্তনের যুগ আসিল । ১৭৫৬ হইতে ১৮৫৭ অব্দ পৰ্য্যন্ত অর্থাৎ যে শতাব্দীতে ভাবত ব্রিটিশরাজের সম্পূর্ণ অধীনে আইসে উহা যুরোপ ও আমেরিকার অতুলনীয় উন্নতি ও বৃদ্ধির কাল । তথন নুতন মৃতন বিষয় ব্যাপার নবীন সংস্কার উদার মত পুরাতনের স্থান অধিকার কবিতে লাগিল। বিজ্ঞানের উৎকর্ষ, বাণিজ্যের বিস্তার, শিল্পকলার প্রসার ও উন্নতি এবং ধনৈশ্বৰ্য্য বৃদ্ধির প্রয়াস ও মাদকতা তখন এত অধিক মাত্রায় চলিয়াছিল যে জগতের ইতিহাসে তাহ অভূতপূৰ্ব্ব । তখন নবজাগ্রত জাতি সকলের মধ্যে ভূতত্ত্ব, ধাতুশিল্প এবং বিশেষত: ব্যবহাবিক খনিবিদ্যা বিলক্ষণরূপে অধীত হইতে লাগিল। যন্ত্রবিজ্ঞানের সাহায্যে আলোচ্য শিল্পের আমূল পরিবর্তন •ঘটিল এবং কলকারখানার কার্য্যপ্রণালী অভূতপূৰ্ব্ব উন্নত পদবীতে প্রতিষ্ঠিত হইল। চতুষ্ঠিকে যখন এই যুগপরিবর্তন চলিতেছে, যখন অন্যত্র বৈজ্ঞানিক শিল্পিগণ খনির গভীরতম প্রদেশে মহা শক্তিশালী মন্ত্র সকল পরিচালিত করির [ ৫ম ভাগ। . i - -- ১১শ সংখ্যা । ] ধাতুতত্ত্ব ও খনিশিল্প । ৬৮৩ s - ------ - - ------- - রাশি রাশি রক্ত উদ্ধার করিতেছে, তখন এ দেশের শ্রমিকগণ - লক্ষ কোট DBBBB BBBBBBB BuS ttt GDD BDDDD S S00 ee BBBB BBBBBBB S XRe"a - রাসায়নিক পদার্থ - --- &λ και রত্ন আহরণ করিতেছিল । সুতরাং আমরা এখানে সেই পৗধুরিং কয়লা প্রভুক্তি ... ... 的剑“刻 সাবেক পথ ধরিয়া যে তিমিরে ছিলাম আমরা সেই তিমিরেই ছুরি, কাচি ও লৌহাদি ধাতুর বাসন ২&8 3 - ঘুরিতে লাগিলাম। কিন্তু ইংরাঙ্গ অধিকারের সঙ্গে সঙ্গে ::* মৃত্নর্দি ও কলকত্ত্ব ৪৩৭-ত্ব - *- - w -- --- --- &a3’s - BB BB BBBBBB BB BBBS DDB Bgg BB Bu BBB AAAA S S BBB BBBB BBBBB BBBBB uS uDD SeeS S S S S S S S S ttS খনিজ তৈল ... --- - --- ৩৫৭-১ BBBBBBBB BBB B BBBBBB BDD BB BBB BB BBBBB S S S S y::"ళ সকলের ঘনিষ্ঠ সংশ্রবে আসিলাম। প্রতিযোগিতার ক্ষেত্রে ಛಿ *** = = = = = = = = = $ هg ** - - চীনাবাসন --- --- - --- - অীর সকলে আমাদের সম্মুখীন হটল । ফলে আমরা পূৰ্ত্তকার্য্যেন্ত্র উপকরণাদি ... ... ... .. BBBB BB DB BBBDDDBBB Du kA MeB S S S S S S S S S S S সম্পূর্ণ অসমর্থ হইয়া পড়িলাম। আমাদের দেশীয় শিল্প- 3y"y: BBB BB BBBS BB BBBB BBBBB BBB SSSSSS S S Rఊety পূর্ণ হইল, স্বদেশী কারিগরকে হঠাইয়া দিয়া বৈদেশিক - cast—ssia. কারিগর ও বণিকদল অতি সহজলভ্য একচেটিয়া অধিকার ভোগ করিতে আরম্ভ করিল