পাতা:প্রবাসী (সপ্তদশ ভাগ, প্রথম খণ্ড).pdf/৩১৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


৫৩ ০ প্ৰবাসী—ভাদ্র, ১৩২৪ [ ১৭শ ভাগ, ১ম খণ্ড দের কো উচ্চপ সংক্ৰান্ত বিশেষ-অধিকার ও জাত ত উৎপন্ন হয় নাই । অক্কার দেশের অধিবাসী ব্যবসায়-সামো দ্বারা আবদ্ধ কুলক্ৰমাগত বৃহৎ সমাজ-গঠন দিগের মধ্যে প্রবণ শ্ৰেণীভেদ থাকিলেও বৰ্ণভেদ তাহাদিগের সমুহের সহিত পরিচিত ছিল না বলিয়, নানাধিক পরিমাণে নিকট সম্পূৰ্ণণে অপরিচিত ছিল । অন্য দেশের পুরো বন্ধ ঐক্লপ কোন আদৰ্শ দেখিলেই উহার গুহ ও বিস্তাৱ ত অল্প কাঠামের আগ্রন্থ লইয়াছে । অতএব দেখা সহে অভিহিত করিয়া বলিত । এখন পৰ্যন্ত, একমাত্ৰ যাইতেছে ভারতবর্থে, অনেক গুলি উপাদানের সমিতি ভারতবই—আমরা যেভাবে জাতে বৰ্ণনা করিয়াছি, ক্ৰিয় হইতে জাতের উৎপত্তি হইয়াছে আমরা প্ৰ সেই রকমের একটা সাৰ্ব্বভৌমিক জাতের-পতি আমাদের প্ৰধান উপাদানগুলির উদো পূৰ্ব্বে করিয়াছি নিকট উদ্যাটিত করিয়াছে। অত্ৰ হ্ৰদ আমরা কতকগুলি বাতাতে এই ইতিহাসের সংক্ষিপ্ত কালটা এক নজরে আদিক নিদৰ্শন, অনুপ প্রতিটানসমূহের অৱ মাত্র আমাদের চোখে পড়ে আমরা তারই চেষ্টা কবি দেখিতে পাই ; সে সমস্ত কোথাও পদ্ধতিপে পরিণত হয় বে সময়ে অৰ্যোরা ভারতে প্ৰবেশ করে সেই সময়দা কথা ধৰা বা ! তখন তাহারা, আৰ্য্যজাতির সমস্ত শাখা সাসিডেসেনিয়া ও অন্তত্ৰ প্ৰচলি , অনেকগুলি কোঁকি ধো যে-সকল নির প্রচলিত ছিল, সেই সকল পুৱা কৰ্ম্মত ব্যবসায়ের সহিত গ্ৰীণ, পরিচিত ছিল । অনিশ্চিতা নিয়মের শাসনাধীনে বাস করিত তাহারা ও অস্পষ্টতা সত্বেও,--অাকি প্রদেশের চারি ইয়োনীয় শাখা গোষ্ঠীতে ও গে এ বিভক্ত ছিল ; নুনাধিক পরিমাণে বিস্তু ৰংশ:(phyle) যে নামে অভিহিত হই, তাহা ব্যবসাংঘটিত মণ্ডলী গুলি সেই একই সমাজতদের দ্বারা পরিশাসিত হইত নাম যথা—সৈন্য, ছাগ-পালক, কারিগণ ১ এই সমস্ত যে-সমাজত সাধ নিশ্চয়ই “জাত’ নহে । উক্ত উদাহরণে অন্তত ইহাই একই রকমের এবং সে-সমাজত শোণিত সম্পৰ্কের বনে প্ৰমাণিত হয় যে, অমুকুল অবস্থার আদিতো, আগা ঐতিহ নুনানিক পরিমাণে দৃঢ় আবদ্ধ । গোষ্ঠীতে গোষ্ঠীতে, বংশ জাতের দিকে খুঁকিতে পারে । এই কথাটা মনে রাপা বংশে যে বিশুদ্ধ ও সংহ সাম্য ছিল, সেই সামা-যুগের কালী চাল । সে সময়ে অতীত হইয়াছিল। তখন সামরিক ও ন ধাসম্বী একটা সামাজিক তথ্য, কোন এক বিস্তীৰ্ণ দেশের মানসদন স্বকীয় কণা আরম্ভ কৰিছে। কতকগুলি মণ্ডী উপর যাহার আধিপত্য, ধাহা সেই দেশের সমস্ত, অতীতে শোধনীগোর দশঃ প্ৰভা মণ্ডিত ইয়া, অপেক্ষাকৃত সমূ ! সহিত