পাতা:প্রবাসী (সপ্তদশ ভাগ, প্রথম খণ্ড).pdf/২৪৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


প্ৰবাসী—শ্ৰাবণ, ১৩২৪ [ ১৭শ ভাগ , ১ম খণ্ড ৪০৪ দান শোভা করে প্ৰথমে ছোট একটি চীন-এদিনে এই সাণ প্রয়োগ কৰিয়া তাহার সঙ্গে বেয়াল পাট বাছাৰ । একটা তড়িৎ-উৎপাদক (Dyane) বেিয় দেওয়া হয় । ইহা যে তড়িৎ উৎপাচ ইত তাহাম্বারা একটা কারখানার অংশবিশেষ তালয় গাড়ি লাগে গুমার বাথারি আলোকিত করা হইত ছিটনি অধির উপর জিনো প্ৰায় ৪০ অৰ শক্তি গোদ সভা বরে এই স ত্ৰা উৎসাহিত হইয়া গ্রি বোল পাটর লাগিব সে ধরে ৭ একটি এলিনে প্ৰাকৃতিক বাস্প প্রয়োথ ছিলেন। ভূপৃষ্ঠে ছিদ্ৰ কবি ১২ হইতে ই কি মোটা লোহা না দিয়া ঘূটি নিম্ন হইতে বা অনা হইতে লাগিল । ককে সেই দেখা খেল যে হাৰি ইত্যাদি। বোল পাট ( গো" ভুল । 'গাং, ঘাঁইট শোভা কানো ও মাই। তবে দুখ চাইতে হয়ে স্বামট পাথরের গ’থা, কিন্তু, উপরে “মর যে সা-সঙ্গী হাটনি, ই ‘হোল পাট তুং-পাট বোধ হয় ফলে এনি ঘন ঘন হাতে গাছ-গাট শোভিত না বয়াল পাট, বোধ হয় বিড়া বৰ্ণ আদি পুণী সাত বাটি দ্ধি খেত বা পিঙ্গল রেশম । পুপ্ত-পুরাণে না এখন ৰায় গিয়ে বা বাষয় শত বৎসৱে হইবে । অনুলিপি কৃতিতে কাঠিতে স্থানে স্থানে স্বাধুনিক এই অসুবিধা দূর কর হইয়া পঢ়িছিল এংিশ প্রয়োগ করা হয় ।। (মই বাবে উপে পরিা জল দি৷ যা তত করি তাহতে প্ৰনি চালানো হয় কৃতিবাদে পাট শব্দ পাই নাই, পাটুয়া নৌকা পাইয়াছি । এখানে বাণাৱট মারও বৃহৎ আকারে চলে কি না তাহা দেধিবার বিী ভাষার ‘পটুয়া, শখের গকিতে বলিয়াছে ঘনে কহি । কবি তিটি এৰি তৈরি কয়ে সেদিন বিশেষ ওী পাকানো এলুমিনামের এ ই বাবে ত্ৰিতরে কৰি পশিদ সেৱ । পশ্চিম বলে পাধ ইয়াৰ ভিতর দি৷ প্ৰ কৃতিক বা চা রা যে বাশ পুৰ্ববঙ্গেও দুই এক থানা পুরাতৰ পূখী দেখিয়াহি । গা-পাটের হয় তাহতেই এনি জে দোষ্ট্ৰীয় নাম নাই। প্ৰায় সাচে তিন শত বৎসর পূৰ্যের বাণী দাসের পদ্মাপুরাণে আছে, এই, গে, তাহাতে প্ৰাকৃতিক বাশের উত্মাণ পায় সবটুকুই ৰামে ৫৬ : প্ৰাকৃতিক বাপে লোহার চেয়ে এনিমের বি বুনিয়া মালিতা খেতে হাব উল বানি । যনেক কম হয় অতএৱ মালিকা শাথের চাষ হইত। পূর্ববঙ্গে কোনো পুথীত এই শক্তিতে প্ৰায় ৩ তো ৎি উৎপ হইয়া কোষ্টে হয়ে প্ৰেতি হয় পাটোেৱ দোষ্ট্ৰীয় উল্লেখ আছে কি না, ছাৰি ৷ হে গো স্থান থাকিলে, জানাইলে সন্দেহ যায় ংশোধন । শক্তি বর্তমান সময়ে দিনে যুদ্ধের সাজ-সরঞ্জাম প্ৰতের কাজে ৰঙ্গে খিত সাদী, হালোচনা, ওড়িা চকের নাম গাম-গ ফোট হইবে, বা হইবে না । গুৰি যোগেশচশ রা সা. তাই আগ্নেয়গিরির শক্তি কাজে লাগানোতে ঐ প্রদেশে শাদ পৰম উপকাৱ হইয়াছে। ঐ স্থানে অনেক মাইল জুড়িা এই এখনো