এবং খনিকৰ্ম্ম ও ধাতুশিল্প সম্পূর্ণরূপে উৎসন্ন গিয়া দুষ্ট এক স্থানে তাহার লুপ্তাবশেষ মাত্র অবশিষ্ট রহিল। হীরকের খনিকার্যা গিয়াছে, লৌহের কাজ, ইস্পাতের কারখানা আর নাই ; তাম্রখনির কারবার সম্পূর্ণরূপে বন্ধ হইয়াছে ; সীসকের জন্য অতি সামান্যভাবে অল্প লোকেই খাটতেছে ; এমন কি নদীজল হইতে স্বর্ণরেণু সংগ্রহকার্যে দেশের যে সহস্ৰ সহস্র দরিদ্র নরনারী প্রতিপালিত হইতেছিল, সেই অতি প্রয়োজনীর শিল্প এক্ষণে মৃতপ্রায় । যে আসামে এই কাৰ্য্যে বিশ সহস্ৰ লোক খাটিত, এখন তথায় ঠিক তিন জন এবং সমস্ত ভারতে ১৩০৩ জন মাত্র লোক কাজ করিতেছে। সরকারি রিপোটে দেখা যায় সমগ্র ভারতে এই বিভাগীয় সকল রকম শিল্পকাৰ্য্যে মোট ৩৫,৩৮,৭০৭ জন অর্থাৎ দেশে যত লোক আছে তাহার শত করা ১২ জন এই খনি ও ধাতুশিল্পে নিযুক্ত আছে। কিন্তু যাহারা কেবল খোদগিরির কাজ ও স্বল্প অলঙ্কারাদির কার্য্য করে, যদি তাহাদের মাদ দেওয়া ধার, তাহা হইলে এ বিভাগে শতকরা ৭ জন মাত্র অবশিষ্ট থাকে। ইহার পরিণামে আমরা দেখিতে পাই প্রতি বৎসরই বিদেশ হইতে রাশি রাশি ধাতব সামগ্ৰী ভারতে আমদানি করিতে হয়। গত বৎসর আসিয়াছিল – - ____ یہ سابق অর্থাৎ আমরা বৎসরে ৫৫ কোটা ট্যকার ঠিক সেই সকল ধাতু ও ধাতুনিৰ্ম্মিত সামগ্ৰী বিদেশ হইতে ক্রয় করিতেছি বাহা আমাদের স্বদেশেই পাওয়া ধার। হত্তরাং এই ৫৫ কোটী টাকা যেন প্রতি বৎসর আমাদের অজ্ঞানত, নৈতিক অবনতি, আলস্ত এবং পরমুখাপেক্ষার দণ্ডস্বরূপ দিতে হইতেছে। অপর পক্ষে যে দেশ সমগ্র পুথিবীকে সেই সকল দ্রব্য যোগাইত তথায় এক্ষণে কতকগুলা বিদে৭ বণিক স্বীয় মূলধন থাটাইয়া খনি ও ধাতুশিল্পের কারখানা খুলিয়া বর্তমান উন্নত প্রণালীর যন্ত্রাদি সাহায্যে বেশ কৰিবাহ চাণাইতেছে । গত বৎসর এইরূপ প্রক্রিয় স্থায় খনিজদ্রবাে সোণ, কয়ল, লবণ, সোর, মাটির তৈল, চুণ, অভ্র, রঙ্গ, লৌহ এবং কাৰ্ব্ব প্রভৃতি হইতে তাহাম্বের প্রায় ৭ কোটী টাকা হইয়াছিল। এই সকল কারখানায় প্রায় ১০২,••• লোক অল্প পাইতেছে। ঐ কয়জন লোকের বেতনই দেশের যাহা কিছু লাভ। দেশের কি শোচনীয় অবস্থাই দাড়াইয়াছে। তথাপিও কি আমাদের চক্ষু ধুলিয়াছে ? এই যে মাদ্রাজ প্রদেশের কার্ণল জেলা স্থায়ক ও তাম্রখনিতে পূর্ণ, ইহারই কি আমরা সদ্ব্যবহার করিতে পারিতেছি? পূৰ্ব্বে দক্ষিণ ভারতের মধ্যে এই স্থানই উক্ত ধাতুশিল্পের কেন্দ্রস্বরূপ ছিল। বহুকাল হইতে এখানকার কার্য বন্ধ হইয়া গিয়াছে এবং যে মৃত্তিকার ভিতর হীরক