পাতা:প্রবাসী (সপ্তদশ ভাগ, প্রথম খণ্ড).pdf/২৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ੋਂ --- প্রবাসী-বৈশাখ, ১৩২৪ [ ১৭শ ভাগ, ১ম খণ্ড കു~ുഹ.... অধিক প্রখর ছিল! অনেকে বলেন, ভারতের যে, করিতে, পরস্পরের দে দুৰ্ব্বলন্ত দেখিতে দেখিতে, শেলে শিক্ষনার্যাপ্রধান সেই সেই অংশেই প্রাচীনকালে জাতি আর পরস্পরের মধ্যে শ্রদ্ধার যোগ কিছু আছে বলিয়া প্রখরতা অধিক হইছিল; মাৰ্য্যগণ প্রথমত বিশ্বাস থাকে ন ক্রণী হতে পরপরের ಕ್ಲ 3 নীলংক্সর ছইতে ঘুণায় আপনাদিগকে দূরে রাখিয়াছেন, তঞ্জনিত বিবাদবিসংবাদই প্রবল হইয়া উঠে, ও সে রে সমাজের প্রতিস্তরের মানুষ সেই দূরত রক্ষার ভাব শক্তিকে খৰ্ব্ব করে। সমসাময়িক মাছকে করিয়া ও অনুকরণ করিয়া জাতিবৈষম্যের সৃষ্টি পার, সঙ্গীদের দোষগুলি ভুলিয়৷ ७ ७५gनि भन ಇತ করিয়াছে।তোহার দৃষ্টান্তস্বরূপ বঙ্গদেশ ও দক্ষিণাস্তোর পারা—সজীব ಇಳ್ದ একটি লক্ষণ । 2.ལ་ཝལ་ཝ་མ་ཧཱ་ উল্লেখ করেন। সে যাহা হউক, চৈতন্যদেবের আবির্ভাব * স্বায়ু গ্রন্থে সঙ্গাগিকে এষ্ট শ্রদ্ধা দিয়াছেন ; তাছাদের - লে বঙ্গদেশে জাতিভেদের প্রখরতা মধিক হইবার আরও গ্রন্থারম্ভে শুধু মহাপুরুষ চৈতন্তদেব ও নিতাল नग्न, - ੋ উপস্থিত হইয়াছিল। তখনও বঙ্গদেশে সকল বন্ধগণের নাম শ্রদ্ধা ও নমস্কার সহযোগে উচ্চারিত: স্থানে নিয়শ্রেণীর লোকের মধ্যে বিকৃত বৌদ্ধপূজা হইয়াছে। . . . ন মাকারে বিদ্যমান থাকিয়া ব্রাহ্মণসমাজের স্বণ মানবে শ্রদ্ধা সে সময়কার বাংলা সায়িত আরও একটি পাদন করিতেছিল ; তিন শতাব্দীর মুসলমানশাসনে নূতনত্বের হুই করিয়াছিল। পূৰ্ব্বে কোন কবি স্বীয় গত হইয়া ব্রাহ্মণদিগের মধ্যে আত্মপ্রাধান্ত কাব্যরচনার হেতু নির্দেশ করিতে হইলে বলিতেন, কোনও অতি তীব্র আকার ধারণ করিয়াছিল ; তিন দেবতার আদেশ, দেবতার বর বা দেবতার স্বপ্ন তাহাকে । * BBBB BBB BBBBBBB BBBBB BBBB BBBB BBB BBBBS BBB দীনেশ বাবুর বঙ্গভাষা DDDDDDDD BBBB BBBB BBBBB BBBS BBBB BB BBB BBB S দৃষ্টান্ত প্রাপ্ত হওয়া ৰখন এই ভেদবুদ্ধিকে কুঞ্জাতিস্বল্প স্মৃতির ব্যবহার দ্বারা যাইবে। কৃত্ত্বিবাস সরস্বতীর বরে রামায়ণ রচনা করিয়াYYmBBB BBBB BB BBBBBS BDD DDB BBBBB BBBS BBBBBB BBBBB স্বপ্নাদেশে শ্ৰীকৃষ্ণবিজয় গুৰঞ্জত ধৰ্ম্মন্দোলন ইহাকে অস্বীকার করিয়া, উচ্চ নীচ কাব্য লিথিয়াছিলেন। পদ্মাপুরাণের কবি বিজয়গুপ্তকে মনসাদেবী স্বপ্নে দেখা দিয়া শুধু কাব্যরচনা করিতে আদেশ । করিয়াই ক্ষান্ত হন নাই ; পূৰ্ব্বতন এক কবির ঐ বিষয়ের কবিতাকে অসংলগ্ন উক্তির আধার ও মূর্থের রচনা বলিয়া সমালোচনাও করিয়া দিয়াছিলেন। পরবর্তী কালে ভারতচন্দ্রও এই স্বপ্নলব্ধ দৈবী সমালোচনার সুযোগ গ্রহণ করিতে ছাড়েন নাই। র্তাহার বেলায় সমালোচনাটি অগ্রিম श्र्रश्नः