অনেক গুণ বা গাওয়া যায়, সুতরাং এই শ ইলে বলিরা আশা করা যায় পাশ । রেলগাড়ীতে স্বয়ংক্রিয় বিদুৎ উৎপাদক যন্ত । এমন সময় ছিল ধন যে ো ষ্ঠীতে তেলে চিবি আগ্নেয়গিরিকে দাসত্বে নিয়োগ । যাৰ প্ৰতি শক্তিবহ দি বের নিজের কাজে পা না তাজিলেই বা একটির পর একটি বিশ্ব ঐতির শক্তি-উৎস করা দুরের কথা, বেজিতে হোচট খাই লোতে যা চলি, আ ই ও তার ক্ৰমে থাসের শ্ৰেণীতে গৈলি মামুদে বুদ্ধির কাছে বা স্বীকার কবিয়া বিশ্ব বৃত্যে কাজ করিতেছেন এই ধাপে শক্তি আম দিবীর ভিতরটা খুবই গরম মাটিৰ গাতে কৈতিক অালো প্ৰচলন খুব সহজে ইহা উঠে এই ড় তড়িৎকোষ sেtor e উপস্থিত হয়, তখন এই তাপে স্থা প্ৰথমে থায় নীচে খুব ব মধ্য দিয়া থখন খুব নীচে ঘাই । হার আশেপাশে রাখা হইত। তাতে এত বিছৎ একেবাৱে পুরিয়া দিতে হই দাশে পরিণত হইয়া অগ্ৰেথিবিৰ মুখ ও ফাটলের মধ্য দিয়া বাহিয় সেই ষ্টেশনে অভাৱ বিদুৎ ভয়া হইত। ইহাতে গান্ধীয় ভাবে এৰি চালানো হইতেছে । Gno-Centi) বাড়িয়া যাইতই, আর তা’ ছাড়া প্ৰত্যেক যাৱ বিহুৰ সঞ্চয়ে সা গল্প অতুতপ্ত ধাপ যচালনে ব্যবহার কারবার চেষ্টা করেন ৪ৰ্থ সংখ্যা পঞ্চশস্য—পোলাণ্ডের প্রতিভাবান ভাস্কর দিকট লইয়া যাওয়া প্ৰতি অনেক হাঙ্গামা দিতে হইত। সঞ্চ খ্ৰীমিতভাবে পূৰ্ণ কান্বিতে অনেক সময় লাগে ! অত সমর খাচী খামাইয়া রাখা সম্ভব নয় কাজেই সেগুলি খ্ৰীতিমত পূৰ্ণ ৰৱ। ইত না । সাধার কম সময়ে ৰেলী তড়িৎ পুৰিতে যাওয়ায় কোষ এইসব অসুবিধা দুৱ করিবার স্ব জার-এক ধৰা হইল এই দ্বাৰা রেলগাড়ীয় ইঞ্জিনে যিছুৎ প্ৰস্তুত কবিয়া ভারযোগে বা গাড়ীতে পাঠান হইত। কিন্তু এতে পাষ্ট্ৰীগুলি ধূলিকা চিৰায় সময়ে নামা অসুবিধা টত বলিয়া এই বালা বেশী ৪৫ এর পরে যে বাবা হইল তাহাতে প্ৰত্যেক গাড়ীর সঙ্গে-সঙ্গেই তড়িৎ-উৎপাদক যায় (Dynanc) বাইবার বাৰা ইল । মানে ই প্ৰায় সৰ্ব্বাঙ্গ হইয়াছে বলিয়া ইহার খুব দর। কলি গাষ্ঠীর অক্ষদণ্ডে (rar-le) সহিত চামড়ায় একটা দেয়াণ দিয়া এই ব্যবস্থায়, চলিবার সঙ্গে সঙ্গেই ত ৰে তড়িৎ উৎ হয় ; একটি গাড়ীর ধ দিই বা কোনো কারণে খারাপ হইয়া দায়, তবু অক্ষ সব গাড়ী আলো লিতে থাকে আলো ঘালিবার সমস্যা লইয়া রেলকোম্পানীর মাখা যাযাইতে হয় না । গাড়ীগুলির শিকল ও চেকের মল জুড়িয়া দিলেই সব কিয়া যার হ তে এরুপ বাৰম্ভ আছে যে বখান গাড়ী চলিতে থাকে তখন ঘট গাড়ী অালো পাথা ও একটি ছোট মঞ্চ-কোষে সস্থিত তাৰ দিয়া এপাকাবে সংযুক্ত থাকে যে আলো জালিয়া ও পাখা লইয়া উৎপায় তড়িৎশক্তিয় যেটুকু অবশিষ্ট থাকে সেটুকু বাইয়া কোষে সঞ্চিত হয় । গান্ধী চলিবার সময় সঞ্চয় কোট দিব্যি বসিয়া-সিয়াই পুলান্ত করে; কিন্তু যখন গান্ধী খামে