পাতা:প্রবাসী (পঞ্চম ভাগ).djvu/৩৫১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


"- ----- - SAASAASAASAAAS MMSMSMMS SMS SMSMSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSSS | দিন লাগে ; একই রকমের কাপড় তৈয়ার করিলে তাহ ধরাজে ( beam ) জড়াইতেও ১ দিন লাগে । টানা প্রায়ই বেশী লম্বা হয় না । গড়ে ১৮ হইতে ৫০ গজের বেশী হয় লা ) । কাজেই গড়ে বুনিতে যে সময় লাগে টান সাজাইতে তাহার অৰ্দ্ধেক সময়ের দরকার হয়। এইরূপে বয়নকারীরও এক তৃতীয়াংশ সময় টান সাঙ্গাইতেই কাটিয়া যায় অর্থাৎ উক্ত জুই জনের দুই তৃতীয়াংশ বা এক জনের এক তৃতীয়াংশ মাত্র শুধু বয়নকার্যে ব্যাপৃত থাকে। হাতের তাতে মাকু টানায় এক প্রান্ত হইতে অপর প্রাস্তু পর্য্যস্ত মিনিটে ২৫ বার যাতায়াত করিতে পারে, মোটামুটি এইরূপ ধরিয়া লইলে, বস্ত্রের প্রকারভেদ অনুসারে এক জনে কাৰ্য্যাস্তুর না করিলে এক দিনে ৩ হইতে ১০ গজ বা গড়ে প্রায় ৬ গজের যেণী কাপড় বুনিতে পারে মা। এই সংখ্যার এক তৃতীয়াংশ অর্থাৎ ৬ ফুটই তবে উক্ত একজন তাতী এক দিনে বুনিয়া খাকে । - এইরূপ শোচনীয় অবস্থায়ও যখন ২৭ লক্ষ তাঁতী কলের প্তাভের সহিত প্রতিদ্বন্দিতা করিয়া তিষ্ঠিয় আছে, তখন নিরাশ হওয়ার কোনও কারণ নাই । তাহদের দৈনিক উৎপাদনের পরিমাণ ধদি কোনও উপায়ে ৬ ফুট হইতে অন্ততঃ ৫ গজ করা যায়, তবে মাথেষ্টর হইতে ভারতে যত কাপড়েল আমদানী হয় তদপেক্ষ অনেক বেশী কাপড় ভারতেষ্ট প্রস্তুত হইবে এবং ভারতীয় তত্ত্ববায়গণের সঙ্গিত কেহই প্রতিযোগিতা করিয়া উঠিতে পরিবে না। আমাদের অনেকেই মনে করেন (আমিও কয়েক মাস পূৰ্ব্বে এইরূপ মনে করিতাম ) যে, প্রতি মিনিটে মাকুর ফেরা ( picks ) উক্ত ২৫ বারের স্থলে ৮০ মা ১৪০ করতে পারিলেই যথেষ্ট হইল। কিন্তু এরূপ অনুমান মাত্র আংশিকৰূপে সত্য। মনে কর, মাকুর ফেরার সংখ্যা মাড়াইয়া ১২° করা হইল। তবে একখানি ৪ ফুট চওড়া কাপড় বুনিতে প্রতি মিনিটে ১৬০ গজ স্থতার দরকার হইবে, প্রতি ১ মিনিটেই - মাকুর নুলী বল্লাইতে হইবে ইহাতে সময় যাইবে ১৫ সেকেণ্ড অর্থাৎ বয়নকালের ( ৯০ সেকেণ্ড ) এক ষষ্ঠাংশ। স্বতাসমেত মাকু যোগাইবাব আর এক জন লোক থাকিলেও ইহাতে দিনে এত নলীর প্রয়োজন হইবে যে, এক জন স্ত্রীলোক সাধারণ চরকার সাহায্যে উহা যোগাইয়া ডুঠিতে

  • .

