পাতা:প্রবাসী (সপ্তদশ ভাগ, প্রথম খণ্ড).pdf/৪০০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


জাম্বিন ১৩২৪ [ ১৭শ ভাগ, ১ম খণ্ড ৬ষ্ঠ সংখ্যা] বিবিধ প্ৰসঙ্গ—বঙ্গীয় হিতসাধনমণ্ডলী সংগ্ৰহ প্ৰকাশ করেন। বিদ্যাপতির পদাবলী এই গ্রন্থে ছিল । তিনি সেখানে প্রায়ই যাইতেন এবং থাকায় তাহা দেৱ কাগজ পড়িয়া সম্যক বুঝা যায় না। বঙ্গের দৈনিকগুলির স্বত্বাধিকারীদের কানে যে আমাদের কথা নিবিষ্ট হইয়াছিল। তাহার রচিত উৎকলে শ্ৰীকৃষ্ণচৈতন্ত’ বাস্তাঘাট পুণিী দামা প্ৰকৃতির উন্নতির জল অনেক বাহিরের প্ৰাদেশিক ব্যবস্থাপক সভা প্ৰতিনিধিরা কিৰূপ পোঁজিবে, পেদ্বিলেও যে তাহারা ইহা বিবেচনা কবিয়া প্ৰবাসীতে প্ৰথম প্রকাশিত হইয়াছিল । তিনি অনেক চেষ্টাও অৰ্থব্যয় করিয়াছিলেন । তাঁহাৱঐ গ্রাহের ম্যাঙ্গে কাজ করেন, বঙ্গের কাগজ পঢ়ি তাহা ভাল করিয়া, কাগজগুলির উন্নতির চেষ্টা দেখিবেন, তাহার সম্ভাবনা বৎসর বদীয় সাহিত্যপরিষদের এবং সাহিত্যসভার সভা রিয়া নিবায়ণের চেষ্টা অনেকটা সফল হইছিল জানা যায় না। অন্যান্য প্রদেশে শিক্ষা, সাহিত্য, বিজ্ঞান, কম এইজন্তু আমরা বলি, বাহাদের সঙ্গতি আছে , পতি ছিলেন। সমগ্ৰ ভারতবধে সমুদয় দেশভাষায় দেৰ দৰ্শন, ইতিহাস, প্ৰভৃতির উন্নতি কিরুপ হইতেছে, বঙ্গের তােহাৱা ভারতবর্ষের প্রত্যেক প্ৰাদেশিক রাজধানীর গুজরাটে স্বরাজের জন্য আবেদন । নাগরী লিপি যাহাতে ব্যবঙ্গত হয়, এইজন্য একলিপিবিস্তাৱ বৈদিক কাগজে তাহার কোন খবর থাকে না । অন্যান্য একটি কৰিয়া দেশী দৈনিক কাগজের গ্ৰাহক টন পরিষৎ প্রতিষ্ঠিত হয় তিনি ইহার প্রধান উদ্যোক্তা শিক্ষিত ভারতবাসীরা যে স্বাত্তশাসন, স্বরাজ, জাতীয় প্ৰাশের প্রধান দেশ দৈনিকগুলি যে পরিমাণে ভিন্ন ভিন্ন আমাদের ভাল সাধারণ পাঠাগারগুলিতেও এইসব কাগজ ছিলেন এই পরিষৎ হইতে দেবনাগর নামক একটি আকৰ্ষত, বা হোমল চায়, ভারতসলিবে মনে এই প্রদেশের খবর ছাপে, বাংলার দৈনিক কাগজে তত ছাপা বাখা হউক । মাত্ৰাজ, বোম্বাই, এলাহাবাদ, লাহোর, সাময়িক পত্ৰ কিছুদিন বাহির হইয়াছিল। তাহাতে বাংলা, বিশ্বাস জাইবার জন্ত গুজরাট হইতে ক বে মা ; এই জন্য কেবল কলিকাতার দেশী দৈনিকগুলি বঁকিপুর, এই সব জায়গারই এক-একথানি দৈনিক হিন্দী, ওড়িয়া, মরাঠী, গুজরাতী, তামিল, তেলুগু, তৃতি তাহার নিকট পেশ করা হইৰে । গুজরাট সভা ড়িয়া বাঙালী জাতি নিজের ওজন স্থির কবিতে পারে না। { হাৱাইতে না পরিবেন, তাহারা প্ৰথমোক চারিটি ভাষায় রচিত প্ৰবন্ধ নাগরী অক্ষরে