তড়িৎ-টি গু সৰু-কাৰ ভাগাভাগি করিয়া বাৰ্নীদের সেবা লি নাডেলম্যান, হার কারখানা। করে। ধীরে ধীয়ে তড়িৎ পূৰ্ণ করা হয় বলিয়া কোষটি সহজে নষ্ট হয় না যেটি গাড়ীতেও আজকাল এই ব্যবস্থা আলো খালানো হইতেছে । পারি না। উহা নিজ ইচ্ছানুসায়ে উলিয়া পঢ়িছা সেই বিশেষ স্থাৰ প্ৰফুল্লচন্দ্ৰ সেন গুপ্ত ; অধিকার বিবেই ঘা হার কৃতি ও আয়তনের উপযোগ । এই শিক্ষা শক্তি, এই জীবনই নবীর শিল্পে নিজেকে প্ৰকাশ পোলাণ্ডের প্রতিভাবান ভাস্কর করে এই অনুশীলনের ফলে শিল্পের দ্বারা অলত হইয়া জীবন এম রোপের বুদ্ধীতি দেশ হইতে অনেক শিল্পী নিউ-ইয়র্কে দিয়া অাশা তাৰপ্ৰৰ শক হইবে যে তাহাতে দৰ্শক মুক্ত হইয়া যাইৰে । জয় লইয়াছে । প্ৰথম প্ৰধম হোৱা বিয়াছিলেন তাদের মৰো “বর এই মাকে আকার দেওয়া হইলে তাহাকেই আহি আনেকে রোণীর দিয়ে নবপন্থী দল। পোলদে তার এলী নদী বলি । এই শক্তি, এই ইচ্ছা কে বস্তুর মধ্যেই ভাষা মালেমান কোনো বিশেষ শিল্পীদলের পণ্য দৰ, তবে তিনি ভাৱ এটি স্বাভাবিক শক্তি. মামুহের স্বাভাবিক প্ৰত । পুৰ উী। । এটি স্বন্ধের দিকে যখন চাই তখন মৰে মনে আমাদেৰ মায় পঁচিশ বৎৱ ধরিয়া বিখ্যাত ফরাসী কান্ত রোগাৱে প্ৰস্তাষ একটা দ্বাদশা অনুভব করি। আমরা বোধ কৰি যে, টা যেন ৰাছেলমান টা স্বাভাবিক অবস্থা নয়, হেৰ উহ, কক্ষেই ইপে থাকা হিয়াহে দ তাদের হাত এাইয়া বাধা সম্বন্ধে স্বাধীনত পোষণ করেন সেইৰূপ, অন্ত কোনো পদাৰ্থ, যেখানে বস্তৱ প্ৰয়োজন ও স্বাক মূল ধৰণে নিৰ্মাণ কৰিতে পারেন । ইহা ভ্ৰম কৃতিত্বের গ্ৰাহ করা হয় নাই, তা দেখিয়া আমরা তৃপ্তি অনুভব করি। ইহা হইতেই আমাদের মনের সঙ্গে নমনীয় শিল্প-ব্লাৰাৱ বোম্বে উত্তৰ । বাল্যানের মতে এযুগেৰ শিল্পীগণের সবচেয়ে বড় ভূল হইতেছে, সেইজই মূৰ্ত্তির নমনীয়তা ( Plastidity) আমাদের ো ৰে তি বোৰ ষায় কথা কয় সেই ভাষায় কথা লিতে চেষ্টা কর । বা আনে ; সেই জন্তু অতি তুহু জিনিসও জামাদের চোখে অভূতপূৰ্ণ আট স্বী হিতে হইবে চিন্তা বা সমাধি সুন্দর ও মনোহয় বলিয়া প্ৰতিভাত হয়, যদি ইহা বিমীয়া ৷৷ দ্বাৰকে পদাৰ কষ্টিতে পাবিলে প্ৰকৃতির যথাৰ্থ বৃহন্ত উদঘাটত দ্বাদশ বাজার ব্ৰাখিয়া সৃষ্ট হইয়া থাকে । মনীয়তা এই শ্ৰেণীর শিল্পে ইয়। চিত্ৰান্ধৰ বা ভাস্কা উভয়েই সৰ্ব্বপ্ৰথাৰ গুণ-নমনীয়তা । কাৰ্য । ৰহীয়াই উহা প্ৰাণ । দ্য ইহার কাব্যে সভায় ধীয়া লিতে কি বুঝায় তা তিনি এইপে স্বাক কবিয়াছেৰ— করিতে ধাইলে ভুলপথে যাওয়া হইবে সঙ্ক স্বৱই একটি স্বতন্ত্ৰ ইচ্ছা আছে, সেইাই উৰায় প্ৰাণ নাচেলম্যানের নিৱি, উজ্বল মেয়ের কয়েকটি মুভিতে পাথকে আমাদেৱ দেৰ খুসি তেৰি কৰে আষা ৰাখিতে মিজোর অ সামঞ্জস্ব দাখিা যায়। এই জোলি দশ ৫১ — ১১