  • ヘーンヘンへヘ'い/*

১ম সংখ্যা] ഹു নিন্দ কৃরিলেন, এবং তংপরে কৃষ্ণরামর কবিতা সম্বন্ধে এই * ভবিষ্যদ্বাণী করিলেন,— তোমার কবিতা যার মনে মাছি লাগে, সবংশেতাঙ্কারে তবে সংস্থাপ্লিবে লাগে। ইহার পর আর পাঠকের সাধ্য কি যে কাব্যথানি ভাল লাগিল না বলিবেন। এই সকল কবির দেবাদেশের ও স্বপ্নদর্শনের কৃত্রিমতা ছাড়িয়া আসিয়া নরোত্তমদাসের, বৃন্দাবনদাসের, কৃষ্ণদাস কবিরাজের সরল ও নম্রতাপূর্ণ শ্ৰীকৃষ্ণচৈতন্তু নিতানন্দ জান, বৃন্দাবনদাস তছু পদযুগে ধান প্রভৃতি কত নিষ্ট লাগে। মানুষের অনুরোধে’ কাবা রচনা করিতেছি, এ কথা লিতে তাহার কখনও সঙ্কুচিত হন নাই; মানুষের স্মরণে র্তাহাদের চিন্তু অনুপ্রাণিত ইয়াছে, এ কথা তাহারা মুক্তকণ্ঠে স্বীকার করিয়া গিয়াছেন। দেবমুখে উচ্চারিত আত্মপ্রশংসা ও পরনিন্দাও উহাদের রচনাকে কলুষিত করে নাই ; বরং পাঠকের সম্মুখে তাহার আপনাদিগকে অতি অকিঞ্চন ও অযোগ্য বলিয়া অনুভৱ করিয়াছেন। বাঙ্গালীর মনোরাজ্যের উপর চৈতন্যদেবের প্রভাব কত কি দিয়া পড়িাছিল, তাহার ইয়ত্ত করা যায় না। তাহার সামান্ত নিদর্শন স্বরূপ বৰ্ত্তমানে শ্রদ্ধা ও মানবে শ্রদ্ধা, এই ছুইটি বিষয়ের উল্লেখ করা গেল। বাঙ্গালীর ভাবরাজ্যে তাহার প্রভাব আরও অধিক । ভারতবর্ষে ধৰ্ম্ম বলিলে দুই বিভিন্ন বস্তু বুঝায় ; প্রথম,— সংস্কার, অনুষ্ঠান, ও সামাজিক নিয়ম প্রভৃতি ; দ্বিতীয়,— উপাস্য দেবতার পূজা ও তৎপ্রতি ভক্তি। সংস্কার ছিল ; ভগবতী আগেই বলিয়া দিয়াছিলেন, যে, ভারতচন্ত্রের প্রধান করিলেন, সে যুগের পক্ষে তাহ কত বড় *FU” - কাবাথানি অতি চমৎকার হইবে, ও রাজা কৃষ্ণচন্দ্র প্রত পরিবর্তনু _ গ্রন্থকারগণ কিরূপ গভীর শ্রদ্ধার সহিত স্বীয় সঙ্গিগণের নাম উল্লেখ করিয়াছেন, তাহ দেXয় আধুনিক কালের পাঠক গণের বিস্ময় উৎপন্ন হয়। \কমণ্ডলীভুক্ত ও একক্রিয় লোকেদের পরস্পরের প্রতি শ্রী, রক্ষা. করা কত কঠিন, আমরা তাহ জানি। দীর্ঘস্থাল নিকটে বাস করিতে سے দিনে বাংলাদেশে কি রকম বাঘের ভয় ছিল, আমরা সকলেই জানি। এ হেন যুগে বাঘের দেবতা দক্ষিণ রায় করিলেন, যথারীতি পূৰ্ব্বতন কবি মাধবাচার্যের কবি

এই মানবে শ্রদ্ধার পরিচয় আমরা সে যুগের আরও o u BB BBB BB BBS BBBBBB BB BB BB BBBBBBB BBBB BBB BB BBS

