পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/১১৬৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কলকাতায় গেছে; ৩।৪ দিনে ফেরবার কথা, তা আজও ফিরলো না, আমি ত তাই ভেবে মরছি দিদি ৷” ঘোষগহিণী বলিলেন, “না কিচ্ছ ভাবনা নেই, ঠাকুরপো ভালই আছেন, ওর সঙ্গে দেখা হয়েছিল যে !” “দেখা হয়েছিল ?—যা হোক ভাল আছে শুনে তব নিশ্চিত হলাম। ওর সঙ্গে কবে দেখা হয়েছিল দিদি, তা কিছু বললেন বটঠাকুর ?" “হাঁ—বললে, পরশ বঝি। কোথায় নেমন্তম ছিল, সেইখানে দজনে দেখা হয় ।” “নেমন্তন ছিল ? কিসের নেমন্তন ভাই ?” ঘোষগহিণী অন্য দিকে মুখ ফিরাইয়া বললেন, “কে জানে বিয়ের না কিসের " “কবে আসবে তা কিছ শনলে ?” “হ্যাঁ—বললেন তাঁর আসতে এখনও হস্তাখানেক দেরী আছে।” সশীলা মনে মনে হিসাব করিল—“পরশ বিয়ে হয়ে গেছে—কাল গেছে কালরাত্রির —আজ ফলশয্যে—শ্বশুরবাড়ীতে অষ্টমঙ্গলা সেরে বাড়ী ফিরতে এখনও হস্তাখানেক দেরী ত আছেই বটে ।” ঘোষগহিণী বলিলেন, "কেন, তোমরা কি তাঁর কোনও চিঠিপত্র পাওনি ?” “ন দিদি, গিয়ে অবধি একখানি চিঠিও লেখেনি।”-—বলিয়াই সুশীলা আর আত্মসমবরণ করিতে পারিল না—ঝর ঝর করিয়া কাঁদিয়া ফেলিল । ঘোষগহিণী বলিল, “ওকি—ওকি ভাই কাঁদছ কেন ? এই ঠিক দপুর বেলায়, স্বামীর কথা কইতে কি কাঁদতে আছে ? তাতে তাঁর অমঙ্গল হবে যে ”—বলিয়া তিনি নেহের হস্তে সুশীলার চক্ষ মছাইয়া দিলেন। সশীলা নিজ অঞ্চলেও মুখ চক্ষ মছিয়া গ্রীবা উন্নত করিয়া জিজ্ঞাসা করিল, “হ্যাঁ দিদি, একটি কথা তোমায় জিজ্ঞাসা করি—তুমি সত্যি বলবে ? যদি মিথ্যে বলবে ত আমার মাথা খাবে। তোমার মা কালীর দিবি, মা মনসার দিবি, বাবা তারকনাথের দিবি, বাবা বিশবনাথের দিবিব—সে নাকি আবার বিয়ে করেছে ?” এই সকল ভীষণ দিব্যগুলি শনিয়া ঘোষগহিণীর মুখখানি অত্যন্ত গভীর ভাব ধারণ করিল। তিনি মুখখানি নত করিয়া বলিলেন, “তোমায় কে বললে এরই মধ্যে ?” "সে যেই বলকে। কথাটা সত্যি ত?” “উনি ত বললেন ভাই। কার কাছে প্রকাশ করতে আমায় মানা করেছিলেন, আমি ত কাউকে বলিনি, তবে তুমি শনলে কি করে তুমিই জান, আর ভগবান জানেন। আর কেউ দেখে এসে বলেছে বোধ হয়। এ সব কথা কি আর চাপা থাকে ? বলে ধৰ্ম্মেমরি ঢাক আপনি বেজে উঠে।” “তাই বেজেছে দিদি। আমি যখন জানতেই পেরেছি তখন আর আমার কাছে লুকিয়ে কি হবে ? যা যা তুমি শনেছ সব আমায় বল।” ঘোষগহিণী যাহা বলিলেন তাহার মন্ম এই—বিবাহ করিবার কোনও ইচ্ছাই পলিনবাবর ছিল না কেবল ঘটনাচক্লেই ইহা হইয়া গিয়াছে। গিয়াছিলেন একটা বিবাহের নিমন্ত্রণে—পলিনবাবও ঘোষ মহাশয়ও । কন্যার পিতা তাদশ ধনবান নহেন কিন্তু কন্যাটি খুব সুন্দরী আর লেখাপড়াও বেশ শিখিয়াছে, বয়সও একটু হইয়াছে—১৫১৬ বছরের কম হইবে না। - ঘড়ি আংটি প্রভৃতি দান-সামগ্রী একট খেলো হইয়াছিল বলিয়া বরের বাপ আরও ২oo, অতিরিক্ত দাবী করিয়া বসেন। এই লইয়া বরপক্ষ কন্যাপক্ষে বিবাদ ও গালাগালি হওয়াতে, বরপক্ষ বর উঠাইয়া লইয়া প্রস্থান করেন। মেয়ের জাত যায় দেখিয়া, সৃভাস্থ সকলের অনুরোধে পলিনবাব নিতান্ত অনিচ্ছা সত্ত্বেই সেই মেয়েকে বিবাহ করিয়াছেন। এই বিবরণ শেষ করিয়া ঘোষগহিণী বলিলেন, “তা ভাই, তুমি কিছ দঃখ কোর - 二 " ২৩২ ty