৬৯২ প্রবাসী । ৫ম ভাগ পরিবে না । হইবে । বর্তমান হ্রস্ব টান ব্যবহার করিলেও চলিবে না, কারণ তাহ শীঘ্র শীঘ্রই নিঃশেষিত হষ্টয়া যায় ও টানা সাঞ্জাইতে সময়ক্ষেপ হয়। ১০০ বা ৩•• গজ লম্বা টানার দরকার হইবে। কাজেই বর্তমানে পেরেকের উপর টানা ছড়াইয়া বুরুষ দিয়া মাড় দেওয়ার যে প্রথা প্রচলিত আছে তাহাতে চলিবে না। টানা প্রস্তুত করিবার, দরাজে জড়াইবার ও মাড় দেওয়ার জন্ত স্বতন্ত্র স্বতন্ত্র হস্তচালিত যন্ত্রের প্রয়োজন হইবে । - এইরূপে দেখা যাইতেছে যে, বর্তমান তাত হইতে যেণী ( মনে কর চতুগুণ) কাজ পাইতে হইলেই বয়নশিল্পটি চারিভাগে বিভক্ত হইয় পড়ে –(১) টান প্রস্তুত কয় । এই কাজ কেন্দ্রীভূত central ) গ্ৰাম্য কারখানায় নিম্পন্ন হইবে। কারখানার অধিকারী নিজেই স্থতা কিনিয়া লইবে, কিংবা তাতীরাই স্থতা কিনিয়া দিবে। (২) টানা দূরাঞ্জে জড়ান। এজন্ত হস্তচালিত যন্ত্রের প্রয়োজন হইবে ; কারণ খুব লম্ব টান হাতে দরাজ জড়ান আয়াসাধ ও তাতে টান সোজাভাবে না জড়াইয়া বাকিয়া যায়। (৩) মাড় দেওয়া । যেখানে টান প্রস্তুত হইবে ও উহা দূরাঞ্জে জড়ান হইবে সেখানেও একাজ হইতে পারে। নচেৎ এজন্য একটি বাষ্পচালিত যন্ত্রের ছোট স্বতন্ত্র কারখানা প্রতিষ্ঠিত হষ্টলেই খুব ভাল হয়। (৪) প্রকৃত বয়ন। বিশ্ববিদ্যালয় সংক্রান্ত আইনের রূপায় এমন অনেক অৰ্দ্ধ-শিক্ষিত যুবক যুটিবে যাহার তাহদের অল্প মূলধন লইয়া উক্ত গ্রাম্য কারখানা প্রতিষ্ঠিত করিলেই বেশ লাভবান হইবে। সম্প্রতি স্বতীর যোগাড় কোথা হইতে হইবে তাহা ভাবিবার প্রয়োজন নাই। যতদিন দেশে চরকার সংখ্যা বৃদ্ধি পাষ্টয়া প্রচুর হত উৎপন্ন মা হয় তত দিন বিদেশ হইতে কাপড়ের পরিবত্ত্বে স্বত আমদানী করা যাইতে পারে। এইরূপে কাজ চলিতে থাকিলে কালক্রমে হস্তচালিত র্তীতের কারখানাগুলি মিস্তৃতিলাভ করিয়া সত্য সত্যই কলচালিত র্তীতের কারথানার আকার যায়ণ করিবে । ইহা কাল্পনিক বা অতিরঞ্জিত চিত্র নহে। চারিটি অমুকুল কারণ এখন বর্তমান –(১) দেশ ময় হাতের তীতের উন্নতিবিধানের চেষ্টা, (২) বিশ্ববিদ্যালয়সংক্রাস্ত আইন, ( ৩ ) ভারতীয় শিল্পকলার উৎকর্ষসাধনে কাক্সেষ্ট একটি হস্তচালিত যন্ত্রের প্রয়োজন ১১শ সংখ্যা । ] শিক্ষিত লোকের আগ্রহ (শিল্পপ্রদর্শনীসমূহ ও এই শিল্পকলাআলোচনা সমিতিই তাহার নিদর্শন), ও (৪) দেশব্যাপক প্রবল স্বদেশী আন্দোলন । বিভিন্ন প্রকারের উল্লত হাতের তাত পরীক্ষা করিয়া আমি এই সিদ্ধাস্তে উপনীত হইয়াছি —হাটারশ্নির তীতে সৰ্ব্বাপেক্ষ দ্রুত কাজ হয় বটে, কিন্তু ইহার গঠনপ্রণালী বড়ই জটিল, ইহার মূল্যও অত্যধিক । জাপানী তীতের গঠনপ্রণালী অপেগণকৃত সহজ হইলেও তাহারও স্বাম বেশী।