পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/১১১৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


এটাণীর নাম করিয়া, নিজেকে তাঁহার কমচারী বলিয়া পরিচয় দিলেন। বলিলেন, “আমাদের বাব আৰ্য্যশক্তি কাগজে আপনার বিষয় পড়েছেন। তিনি এই শনিবারে কাশীপরে তাঁর বাগানবাড়ীতে, বন্ধদের নিমন্ত্রণ করে একটি ঈভনিং পাটি দেবেন—তাঁর ইচ্ছা, আপনি সেখানে গিয়ে, কিছ গান বাজনা শোনান " বিনয় ভাবিল, হাইকোটের একজন প্রসিদ্ধ এটাণ, তাঁহার বন্ধু-বান্ধবগণকে বাগানে নিমন্ত্রণ করিয়াছেন—সে বৈঠকে নিশ্চয়ই কলিকাতার অনেক গণ্যমান্য সম্প্রান্ত লোক উপস্থিত থাকিবেন। এরূপ সমজদারের সভায় নিজ বিদ্যার পরিচয় দেওয়ার সুযোগ সহজে ত্যাগ করা হইবে না—এমন কি ফী কিছু কম হইলেও, এ এনগেজমেন্ট স্বীকার করিতেই হইবে। তাই সে জিজ্ঞাসা করিল, “কতক্ষণ আমায় বাজাতে হবে ?” হরিযাব বলিলেন, “এই ধরন, সন্ধ্যা ৭টা কি ৮টা থেকে রাত ১০টা কি ১১টা পৰ্য্যন্ত—এর বেশী নয়।” - বিনয় বলিল, “তিন ঘণ্টা। তিন ঘণ্টায়, আমার ফী ৬৪ লাগবে ” হরিবাব কিছুক্ষণ বিনয়ের মুখ পানে চাহিয়া থাকিয়া বলিলেন, ৬৪, টাকা । কিছর কমসম হয় না ?” বিনয় বলিল, “ঐ আমার ফাঁ।" কয়েক মহত্তে চপ করিয়া থাকিয়া হরিবাব বললেন, “আজ্ঞে, তাই না হয় বাবকে বলে কয়ে আমি রাজী করাব। কিন্তু হে হে!—আমার সম্বন্ধে একটু বিবেচনা করবেন ত?” “কি বিবেচনা ?” - “অজ্ঞে, আমরা একটা কমিশন পেয়ে থাকি কিনা। বেশী নয়, শতকরা ২৫ টাকা আমরা পেয়ে থাকি।” বিনয় ভাবিল, “সে কি দালালী দিতে হবে নাকি ? তা, কোন ব্যবসায়েই বা দালালী দিতে না হয় ! উকিল ব্যারিস্টারেরাও ত দেন শুনেছি। কিন্তু এ নিয়ে এখন একটা গণ্ডগোল করলে শেষে কাষটা ফসকে যেতে পারে। ও আপনার মানবেরই টাকা চরি করছে করকে গে—আমার এত মাথাব্যথা কিসের ?” ভাবিয়া সে বলিল, “আচ্ছা, তার জন্যে আটকাবে না।” হরিবাব বললেন, “৬৪ থেকে ১৬ গেলে বাকী রইল ৪৮–এই নিন।”—বলিয়া পকেট হইতে টাকা বাহির করিয়া গণিয়া দিলেন এবং বলিলেন, “ঐ দিন সন্ধ্যার পর আমরা মোটর পাঠিয়ে দেবো-আপনি অনগ্রহ করে আসবেন। আমাদেরি মোটর আবার আপনাকে বাড়ী পৌছে দেবে এখন। ঐ ৬৪, টাকার রসিদটা অনুগ্রহ করে লিখে দিন ।” বিনয় দালালী দিতে স্বীকৃত হইয়াছিল—ও আপনার মানবের টাকা চরি করছে তা আমার কি?” এই যুক্তিতে নিজ মনকে অখিঠার দিয়া; কিন্তু ৪৮ লইয়া ৬৪, ট্যকার রসিদ দিতে, তাহার মন উঠিল না। সে বলিল, মশাই, মাফ করবেন ৪৮ পেয়ে ৬৪, টাকার রসিদ আমি দিতে পারিনে।” হরিবাব বললেন, “আচ্ছ, থাকগে রসিদ—না হলেও চলবে। এখন তবে আসি মশাই—গড়মণিং मद्र "-दजिब्रा সেলাম করিয়া প্রস্থান করিলেন। শনিবার সন্ধ্যার পর নিজ যন্ত্রাদি সহ বিনয় প্রস্তুত হইয়া বসিয়া রহিল। সাতটা বাজিল, ৮টা প্রায় বাজে-এখনও তাহাকে লইতে মোটর আসিল না। সে মনে মনে রাগিয়া ভাবিতে লাগল, “সময়ের মল্যজ্ঞান আমাদের দেশের লোকের মধ্যে বড়ই কম—তা তিনি যত বড়ই ধনী বা বিবান হোন না কেন আচ্ছা যখন নিতে আসে আসবে ; আমি কিন্তু ১১টার বেশী এক মিনিট সেখানে থাকাঁছুনে।” রান্ত্রি ৮টা বাজিলে বিনয় আহার করিতে বসিল। সাড়ে আটটায় আহার শেষ হইল, তখনও কেহ আসিল না। বিনয় ভাবিল, হয়ত এটণিৰাবর বাড়ীতে কোনও বিপদ আপদ BBB BB BB BBk ee BBB BB BBS BBB BB