পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/১১৯৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ছেন। যাত্রা, থিয়েটার, ম্যাজিক প্রভৃতি দেখিয়া খুব আনন্দেই তাঁহারা সময় কাটাইতেছিলেন। বিশেষতঃ বেণী বস, থিয়েটার দেখিয়া একেবারে মোহিত হইয়া গিয়াছেন। এই দলটি কলিকাতার কোনও একটি “অবৈতনিক" সম্প্রদায়। পরোযমানুষই গোঁফ-দাড়ি কমাইয়া মন্ত্রীলোক সাজে। এক দিন শকুন্তলা, এক দিন নব-নাটক এবং একদিন নীলদপণ অভিনয় হইয়া গিয়াছে। শেষোক্ত অভিনয় দেখিয়া দশকবৃন্দ আত্মহারা হইয়া পড়িয়াছিলেন, তাই আর এক দিন নীলদপণ অভিনীত হইবে। থিয়েটারের দল যেখানে বাসা করিয়াছে, বেণী বসু তথ্য যাতায়াত আরম্ভ করিয়াছেন এবং সেই দলের কয়েক জন লোকের সহিত বেশ আলাপও জমাইয়া তুলিয়াছেন। সীতানাথ ঠাকুন্দার সঙ্গে তিনি পরামর্শ করিয়াছেন, গ্রামে ফিরিয়া তথায় একটি থিয়েটারের দল খুলিতে হইবে। এই অবৈতনিক সম্প্রদায়ের বিশিষ্ট অভিনেতা শিবনাথ সান্নাল এ বিষয়ে ই‘হাদিগকে যথাসাধ্য যাহায্য করিতে প্রতিশ্রত হইয়াছেন। শিবর বয়স আন্দাজ ৩০ বৎসর, কথাবাত্তায় খব চৌকস ; কিন্তু একটু ইংরাজী বািকনি মিশানো তার অভ্যাস। অভিনয় কাষে সে ওস্তাদ । পাকাপাকি পরামর্শ করবার জন্য বেণী বসু আজ শিবনাথকে নিজেদের বাসায় নিমন্ত্ৰণ করিয়াছেন। সন্ধার কিছু পর্বেই বাহির হইয়া তিনি থিয়েটারণ বাসায় গিয়াছিলেন, সন্ধ্যার পর শিবনাথকে সঙ্গে করিয়। নিজ বাসায় আসিতেছিলেন। পথে নরহরির সহিত সাক্ষাৎ। বিস্মিত হইয়া বলিয়। উঠিলেন, “কি হে, তুমিও যে এসেছ দেখছি!" নরহরি বলিল, “না এসে আর কি করি বল বেণীদা ! গিন্নী যে ছাড়লেন না !” “গিন্নীকেও এনেছ নাকি ?” “এনেছি বইকি। তা ছাড়া মিত্তির বাড়ীর ঠানদিদি, মল্লখয্যেদের খড়ীমা, জ্যেঠাইমাও এসেছেন। তাঁরা সব আরতি দেখতে গেছেন, আমি তাঁদের আনতে যাচ্ছি।” "আচ্ছা, তা বেশ বেশ! এলেই যদি, দ’দিন আগে আসতে হয় ; নীলদপণ দেখতে পৈতে । আচ্ছা তাতে ক্ষতি নেই, কাল রাত্রে আবার নীলদপণ হবে। দেখতে যেও নিশ্চয় | সে যে কি চমৎকার—দেখলে অব জীবনে ভুলতে পারবে না। চল হে শিব রাত হয়ে যাচ্ছে।” পথে শিব জিজ্ঞাসা করিল, “কে হে ফেলো ?” বেণী বস নরহবির পরিচয় দিলেন; তাহার অসাধারণ পত্নীভক্তির বিষয়ও সালঙ্কারে লণনা করিলেন। শনিয়া শিব হাসিত লাগিল। বাসায় পেশছিয়া বেণী বস দেখিলেন, সীতানাথ হাঁকা হাতে বসিয়া পাকা রই মাছের পোলাও রন্ধন তদারক করিতেছেন। বললেন, “শিবকে ধরে নিয়ে এলাম ঠাকুন্দা! আর একটা খবর শুনেছেন - নরহরি এসেছে। এইমুর পথে আসতে আসতে তার সঙ্গে দেখা হ’ল।” সীতানাথ বলিলেন, “কে ? আমাদের গ্রামের নরহরি ? সত্যি নাকি ? বউকে ফেলে ? দেথি দেখি, সফ্যি আজ কোন দিকে অসত যাচ্চেন।-বলিয়া হাসিতে হাসিতে সীতানাথ বারান্দা হইতে গলা বাড়াইয়া আকাশের দিকে চাহিলেন । বেণী বস বলিলেন, “বউকে ফেলে আসবে, তাও কি সভব, ঠাকুন্দা ? সঙ্গেই এনেছে।” সীতানাথ ঘাড় বাঁকাইয়া বললেন, “বউটাকে এই ভিড়ে, গলায় বোধে নিয়ে এসেছে নাকি ? কেলেণ্ডকারী " বেণী বস, ইতিমধ্যে মাদর বিছাইয়া, শিবনাথকে লইয়া তথায় উপবেশন করিয়াছিলেন। সীতানাথ দাই জনকে দই ভাঁড় সিধি দিয়া নিজে এক পাত্ৰ লইয়া পান করিতে করিতে বলিলেন, “কেলেণ্ডকারী আর কাকে বলে! এক পাড়ায় বাস, আমাদের গিন্নীরাও ত সবই শুনেছেন, দেখেছেন ; বাড়ী ফিরে গেলে আমাদের দশাটা কি হবে বল দেখি দাদা "ি - ২৬২