সৰ্ব্বাপেক্ষ অধিক স্থপ্রদর্শন করিয়াছেন। তখনকার অনুষ্ঠানাদি বেদবিধি, স্মৃতি, দেশাচার ও কৌলিক রীতি প্রভৃতির দ্বারা নির্দিষ্ট ; এসকলের মধ্যে ভাবের কোনও DDD BBB SBB BBBBS BBB BBB BBBBZ BBB BBS BBB BBBB BBBB DDS BBBB একেবারে নিয়নে বাধা। ধৰ্ম্মের যে দ্বিতীয় অঙ্গ,-উপাসাদেবতার পূজা ও তৎপ্রতি ভক্তি-৬হীর মধ্যেও পূজার অংশ শাস্ত্র ও বিধি দ্বারা একেবারে নিৰ্দ্দিষ্ট ; এখানেও ভাবের বা বঁক্তিগত স্বাধীনতার কোনও অবসর माझें । । কবি কৃষ্ণরামকে স্বপ্নে দেখা দিয়া কাব্যরচনা করিতে আলে iB BBBBB BBBBB BBBBB BBBS BBBBS BBBB BBBS BBBSAeBBB BBB B BBBBBSZ পৰ্ব্বঞ্জধান যন্ত্রের বিষয় ছিল আচার-অনুষ্ঠানের শুদ্ধতা ও" কথাগুলি, যেমন ‘বৈষ্ণৰাজ্ঞ বুলি করি এতেক সাহস, ੋ ও তাঁহার পর, (গুরুত্ব ছিলাৰে বহু পশ্চাতে ) দেবপুঞ্জার পদ্ধতির বিশুদ্ধি রক্ষা। স্ট্রের শেষ অংশ যে উপাস্য দেবতার প্রতি ভক্তি, তাছার সম্বন্ধে চৈতন্যদেবের আবির্ভাবসময়ে বঙ্গদেশে যে ভক্তি ছিলন এমন নয়। কিন্তু যাহারা সমাজের নেতৃস্থানীয়, উস্থিায় মানুষের হৃদয়ে ভক্তির সঞ্চার অথবা বিকাশ করিতে কিছুই সাহায্য করিতেন না, বরং ভক্তি-বস্তুকে তাছারী ক্রিয়ঙ্ক পরিমাণে অবজ্ঞার চক্ষেই দেখিতেন। কিন্তু মানুষের ধৰ্ম্মপিপাসা শুধু নিয়ম পালনক অথবা বাধা কতকগুলি মন্ত্র উচ্চারণ করা কখনও কৃষ্ণ । হয় না। মানুষের ছয় আছে বলি সে আরও কিছু চায়। হৃদয় চায়, দেবতার কাছে নিজে আসিতে, ওঁ । স্বাধীনভাবে দেবতাকে ভক্তি দিতে। হৃদয় চায়, যা বিশেষ । ভাবে নিজের, এমন কথাটি দেবতাকে বলিতে ; হৃদয় চাঙ্গ আত্মপ্রকাশের পথ নিজেই করিয়া লইতো ভক্তি জন্ধের বস্তু, তাই ভক্তি স্বাধীনতা চায়, শাস্কের বন্ধনের অতীত । হইতে চায়। তাই ইহাকে ধৰ্ম্মের শ্রেষ্ঠ অঙ্গ বলিয়ন্ত্ৰীৰ করিতে, ও নিয়ম, নিষ্ঠ, শাস্ত্রীয় আচার, প্রভৃতির উন্ধে স্থান দিতে সমাজপতিগণ শঙ্কিত হুইভেন চৈতন্যদেৱেন্ধ প্রেভাব শ্বে এই ভক্তিবস্তুকে প্রাধান্য দিয়াছিল, ভাস্থার বল অনুভব করিতে হইলে, তাছাকে সেই চারিশক্ত গ্ৰন্থ পূৰ্ব্বকার সমাজের ব্রাহ্মণদিগের প্রতিপত্ত্বির সহিত তুলনা করিতে হইবে। ধৰ্ম্মের তেলদও উহাদের সে প্রতিপঞ্জি ভারে এতকাল নিয়ম-অনুষ্ঠানাদির দিকে ঝুঁকিয়ারয়িছিল; চৈতন্যদেবের প্রভাব তাহাকে আবার বিপরীত দিকে টানিয়া আনিল । - - তিনি যে কেবল ভক্তিকে প্রকৃত মুর্ণ দিতে শিক্ষা দিয়াছেন, তাছী নৱ তাহার জীবনের মধ্য দিয়া ভক্তির স্বাদর্শ কত উন্নত, কত বিকশিত, কস্ত উজ্জল হইয়াছে। এদেশের প্রাচীন শাস্ত্ৰসকলে ভক্তি কথাটি দুই অর্থে अंक्ष - প্রাচীন মর্থ গীতার কোনও কোনও স্থানে "ভক্তি ---