পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/১০৪৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


তুমি ভদ্রভাবে বলতে পারতে। তুমিও জেনে, তোমার মত এমন অসভ্য দবিনীত চাষকে মেয়ে দিতেও আমি প্রস্তুত নই।”—বলিয়া তিনি বাহির হইয়া গেলেন। ll q ! কেদারবাব চলিয়া গেলে, বিনোদ অনেকক্ষণ চাপ করিয়া তত্ত্বপোষের উপর বসিয়া রহিল। ভূত্য আসিয়া বলিল, দশটা বাজে, কলের জল চলিয়া যাইবে, এই বেলা স্নান করিয়া লইলে হইত। বিনোদের মাথাটা ঘুরিতেছিল, একটা শীতল জলের আকাঙ্ক্ষায়, সে সনান করিতে নামিয়া গেল, কলের নীচে মাথা রাখিয়া অনেকক্ষণ ধরিয়া সে স্নান করিয়া খাইতে বসিল, কিন্তু খাইতে পারিল না। কাল প্রায় সারারাত অনিদ্রায় কাটিয়াছে। শয্যায় গিয়া শয়ন করিল, কিন্তু নিদ্রা আসিল না। কেবলই মনে হইতে লাগল, “অলকাকে হারাইলাম। কি করিব, উপায় কি ? এ অবস্থায় কেমন করিয়া তাহাকে বিবাহ করি ? কিন্তু কুন্থানাদপি কাঞ্চনম, স্ত্রীরত্বং দকুলাদপি আহরণ করিয়া লইতে দোষ নাই ইহাও প্রাচীন নীতিবচন। রাগের মাথায় বড়াকে ওরাপভাবে অপমান করিয়া অন্যায় করিয়াছি, সেটা ভাল হয় নাই। নীতি ও ধর্ম সকলের এক নয়। এমন হইতে পারে, ওরপে কাৰ্য্যকে তিনি কিছুমাত্র অন্যায় বা অধম বলিয়া মনে করেন না। শালগ্রাম শিলা সম্মখে রাখিয়া মন্ত্র পড়িয়া বিবাহ হয় নাই বলিয়াই যে সে মিলন সব্বদোষের সব্বপাপের আকর, এমন নাও হইতে পারে। সে আকরে, অলকার ন্যায় সপবিত্র শত্র সন্দর ফলটির উদ্ভব হইয়াছে ত ! সে ফল, বকের কাছাকাছি পাইয়াও আমি হারাইলাম—আমার আদন্টে ধিক।” তত্ত্বপোষের এ-পাশ ও-পাশ করিতে করিতে এইরুপ চিন্তায় বিনোদ বেলা চারটা অবধি কাটাইল। তখন উঠিয়া ভাবিল, হেদায়ার ধারে এতক্ষণ কেদারবাব বেড়াইতে আসিয়াছেন ; যাই, ওবেলার রাঢ় ব্যবহারের জন্য তাঁহার নিকট ক্ষমা প্রার্থনা করিয়া ੇ। পরিতে গিয়া, ভক্তপোষের নিম্নে নজর পড়িল, একখানা ইংরাজি খবরের কাগজ পড়িয়া রহিয়াছে। সেখানি তুলিয়া লইয়া দেখিল, ২০ বৎসর পর্বে লাহোর হইতে প্রকাশিত Arya Patrika সংবাদপত্র। কেদারবাবর হাতে আজ সকালে একখানা খবরের কাগজ বিনোদ দেখিয়াছিল—তিনিই তবে এখানা ফেলিয়া গিয়াছেন। কৌতুহলবশতঃ কাগজের ভাঁজ খলিতেই একটা সংবাদ তাহার চোখে পড়িল। সেটি আগাগোড়া বিনোদ পড়িল। পড়িয়া, জামা গায়ে দিয়া তাড়াতাড়ি বাহির হইয়া গেল। বড় রাস্তায় পড়িয়া, হেদায়ার দিকে প্রায় ছটিয়াই সে চলিতে লাগিল। সেখানে তাঁহাকে না পাইয়া, তাঁহার বাড়ীর দিকে চলিল। কেদারবাবর বাড়ীতে পেপছিয়া, উপরের ঘরে গিয়া দেখিল, তিনি বসিয়া অলকাকে পড়াইতেছেন। বিনোদকে দেখিয়া অলকা তাড়াতাড়ি সেখান হইতে উঠিয়া গেল। কেদারবাব সবিসময় বিরক্তিতে তাহার মুখপানে চাহিয়া রহিলেন। বিনোদ সহসা কেদারবাবর পা দটি জড়াইয়া ধরিয়া কাতরভাবে বলিল “আমায় মাফ করতে হবে । আজ সকালবেলা আপনার প্রতি যে আচরণ আমি করেছি, তা নিতান্ত একটা ভুল সংবাদ শুনেই করেছিলাম। এই খবরের কাগজখানি আমার ঘরে আপনি ফেলে এসেছিলেন—এইটে পড়েই আমার সেই বিষম। ভুল বুঝতে পারলাম। আমাকে আপনার পত্রস্থানীয় বলে গ্রহণ করন আর না করন, আমার অজ্ঞানকৃত সেই অপরাধ আপনি ক্ষমা করন।" . কেদারবাব সনেহে তাহাকে উঠাইয়া বলিলেন, "কেন, কেন? তুমি কি শুনেছিলে বল দেখি ? কার কাছেই ব্য শনলে ?” - বিনোদ লজায় অধোবদনে রহিল। তখন, প্রাতে বিনোদ কর্তৃক উচ্চারিত একটি - শব্দ কেদারবুবর মনে পড়িয়া গেল। বলিলেন, “ওঃ বৰতে পেরেছি। সব কথা

  • سS Sb