পাতা:প্রবাসী (সপ্তদশ ভাগ, প্রথম খণ্ড).pdf/৩৬০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


৫৬৮, প্ৰবাসী—অানি, ১৩২ [ ১৭শ ভাগ, ১ম খণ্ড পে আছে। ধানের বীজ বুনিয়া তাহার নৃতন শীষ লইয় ইতিহাস না। এই আলহা পশ্চিমের বহু বীরকাহিনীর নায়ক কাশীরাজের অধীন । বাদারে ভাই দয়দেব সিংহী উৎসব করাতেই বুঝা যায় দে এক সময় ইহা প্ৰাকৃত জন - । পরলোকগত পণ্ডিত অধিকাদত্ত বাস, ভারতে অনেকটা রীচাঙের মত পুঞ্জের নিকটস্থ কৰতিখণ্ড থৈয়াগয়ে স্নাজা রহিয়া গেলে গণের মধ্যেমৰ ধায় উদগমের সঙ্গে জড়িত ছিল । অথৰ্ব ৪ৰ্থ কবি হরিশ্চন্দ্ৰ, মাঢ়ার মহারাজা, বাবু রদীনারায়ণ, পূীরাজের সঙ্গে যুদ্ধ বাধিল । এমন সমকি কারণে ইহায় পুত্ৰ উগ্ৰসেন গহাৱায় গজিয়ের শিরোমণি । ভাষা কাও ১৫শ সূক্তে দেখা যায় দে মেঘ ওধীকে “অভিক্ৰেন্দন’ পণ্ডিত মহাবীর প্রসাদ ও মনোহরলাল প্ৰভৃতি লেখকগণ জাহা কালিহর হইতে বাহিরে গেলেন । বৰ্ষা আসিল বংশ মাড়া ও বিজয়পুর এই দুই ভাগে বিভক্ত ইয়াবা ফায়া অন্তরের বাথা বলিতেছে—আরও তাঁহার উত্তর এই উৎসবের ইতিহাস আলোচনা করিয়াছেন । নে ত্যবতী কাজলী খেলিতে চাছিলেন। রাজা বলিলেন বখন মুসলমানের রাজত্বে যুবতী কুমারীদের কাজীগাণ্ডা দিতেছে। এখনও কাজীতে দোলা হইতে “কারী কাল্পী” যে মীৰ্জাপুর ইহা পীঠস্থান তাহাও খোঁজ করিয়া চারিদিকে শত্ৰু, আলবা নিকটে নাই, গেলিয়া কাজ আর নিরাপদ ছিল না তখন এই ত্ৰ সীমায (কালো ফালে ) বলিয়া মেঘের ভণিতা দেয় ও “হী হী” ছেন । আমি ইতিহাসের দিকটা ইহাদের লেখাতেই চন্দ্ৰাৰতী বলিলেন তবে বাচিয়া- লাভ কি ?” পুরুষানুক্ৰমে গহৱারার ক্ষত্ৰিয়গণ প্ৰাণ পৰ্য্য পণ কৰি (হরিং হংি ) বলিয়া নীচের লোক হরিৎ শস্যামুয়ের নেগিয়াছি । এই উৎসবটি প্ৰতিপুঞ্জের প্রাকৃত উৎসা হী আরম্ভ হইল। এমন সময় শত্ৰুসৈন্য আসিয়া পড়িল । এই কাজী উৎসবটি রক্ষা করিয়াছেন। ভণিতা দেয় এই দুই দলের গানে কাজী পুরা হইয়া শাস্থের উৎসব নহে। এই সব পণ্ডিতেরা কি ইহাতে ত্ৰাবতী শত্ৰু-বেষ্টিত হইয়া অগ্নিকুণ্ডের কাছে ধাড়াইয়া সুকুমার বস্তুর বিপদ এই যে কোমল ও সুন্দর লিয়া ওঠে। যােহাৱা দোলায় থাকে তাবাদের গান, দোলা, ভবিষ্যপুরাণে হরকালী” বতের সঙ্গে এক কবিয়া পুৱা ছিলেন, ধরিতে আসিলে কাপ দিনে আহা এমন সহজেই সে আঘাত পায় ; তাহায় প্ৰাণটুকু সামা সুরও কাল্পী-কারী ( কালো কালে ) প্ৰতিপয় করিতে চাহেন। কিন্তু প্ৰাকৃত উৎসবও কি খুব সময় আসিয়া উদ্ধার করিলেন