, আহম্মদনগরের চর্চিলতীতে শুধু মোটা ক্যালিকোষ্ট (Catico) প্রস্তুত হইতে পারে। ইহার বর্তমান মূল্যও বেশী। অন্যাস্ত উন্নত ঠাতগুলি সাধারণ ঠকৃঠকি উীতেরই প্রকারভেদ মাত্র ; ইহাদের মাকুর ফেরার সংখ্যা প্রতি মিনিটে মাত্র ৬• । এই শ্রেণীর উীতের মধ্যে হাভেল সাহেবের স্ত্রীরামপুরের উতষ্ট সৰ্ব্বাপেক্ষ সস্ত। আমার মতে হস্তচালিত র্তীতের উন্নতিবিধান এখনও সমস্তার বিষয়ীভূত হইয়া অাছে। যাহারা এই সমস্তার সমাধান করিতে ইচ্ছুক তাহারা নিম্নোক্ত তিনটি বিষয়ে মনোযোগ দিতে পারেন :– (১) এরূপ একটি কৌশল উদ্ভাবিত হওয়া আবখ্যক যাহা গ্ৰাম্য ঠাতীদের বর্তমান তীতের সহিত যুক্ত হইলে মাকু প্রতি মিনিটে ১• • ফের ধাতায়াত করিবে, অথচ তজ্জন্য কুড়ি টাকার বেশী খরচ পড়িবে না, এবং তাঁহা মেরামত করিবার প্রয়োজন হইলে যেন গ্রামের ছুতারেরাই তাহা করিতে পারে । (২) হস্তচালিত তাতের কারখানা ও অবস্থাপন্ন ষ্ঠাতীদের জন্ত এক শত টাকার অনধিক মূল্যের এরূপ একটি ষ্ঠাত প্রস্তুত করিতে ইষ্টবে যে, তাহার মাকু প্রতি মিনিটে *• হইতে ১ ২ ৩ ফেরা যাতায়াত করিবে এবং তাহার বহিত এরূপ একটি কৌশল সংযোজিত থাকিবে যাহার সাহায্যে প্রতি ইঞ্চি কাপড় বুনতে মাকুর ফেরা সমসংখ্যক হুইবে। তাতের গঠনপ্রণালী যতদূর সম্ভব সহজ হইবে এবং তাহা মেরামত করিতে হইলে যেন সহরের যান্ধিকেরাই mechanics) (STK FfITS *(fTA I (৩) টানা ওটাইবার, মাকুর নলীতে স্থতা জড়াইবার, টানা প্রস্তুত করিবার, গ্রাঙ্গে জড়াইবার ও মাড় দেওয়ার যে l লেখকের বিপদ । Sసిరి সকল যন্ত্র আছে, সেগুলিকে হাতে চালাইবার যোগ্য করিতে छठेtरु । একটি তত্ত্ববায়ের সাহায্যে আমি প্রথমোক্ত অভাবটি মোচন করিতে চেষ্টা করিয়া যে ফললাত করিয়াছি তাছাই এবারকার শিল্পপ্রদর্শনীতে প্রদর্শিত সরাজী কটেজ লুক্স ( Sayajee Cottage Loorn ) , al-i sfă cstas যোগ্যতর ব্যক্তি ইহা অপেক্ষাও অধিকতর উপযোগী তাত প্রস্তুত করিতে সমর্থ হইবেন । ঐনগেন্দ্রচন্দ্র সোম । লেখকের বিপদ । - আমি বনে জঙ্গলে, পৰ্ব্বত-কান্তারে ঘুরিয়া ঘুরিয়া জটালিকার অরণ্য কলিকাতায় -আসিয়া উপস্থিত হইলাম। আমি গবর্ণমেণ্টের স্কুলমাষ্টারী করিতাম, এবং সংবাদপত্রাদিতে লিথিয়া ও পুস্তক রচনা করিয়া কিঞ্চিৎ উপার্জন করিতাম। পটলডাঙ্গায় বাড়ীভাড়া করিলাম। অন্দরে ছিলেন মা, সদরে রহিলাম আমি ; সদর অম্বর উভরত্র বিচরণ করিতেন আমার ভগ্নী। আমি অবিবাহিত। বয়স কিন্তু বৎসর পচিশ হইবে । আমার ভগ্নীর বয়স ষোল, সেও অবিবাহিতা, কারণ আমাদের রুচিটা সনাতন প্রথা মানিয়া চলিতে চাহে না । আমার নাম বিরূপাক্ষ, ভীয় নাম মোক্ষদা এবং আমাদের জন্মস্থান কমিস্কাটুকা না হইলেও আমার জনকজননী যে কটমট নামের বিষম পক্ষপাতী তাহা বুঝিতে পারিতেছি । আমি মাষ্টারী করতাম, মোক্ষদা বেথুন কলেজে পড়িতে যাইত, মা সারাটা ছপুর গাড়ীর ঘড়ঘড়ানি, বাসনওয়ালার ঢংঢঙনি ও ফেরিওলার বিচিত্র স্বরালাপ দিব্য অপ্রাঙ্ক . করিয়া ঘুমাইয়৷ কাটাইতেন । তিনটার সময় ঠিক ঝি আসিয়া কড়া নাড়িম্বা তাহাকে প্রবুদ্ধ করিত। মা বলিতেন, বিরু, কলকেতায় কেন এলি, গোলমালে একটু ঘুমাবার ' ধো নেই। ঝি হাতের কব্জির ব্যথার জন্য একটা মালিশ চাহিয়া আমায় উদ্বাস্তু করিবার যোগাড় করিয়াছিল। -