এক সূত্রে আবদ্ধ, সেই তথাটির অবশ্যই একাধিক বংশগেীরবে গলিত হয়, বাহুবলের ধারা মন্ত্ৰ গো কারণ আছে। খুব ঠিকঠাকভাবে, একটি মাত্ৰ অনুমানের অধিক সমৃদ্ধিশালী হইয়া, এক অভিজাতশ্ৰেণীপে গঢ়িা তিয় ঐ তথাটিকে আবদ্ধ কৰিলে, নিশ্চয়ই পথ হারাইতে উঠিল এবং অধিপত্যের দাবী কবিতে লাগিল হইবে । বহুল শাখা দ্ৰোত মিলিত হইয়া, এই প্ৰবাহগুলির [ ক লাপ এপ জটিল হই উঠিয়াছিল, যে বেগকে এতটা প্ৰবল কবিয়া তুলিয়াছে অনুষ্ঠানের ব্লু ও ছন্দ চনার পর, একটা বিশেষ । আমার দৃঢ়বিশ্বাস, প্ৰত্যেক শাখাট, পর-পর কি নৈপুণ আৰশুক হইল, একটা পরিভাষা গঠনের করিয়া মূল-প্রবাহকে কঁপাইয়া তুলিল, তা পৃপক্ক এইৰূপে এক পুরোহিত-শ্ৰেণী উৎ সুপ্ৰাণীক্ৰমে আলোচনা করিলে তবেই উছার প্রকৃত হইল। এই শ্রেণীর দাবী-দাওয়া, নুনানিক পৰি যাখ্যা পাওয়া বাইবে। এপ আরও অনেক দেশ আছে পৌরাণিক বংশাবলীর উপব প্ৰতিষ্ঠিত ছিল। তাহাদেশ যেখানে এক আগম্ভক জাতি আসিয়া দেশের প্রকৃত সমুহ প্ৰসিদ্ধ প্ৰাচীন মহাপুলাদিগের সহিত সগৰে অধিকারী িদগকে জয় ও েবদখল করিয়া তাহার পাশাপাশি এইপ তাহারা ঘোষণা করিল বশিষ্ট আৰ্য্যোসৰ জাপাদিগকে প্ৰতিষ্ঠিত করিয়াছে কিন্তু এই অবস্থা হইতে ভাবে এক বিশেষ-পৰ্যায়ের অন্তভূক্ত হইল ; ভাষা ভিতরে থাকি, বিভিন্ন মণ্ডলী স্বশাসনতত্ৰে ব ৫ম সংখ্যা] ভারতের বর্ণভেদ-পদ্ধতি ৫১ নিৰ সামাজিক ব্যবস্থার অধীনে, বিচরণ দিতে পালিত হইয়া আসিতেছিল। অপেক্ষাকৃত বল ক্যালান্ধি মিল। গোড়া হইতেই ধৰ্ম্মসংক্ৰান্ত বিশ্বাস ও সংস্কার হইতে, ক্ৰমে পরিপক সভ্যতা-সুলভ প্ৰয়োজনও ব্যবসায়দি বাদের ‘জীবনের উপর আধিপত্য করিতেছিল। পূৰ্ব্ব পরিপুষ্ট হইয়া উঠিল । প্রাম-সমৰ্যায় হইতে ব্যবসায়-সাত্ম্যই ইতেই পুরোহিতম গুণী শক্তিশালী ছিল, এণে উৎপন্ন হউক, অথবা এক ব্যবসায়ের লোক কাছাকাছি সহোচর কঠোরতা তাদের মানসনকে আরও স্থানে ছড়াইয়া পড়িয়া, অপরিহাৰ্য্য প্ৰয়োজনের বশে, একই ইয়া তুলি ছাঁচের সমাজ গড়িয়াই তুলুক- এইরুপ, কতকগুলি লব আৰ্যোরা তাহাদের নব-ব্লাজার মধা দিয়া অগ্রসর ব্যবসায়সম্প্ৰদায় গড়িয়া উঠিল । ইতে লাগিল। বাইতে যাইতে উহাৱা এক প্ৰামবৰ্ণ হাতির কালক্ৰমে দুইটি তথ্য বেশ শৰ্শে আসিল । বিদ্যাধুড়িতে নিকৃষ্ট মনে করিয়া, উহার সৰ্ব্বত্ৰ স্পষ্ট স্বীকার করা হউক বা না হউক, জাতিসমুহ তাহাদিগকে দূরে টাইম্বা দিলএই বিরোধ, নিরাপদ মধ্যে একটা মিশ্ৰণ ঘটিয়াছিল ; বিশুদ্ধতা সম্বন্ধে আৰ্য যার উপায় চিন্ত, বিজি দিগের প্রতি --এই সমস্ত অবজ্ঞাদিগের যে ধারণা ছিল সেই সকল ধারণা