পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/১১৪১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


--"আমার হদয়েশবরী " চিঠি রাখয়া নিজ বক্ষে হাত দিয়া, চক্ষ; মদিয়া অভিনেতার ভঙ্গিতে বলিতে লাগিল—“হৃদয়েশবরী –হৃদয় জলে গেল,—পড়ে গেল—খাক হয়ে গেল। আর একটা খাই”—বলিয়া চক্ষ খলিয়া, গেলাসের বাকটকু পান করিয়া, পত্ৰখনি কুড়াইয়া লইয়া আবার পড়িতে আরম্ভ করিল। কিন্তু জিহব তখন তাহার জড়াইয়া আসিয়াছে। তা ছাড়া, নেশা হইলে, সে আর ‘স উচ্চারণ করিতে পারিত না--স’ স্থানে স্থ বলিত। একটি একটি কথায় জোর দিয়া পড়িতে লাগিল— “কিন্তু-ছনিবারে—যাওয়র ছবিধা করিতে-পারিলাম না। পরদিন—পরদিন—অর্থাৎ রবিবারে—আমি নিচ্চয় যাইব তাহাতে কোন ছন্দেহ নাই। তুমি-পবে পরামছ' মত— রাত্রি ঠিক ১২টার ছময়—তোমাদের বাড়ীর পচ্চিমে ছেই ছিকটুিথের ছদ্মখে আছিয়া দড়িাইবে।” চিঠি রাখিয়া, আর কিঞ্চিৎ পান করিয়া, গভীর মুখে কি ভাবিতে লাগিল। অন্ধম,দিত নেত্ৰে, মাথাটি নড়িতে নাড়িতে বলিতে লাগিল—”এ চিঠি ত তুমি পাবে না মণি ! খামখানাই যে ছিড়ে ফেলেছি। আগেকার চিঠি মত--তুমি ছনিবারে রাত বারটায় এছে ছিবমন্দিরের কাছে দাঁড়াবে ত ? তার আছাপথ চেয়ে—দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে--অবছেছে ক্লান্ত হয়ে বছে পড়বে—বছে বছে ক্ৰমে ছয়ে পড়বে। কিন্তু ছে ত হায় আছবে না। অলরাইট— আমি যাব আমি গিয়ে তোমায় বলবো— উঠ উঠ হে ছন্দরী, তব পদছ পচ্ছ যোগ্য নহে এ ধরণী । তুমি কেন ধলোয় পতিত ? তুমি চল—আমার ছঙ্গে চল। চল ছাঁখ, তুমি আমার হািদয়েচ্ছরী হবে। হ্যদয়ের চ্ছরী —না ছরি ? হািদয়ের ছরি হোয়ো না দোহাই বাবা ছ তদোহাই তোমার!”—বলিয়া চক্ষ খলিয়া, আপন রসিকতায় মগধ হইয় বিমল একট হাসিল। গলাসের বাকীট কু পান করিয়া ফেলিয়া, আবার চিঠিখানি লইয়া পড়িতে বসিল। পড়িল-- “আমার ছন্যে গহে আছিয়, তুমি লক্ষীরপে অবতীর্ণ হও। আমার ছন্যে হৃদয়ে বছিয়া আমায় চিরছখী কর। ভগবানের নাম ছরণ করিয়া গহের বাহির হইও—আছা করি তাঁহার অাছীবাদে আমাদের মিলনের পথ হইতে ছকল বাধাবিঘ্য অপছারিত হইবে।” চিঠি রাখিয়া বিমল বলিতে লাগিল—“উত্তম কথা!—কিন্তু দাদা, তোমারই হদয় কি ছনে ? আমারও যে তাই ভাই। আমার ছব ছন্য ছব ছন্যে। আমার হদয় ছন—প্রেম নেই; গহ ছনা—ইছতিরী নেই—বাকছো ছনা, টাকা নেই! আমার ছব ছনমহাব্যোম—বোম ভেলানাথ—ছনিবার রাত বারটায় আমি যাব—তোমার মন্দিরের কাছে বটগাছের নীচে আমি নকিয়ে থাকবো—চারছিৗলাকে নিয়ে এছে আমার ছন্যে গ্রহ ছন্যে হৃদয় পণ্য করবো। তুমি হচ্চ বিঘা বিনাছনের বাপ—তাকে ছাবধান করে দিও—যদি কোনও বাধা বিঘ্যু ঘটে—তোমার জ্যেষ্ঠ পত্তিরকে এর জন্যে রেছপানছিবিল হতে হবে—এই ছাপ কথা আমি বলে রাখলাম।”—বলিয়া বিমল বীররসের সহিত বিছনায় এক মন্ট্যোঘাত করিয়া, চক্ষ খলিল। আর খানিকটা সারা ঢালিয়া, জল মিশাইয়া পান করিয়া হাত নাড়িয়া ধন্ততার সরে বলিতে লাগিল, লেডিজ এন্ড জেনেলমেন, তোমরা ভাবছে—মাতালছ্য নানাভঙ্গি—এখন এ বেটা মদের খেয়ালে এই ছব বলছে—কাল এছব কিছই মনে থাকবে না। তা নয় তা নয়-হাম যায়েঙ্গা।—আলবৎ যায়েঙ্গা –ঢেকে যায়েঙ্গা--আমায় চিনতে পারবে না। তার পর এই বাছায় এনে তাকে বন্দিনী। অাদরে যত্নে মিছটি কথায় তিরিলোককে বছীভূত করতে কতক্ষণ ?—আর আমার এ চেহারাটাও কি কোনও কাজে লাগবে না ?— এখন একটা ছোয়া যাক ৷”—বলিয়া মাতাল বিছানায় দেহ লটাইয়া দিয়া, নিদ্রাঘোরে অচেতন হইয় পড়িল। কোথায় বহিল তার পরোটা—আর কোথায় রহিল তার সাধের ফাউলকারি }

  • У о