ছাপা হইত সভাপতি যুক্ত মোহনদাস কৰ্ম্মাদ গান্ধি মহাশয়ে নেতৃত্বে নিজে ওজন বুদ্ধিতে হইলে অপরের সহিত তুলনা করা শহরের অন্ততঃ কোন একটির একখানি ভাল দেশী তিনি বাঙালী কায়স্থদের ভিন্ন ভিন্ন শ্রেণীর মধ্যে এই আবেদন শিক্ষিত গুজরাটদের দ্বারা স্বাক্ষর করাই য য়। কিন্তু কলিকাতায় দেশী কাগজগুলিতে এই তুলনা, দৈনিক লটন। তাছা হইলে বাঙালী, শুধু বাঙালী না । বৈবাহিক আদানপ্ৰান চালাইবার চেষ্টা করিয়াছিলেন । তেছেন। আবেদনে ইহা লিখিত আছে যে ইহােৱ প্ৰত্যেক নিৰামত পেষ্ট উপাদান পাওয়া যায় না। থাকিয়া, ভারতীয় হইবার পক্ষে সুবিধা হইবে । বম্বের নিজের পরিবারে রাঢ়ী ও বঙ্গজ কায় শ্ৰেণীর মধ্যে এইক্লপ স্বাক্ষরকারী কংগ্ৰেস মঙ্গুেলীগ কতৃক অনুমোদিত জি আমাদের ওজন যদি আমরা ঠিক বুৰিতে চাই, তাহা জvতাও ক্ৰমে ক্ৰমে কতকটা সুব হইবে । বিবাহ দিয়া এবিষয়ে দৃষ্টান্ত প্ৰদৰ্শন করিয়াছিলেন। তিনি নৈতিক অধিকারের সমুদয় দাবী বিয়াছেন তাহা ইলে ভারতবরে আমাছ প্রদেশের নয়, জগতের সভা শুধু বাঙালী কারদের মধ্যে এই প্ৰকার একতা সম্পাদনের সমৰ্থন করেন । আবেদনে ভারতসচিবকে ইহা জানান সারদাচরণ মিত্ৰ । দেশসকলেও খবর রাখা দরকার। এইসব দেশে রাষ্ট্ৰীয় চেষ্টা কৰিয়া ক্ষান্ত হন নাই , বিহার, দাগ্ৰা-অযোধ্য, ইয়াছে যে দাবী অনুযায়ী রাজনৈতিক সংস্থায় না হলে সামাজিক, শৈক্ষিক, শৈল্লিক, অধ্যাবিক, সাহিত্যিক , কলিকাতা হাইকোটের ভূতপূৰ্ব্ব জজ সারদাচরণ মিত্ৰ প্ৰভৃতির কাম্বেদের সঙ্গেও এইৱল মিলনের পক্ষপাতী এবং ভারতে সন্তোষেয় নবগের আবিৰ্ভাৰ হইবে না । স্কোৰ বৈজ্ঞানিক, দাৰ্শনিক, প্ৰভৃতি কত দিকে কত উন্নতি মহাশয় সম্প্ৰতি দেহত্যাগ করিয়াছেন। তিনি বালো ও জযবাদ ছিলেন। বরপণ হিত কবিতে তিনি চেষ্টা স্বেচ্ছাসেবক স্বাক্ষর সংগ্ৰহ কয়িযেন, তাহারা কেবল হইতেছে, কত চেষ্টা ৭ পরীক্ষা হইতেছে, কত নুতন কল যৌবনে একজন বীমান ছাত্ৰ ছিলেন, এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের করিয়াছিলেন, এবং তদন্ত নিজের পরিবারে ইহার দৃষ্টা কংগ্ৰেসমলেমলীগের দাবী কথাই লিখেন, এবং নিৰ্ম্মিত ও শিল্প প্ৰবৰ্ত্তিত হইতেছে, তালের খবর আমরা পাই , অনেক পরীক্ষায় প্ৰথম স্থান, অধিকার করিয়াছিলেন । দেখাইয়াছিলেন। তাহার ধারণা ছিল, যে, কায়স্থয়া ক্ষত্ৰিয়। যাহারা আবেদনটি ভাল করিয়া যুকিয়াছেন, কেবল ইছল কলিকাতা হইতে যদি এমন একখানি কাগজ বাহির হয় কলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সৰ্ব্বোচ্চ সন্মান প্ৰেমাদ রায়চাঁদ তাহার সম্পাদিত “কায়স্থ-পঞ্জিকা" এই মত প্ৰচায়িত লোকদেরই স্বাক্ষর লাইবেন। খীৰাত ভারতবরে এবং প্রাচ্য ও পাশ্চাত্য সভ্য দেশ- বৃত্তি লাভ ; তাহা তিনি পাইয়াছিলেন হাইকোটে ইত, এবং কান্ত সভা দ্বারা কাস্থদের মধ্যে উপনয়ন আমরা মান রিভিউর গত সংখ্যায় এইপ অব কলের সকল-বকম প্ৰচেষ্টার বিবরণ থাকে, তাহা হইলে ওকালতীতে কৃতিত্ব লাভ করিবার পর তিনি অঙ্গ নিযুক্ত সংস্কার প্ৰবৰ্ত্তিত হইতেছে পেশ কবিবার প্রস্তলব করিয়াছিলাম এই কাগজের সম্পাদকীৰ মত যাহাই হন । জিয়ীতে তিনি বিচারপতা স্বাধীনতা কিছুদিন বেথুনকলেজ কমিটির সম্পাদক লোকদেরও মত এইরুপ জানিয়া হাঁহইলাম। ভাৱৰৰে টক, গোঁহাও বরং আমরা সহ করিতে প্ৰয়ত আছিযদি প রচয় দিয়াছিলেন । বঙ্গ বিভাগের পর স্বদেশী আন্দোলনে ছিলেন তিনি হিন্দুসমাজভূক্ত ছিলেন, কিন্তু মহাকালী সকল প্ৰদেণ হইতে এইপ আবেদন যাওয়া উচিত । আমাদের ঈশিত সব খবর ইহাতে থাকে। কিন্তু কে এমন সময় কোন কোন অভিযুক্ত ব্যক্তি তাহার সুবিচারও স্বাধীন পাঠশালার মত বালিকাদিগকে প্ৰধানতঃ স্তোত্ৰপাঠ, স্বাগজ বাহির কৱিবে । প্রেল-আইন থাকায় এখন মাসিক চিত্ততায় কোন কোন সরকারী কৰ্ম্মচারীর অত্যাচার বইতে নৈবেদ্য সাজান ও শিবপুজা শিক্ষা দেওয়ার পক্ষপাতী বঙ্গীয় হিতসাধনমণ্ডলী সৰ্ব্বাঙ্গীন কাগজ বাহির রাও সাধ, দৈনিক কাগজ ত রক্ষা পাইয়াছিল। তিনি “স্বরাজ" কথাটর েয -ৰূপ স্বব্যাখা ছিলেন না । বালিকাৱা যাহাতে জ্ঞানলাভ করিতে পারে, ১৯১৩ সালে বঙ্গীয় হিতসাধনমণ্ডলী নানাপ্ৰকাৰী গ্রেস-আইন না থাকিলে কোন কোন তাহার একটি রায়ে করেন, তাহাও বৈধ আন্দোলনকারীদের এবং গৃহস্থালির কাজ ভাল করিয়া করিতে পারে, প্ৰধানতঃ কবিয়াছেন। ৯ট গ্ৰামে আগুন লাগায় লোকও হয়ত সামান্ত ভাবে একখানা ছোট পক্ষে সুবিধাজনক হইয়াছিল ইক্লপ শিক্ষারই সপক্ষে মত প্ৰকাশ করিয়াছিলেন । পরিবার বিপন্ন হয়। এইয়া ১৩ট পরিবারকে নগদ ধৰিয়া করিয়া ক্ৰমশঃ তায় বড় করিতে চেষ্টা তিনি কেবল ওকালতী ও জজিয়ী করেন নাই); তিনি শিক্ষিত লোকদের বিবৃত্তি অবলম্বনের পক্ষে এবং চাষ আদির সরঞ্জাম দিয়া সাহাক । বাং ইহা গরীবের সাধ্যাতীত । অনেকগুলিতে সিদ্ধিলাভ করিতে পারেন নাই নির কারখানা প্ৰকৃতিতেও তিনি মন িদয়াছিলেন লোককে সাহায্য করা হয়। বাঁকুড়া অনুযায়ী দৈনিক খন্দরের কাগজ অক্ষয়চন্দ্ৰ সরকারের সহযােগিতায় তিনি প্ৰাচীৰ কা তাহার জন্মস্থান পানিসেয়ালা গ্ৰাম তাহার খুব প্ৰিয় ভিক্ষষ্টি জন লোককে