আঘাতেই বড় ব্যথা পায় তাই কাজরীর মত সুকুমাৰ ভণিতাও "সালিয়া (শ্যামল )—সমস্ত মেঘেৱই উপযুক্ত । প্ৰাচীন হইতে পারে না ? সে অবধি কালিৱে “কদলী” গাহিতেই হয় না অনুষ্ঠানগুলিকে আঘাত হইতে ধাচাইয়া ক্ষা করা বড় সা বাহারা মাটিতে দাড়াইয়া দোল দেয়- তাহাদেৱ বেশ ইহঁদের মতে চাষা দিবোদাসের সময়ও এই হইলে তাহাদের ভীকতা ও পরাজয় চিত হয় এই যুদ্ধে নহে এধনকার দিনে প্ৰবল শত্ৰুর অত্যাচার নাই বটে ভুষা, সুয় সৰই নৰ অঙ্গুরের স্নায় হরিদবৰ্ণ, তাহাদেৱ উৎসব ছিল। প্ৰাকৃত দানের মধ্যে যে “কমীকথ” আছে থানা প্ৰতি বহু চংদেল সনাপতি নিহত হন। কিন্তু সমাজব্যাপী কচি লতা অশ্লীলতা কদাকামনা ভণিতাওহী হরী” (রিং হরিৎ } বাংলা দেশ ছাড়া তাহাতে বুঝা যায় যে বাধা পূণরাজের সময়ও এই ভাই চংদোলা-বংশে “কাদী উৎসব হয় না মধু উৎসবটিকে বিষ দিয়া মারিতে উদ্যত ইয়াছে ভারতের সৰ্ব্বত্ৰ এই উৎসব আছে নাই কেবল এই সরস কজলী ছিল মীৰ্জাপুরে এই কলী আসিল কেন ? এই মীৰ্জাপুরে তার উপর এখনকার নকল শিক্ষার ফল সৌন্দৰ্য্যাহতি সজল বাংলা পীতায়ের এক সেনাপতি ছিলেন তার নাম ছি গেল ও গহবার গাঞিদের মধ্যে এই উৎসৰ েবশী। তাছার 'অভাব ও নীরসতা ইহাকে শুকাইয়া মারিয়ার চেষ্টা আমাদের দেশেও সে ধনাটা হয়, কিন্তু তাহার কোনে পৰমালিক। তিনি চ দেলা নেিয় ছিলেন। তিনি বীর ৗৱন মুসলমান রাজত্বের সময় যুবতীদের এই খেলা সৰ্ব্বথা৷ স্বাচার নিরাপদ ছিল না কাশী তীৰ্থস্থান বলিয়া ও ও মীৰ্জাপুরের শ্ৰাবণ শুক্লাতৃতীয় মধুশ্ৰাবণী। তাহা পরে পঞ্চী ধনখটার উৎসব না করিতে পারিলে ইহারা প্ৰাণে মরিয়া জানা কাশীতে যাইতেছিলেন পথে কালির নগৰে বিয়গিরি সুরক্ষিত বলিয়। এখানেই কলী হিয়া গেল হইতে সপ্তমীর মধ্যে নারীরা গাহিয়া ৰাজাইরানীতে যায়—ইহাদের প্রাণ এমনি উৎসবময় ধন আকাশ তিনি রাজকন্যার সেবায় রোগমুক্ত হন ও রাজা মকরণে সব স্থানে তেমন হিল না যাইয়া স্নান করিয়া নদীর মাটি লইয়া আসেন। নখটায়, চারিদিকে বিছাতের চমক, প্ৰকৃতির সবুজ কন্যা সেৰাকারিণী মলনা দেবীকে বিবাহ করেন। আৰ্য্যাধৰ্তের অধিকাংশ স্থান ব্যাপিয়া মহারাজ জয় পাৰে থিয়া সপ্তবিধ ব্ৰীহি দিয়া অ-উপদ পৰ্য্য বাহার, বা প্ৰবল বেগ—তারই সাথে সাথে, দোলনার প্রথা ও চাবতী নামে পালিকে পুত্ৰ ৪ কৰা হয়— রাজত্ব ছিল। কথায় আছে— ভিজা কাপড়ে ঢাকিয়া রাখেন । ভাদ্ৰ কৃষ্ণতৃতীয়াতে পুৰা প্ৰধল দোলা--তকীর উচ্চ মায়ার প্রভৃতি সুর—নার পরমালিকই পরে কালিজরে রাজা হন কড়া কাংগা কালী কাশ্মীর লো দেশ । গীতবাদ্যাদিসহ নদীজানে পিয়া ঐ পরে শীষ কতক নী উদার নীল কেতু এবং ঢোলের বা পাখোয়াজের গম্ভীর এদিকে পূীরাজের হাসর নামে এক অতি বলবৰ কাশিৱাজ কনষ্ট ধনী ও রচাদ নরেশ । ভাসাইয়া দেন, কতক বন্ধু-বান্ধবদের কাণে পাইয়া দেন বাজনা পুজ-নীল মেণের মধো চঞ্চল বিড়াতের স্নায় সেনাপতি ছিলেন। একদিন রাখা বল্প মহিষের লড়াই ইনি যখন মুসলমানের কাছে হত হইলেন তখন ইহার এবং বহেরে রায়’এর প্রতিকৃতি ফরিয়া তাৱ পূজা দোলনার চঞ্চল পীত চোর কাজীকে জীবন্ত করিয়া দেখিতেছেন । বলিলেন, কে এই মহিল টংকে ছাড়াইতে স্তর পুত্ৰ মাণিকচন মাণিকপুরে ও পরে কাশীতে করেন । এই “ৰহেরে রায় কোনোকালে মুসলমানদের পারে। স্বাসৱ আসরে আসিবার আগেই দেউল ও সহদেৰ স্থান করিতে লাগিলেন । প্ৰসিদ্ধ কাশী-নরেশ রাজা আক্ৰমণ রোধ করিয়া কবীর উৎসৰ বুবতীদের পক্ষে কাশী হইতে মীৰ্জাপুরে উৎসব আরও গভীর। অষ্ট নামে দুই গোপজাতীয়া লগাচারিণী পৱম-সুন্দরী যুবতী বায়" ইহারই বংশে জন্মগ্ৰহণ করেন । কাশী হইতে নিরাপদ রাখিয়াছিলেন ; জুলায় উপরের পৰ্ব্বত বৰ্ষাকালে অতি সুন্দর হয় । নীচে মহিষ দুইটিকে ছাড়াইয়া দেন । ব্লাঞ্জাৱ আজ্ঞাক্ৰমে কৰি খাল পৰ্য্যন্ত সমস্ত ভূভাগ ইনি শত্ৰুহন্ত হইতে রক্ষা করিয়া কঞ্জরীর আচার প্রসঙ্গেই কাজীৱ বেশভুষাদি বিষয় গঙ্গা, দূরদূরান্ত পৰ্য্যন্ত বিষ্কামালা-মাঝে মাঝে মারে চিত্ৰিত স্বাস ইষ্টাদের বিবাহ করেন । দেউলার গৰ্ভে আল্‌হা ও প্ৰাচীন উৎসবাদি , অক্ষুন্ন রাখিয়াছিলেন। বৈরাম ইহাকে কিছু বলা দরকার । কয়েক দিন পূৰ্ব্বে এক চিত্ৰ দেখিলা অরণ্যাবৃত উপত্যক। — পৰ্ব্বতের উপর খালি বিশ্বত অধি- উদল এবং সহদেবার গঙে মলখানা ও সুলখানা—জারে বলে ধরিয়া জোর করিয়া রোহতাসগড়ে মুসলমান যাহাতে কাজীগায়িক। তীরা মাটিতে থাকাইয়া আছে। ত্যাকা-আকাশভরা মেঘের লীলা মেঘের উৎসব-তীৰ্থই এই চারপুর হয় । স্কার ভ্ৰাতার কণী নিজের হাতে | দিবা ফেলেন, এবং সধৱাজে কেরা মগরেীর ইত্যাদি মাটিতে বাহারা দাড়ায় তাহারা ী র উত্তর সাধক । হয়। অষ্টভুজার একপাশে "বিরহী” নামে যে উপত্যকা যুদ্ধে মারা যান। তখন স্নাসরের খ্ৰীপুৰ দেশ হইতে তারি না জায়গির দেন। সে-সব দেশে এখনও গহরবার কাজরীর আসলই হইল দোলা । কবীরের সময়ও জীয় আছে সেখানেও পুৰ উৎসব জমে । হন । হারা শুণন আসিয়া গবালিকের আশ্ৰয় স্নাথ ৰাসলমান দেখা যায় এবং মগরেী পরগনা এখনও খুৰ চলন ছিল। এখনও ভাষায় রচিত ৭২-৭৩