এই সম্বর জন্ম বিজেতাদিগের মধ্যে একটা স্বাভাবিক কামিতা সমূহের মধে এমন কি ধাটি আদিমবাসীদিগের মধ্যে জাগিয়া উঠিল নিজ বিভাগসমূহের বিশুদ্ধত অক্ষু প্ৰবেশ লাভ করল । উহা হইতেই দুই শ্ৰেণীর সঙ্কোচ রাখিবার জন্ত, সমস্ত ধৰ্ম্মবিশ্বাস, সমাপ্ত অন্ধসংস্থায় আরও উৎপন্ন হইল এক, বংশের বিশুদ্ধতামূলক সঙ্কোচ আর প্রতিষ্ঠিত হইল। আদিম অধিবাসীগণ বিজেতার অধীনে এক, ব্যবসায়ে বিশুদ্ধতামূলক সঙ্কোচ । এই দুই-কা আসিলেও তাছাদের অধীনতার বন্ধন খুবই শিথিল ছিল । বিশুদ্ধতার নানাধিকা-অনুসারে কতকগুলি উপবিভাগ জায্যেরা সেই আদিমবাসী নস্যকে পরিত্যাগ করে । ড়িা উঠিল । বংশানুক্ৰমিক জীবনপ্ৰণালীর প্রাচীন বিজেতারা যে ধৰ্ম্মবিশ্বাস সঙ্গে জানিয়াছিল ,-- একটু আগেই মুলতবালি সমভাবে চলিয়া আসিলেও এইসব দল , বা একটু পরেই হউক, সেই সব ধৰ্ম্মবিশ্বাস ঐ মণ্ডলীগুলির উপাদানে বৈচিত্ৰা ছিল, যথা,---কৰ্ম্ম, যা, দেশ আদিমবাসীয়া প্ৰাপ্ত হইল - সর সমান ভূমিতে উঠিতে পারিল ন মাধোৱা গীয় মূলতত্ত্বটির পাশে আসিয়া বসিয়াছিল, কখন কখন উৰা অধিকৃত বিস্তীৰ্ণ দেশে ক্ৰমশ ছড়াইয়া পঢ়িল গ্ৰামের শোণিত সম্বন্ধের মুখোস পরিয়াও দেখা দিত। এইসকল সংঘৰ্ষে ও আগাদিগের আদিম মণ্ডলীগুলি ঘটনাবিপৰ্যায়ে মণ্ডলীর সংখ্যা ক্ৰমেই বাড়িতে লাগিল। নিয়ে ঐতি ও বিছিন্ন হইয় পড়িল যে কঠোর বংশ-ঘটিত ও আৰ্য্য-সভ্যতা হইতে ধার-করা মত ও নিয়ম উহাদিগকে একসূত্রে আবদ্ধ রাশিয়াছিল, সেই নিয়নে দুইয়ের প্রাবাধীনে, আদিমবাসীরা যে পরিমাণে, যিনি হইল :—ভৌগোলিক নৈকটা ও অান্ত সুবিধা বৰ্ব্ব ধরণের জীবননিৰ্ব্বাহ প্ৰণালী পরিত্যাগ এই সকল মণ্ডলী আৰাত নুতন কবিয়া গঢ়িয়া লাগিল—সেই পরিমাণে এই নুতন উপবিভাগ গঠনের কাজ আরও ক্ৰতভাবে অগ্রসর হইতে লাগিল। তখন ইতেই ক্ৰমশ অপেক্ষাকৃত কম গতিশীল জীবনের বিবিধ জাত বিদ্যমান বেশ দেখা যায়, কেমন করিরা নীচতা শুয়োজন লোকের ক্ষে চাপিয়া বসিল যৌবন বেশ বিভিন্ন অবস্থা অতিক্ৰম করিয়া ‘জাত ধীরে ধীয়ে কোৰি হইয়া পড়িয়াছিল তাহা পশুচারণ ও বংশগতি অবলম্বন করিল শিল্পের গ্রামসমূহে আজ্ঞা গাড়িল গোড়ায় এই গ্ৰামগুলি সে সময়ে কোন রাষ্ট্ৰনৈতিক শক্তি থাকিল, এই সন্ত জাতীয়তায় পত্তনতুমিতেই প্ৰতিষ্ঠিত হয়, কারণ, বংশের সমাজগঠনকে একটা হীতিমত পদ্ধতি নিয়মাধীনে দিতে নিয়ম ও গোষ্ঠীর নিয়ম স্বকীয় সৰ্ব্বপ্ৰধান প্ৰভুত্ব বজায় পাতি । কিন্তু ঐসকল সমাজ হইতে কোন প্ৰকার ধি ছিল ; বাহুমােদিত চিয়াত প্ৰথাসকল বরাবর বানৈতিক ব্যবস্থা বহিয়া হয় নাই ; এমনকি, ইহা