পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/১০৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


জের একজন মাত্র অধ্যাপক এই কমের প্রাথীি হয়ে আমার কাছে এসেছিলেন, তাঁকে কথা দিয়েছি যে তাঁকেই পাঠাব। তাঁর নিজের খবই ইচ্ছে, কিন্তু শুনলাম, এ খবর শুনেই তাঁর সন্ত্রীর ফিট হতে আরম্ভ হয়েছে। তাঁর আত্মীয় সবজন খুবই বাধা দিচ্ছেন। তাঁর যদি না যাওয়া হয় তবে আপনাকেই পাঠাতে প্রস্তুত আছি।” ব্ৰজবাব মনে মনে বলিলেন, “আমার স্ত্রীর ফিট হবে না।” প্রকাশ্যে, কত্তা মহাশয়কে কৃতজ্ঞতা জানাইয়া, প্রণাম করিয়া বিদায় লইলেন। পরদিনই কত্তা মহাশয় ব্রজবাবকে ডাকিয়া পাঠাইলেন। ব্ৰজবাব তৎসমীপে উপস্থিত হইলে বলিলেন, “সে ভদ্রলোকের যাওয়া হ'ল না। আপনি রাজী ত ?” ব্ৰজবাব বলিলেন, “আজ্ঞে হ্যাঁ। কবে যেতে হবে ?” “যত শীঘ্ৰ পারেন। পরশ বিলাতী মেল কলকাতা থেকে রওয়ানা হবে। এত শীঘ্র বোধ হয় আপনি পেরে উঠবেন না। তার পরের মেলে, অর্থাৎ আজ থেকে ন দিন পরে যাত্রা করতে পারবেন ত ?” ব্ৰজবাব বললেন, “আজ্ঞে হ্যাঁ। নিশ্চয় পারবো।” কোথায় গেলে ব্ৰজবাব নিয়োগপত্র ও পাথেয় প্রভৃতির জন্য অর্থ পাইবেন ইহা বুঝাইয়া দিয়া, কৰ্ত্তা মহাশয় একখানি পত্র লিখিয়া তাঁহার হাতে দিলেন। ব্ৰজবাব, সাহেব বাড়ীতে গিয়া সন্ট প্রভৃতির ফরমাস দিলেন। তারপর স্মীকে আনিতে ভবানীপরে লোক পাঠাইলেন। তাকে সকল কথা জানাইয়া, তাহার একটা বন্দোবসত করিয়া জন্মশোধ বিদায় লইতে হইবে। ৷৷ পঞ্চম পরিচ্ছেদ it পরদিন ঊষা বামিগহে ফিরিয়া আসিল । বেলা তখন ১২টা। স্বামীকে গহে দেখিয়া জিজ্ঞাসা করিল, "আজ তুমি কলেজে যাওনি ?” ব্ৰজবাব বলিলেন, “না। আমার এখানকার কাজ শেষ হয়ে গেছে।” উষা সবিসময়ে জিজ্ঞাসা করিল, “শেষ হয়েছে কি রকম ?” ব্ৰজবাব তখন বিলাতে তাঁহার চাকরি গ্রহণের কথা বললেন । উষা বলল, “সে কি! ভিতরে ভিতরে এই সব তুমি ঠিক করে ফেলেছ ? আমাকে একবার জিজ্ঞাসাও করলে না ?” ব্ৰজবাবরে মুখমণ্ডলে ক্ষণকালের জন্য একটা মলান হাসি খেলিয়া গেল। তারপর তিনি বলিলেন, “এটা ত হচ্চে ব্যক্তি-স্বাতন্ত্র্যের যুগ কিনা! এ যুগে ত স্বামী সন্ত্রী আর পরসপরের অধীন নয় ?” “অর্থাৎ ?” "অর্থাৎ সত্ৰী, নিজের ইচ্ছা অনুসারে, যা খসী তাই করতে পারে, স্বামীর তাতে বাধা দেওয়ার কোন অধিকার নেই; আর স্বামীও, নিজের ইচ্ছা মত কাজ করতে পারে, সত্রীর মতামত নেওয়ার প্রয়োজন হয় না।” উষা কয়েক মহত্তে নিৰ্ণিমেষ নয়নে স্বামীর মুখ পানে চাহিয়া রহিল। পরে, শ্লেষের সবরে বলিল, “এতটা উদার হয়ে উঠলে, বিলেত যাবার নামেই ?” ব্ৰজবাব সেইরাপ সবরে উত্তর করিলেন, “যাদের বিলেত যাবার নাম গন্ধও হয়নি, তারাও ত কত লোকে এই রকম উদার মত পোষণ করে !” উষা বলিল, “কথাটা কি আমাকে লক্ষ্য করে বলা হল ?” ব্ৰজবাব বলিলেন, “যা বোঝ তুমি !" এ কথা শুনিয়া উষার চক্ষু ছল ছল করিয়া উঠিল। সে ধীরে ধীরে সে পথান ত্যাগ করিয়া, জানালার কাছে গিয়া, দই হাতে মুখ ঢাকিয়া কাঁদিতে লাগিল। ব্ৰজবাব মনে মনে বলিলেন, "ল্টেজে སྤྲུབས་ཨ་ཕལ་ শ্রেণীর অভিনেত্রী হতে পারবে