পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/১২০৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ত নিজে যাওয়া একরকম সিথরই করেছি। সেখানে গিয়ে কি রকম কাষ্যপ্রণালীটা অবলম্বন করি বল দেখি ?” “নিজে যাচ্ছ ? তাহলে আর ভাবনাটা কি ? কিছয় টাকা খরচ করলেই হল।” “কি করবো ? ছড়িকে কিছু টাকা দিয়ে, তাকে ভাগিয়ে দেবো ?” সেন সাহেব হুইস্কির গলাসে চমক দিয়া বলিলেন, “উহ! সে সবিধে হবে না। ছড়ি কি রাজি হবে ? সে হয়ত ভাববে, বিয়ে হলে এই বড়োর ষোল আনা সম্পত্তিই ত আমার ; এখন দ্য কি পাঁচ হাজার নিয়ে কি হবে ? কিংবা, সে টাকাও নিতে পারে, বিয়ে করবার মংলবও পরিত্যাগ না করতে পারে। তার চেয়ে বরঞ্চ এক কাজ কর না, সত্য !” সত্যবাব সাগ্রহে বলিলেন, “কি ? "দড়িাও”—বলিয়া তিনি গলাস তুলিয়া সেটা খালি করিয়া বললেন, “তোমাকেও একটা পেগ দিক ?” - সত্যবাব সম্মতি জানাইলে, বয়কে ডাকিয়া দুইটা পেগ দিতে আদেশ করিলেন। পাইপ টানিতে টানিতে বলিলেন, “কৃষ্ণকান্তের উইল পড়েছ ত ? গোবিন্দলালের ঘাড় থেকে ভূত ছাড়াবার জন্যে ভ্রমরের বাপ মাধবীনাথ যে ফন্দি করেছিলেন, তুমিও তাই কর না কেন ?” সত্যবাব বলিলেন, “নিশাকর পাই কোথা ?” “নিশাকর হবার মত একটি লোক আমার হাতে আছে।”

  • কে ?”

“নবীন দত্ত। হাঁর দত্তের ছেলে নবীন দত্ত। বছর &॥৭ হতভাগাটা বিলাতে ছিল ; শাধ ক্ষত্তি করেই বেড়িয়েছে—পাস-টাস কিছু করতে পারেনি। বিলাতে যে কত লীলা সে করে এসেছে তার সংখ্যা নেই ; একবার না দু’বার তার জেল পৰ্য্যন্ত হয়েছিল। বাপ মারা যাবার পর টাকার অভাবে দেশে ফিরে এসেছে—এখন বেকার অবস্থায় চাকরির চেণ্টায় ঘরছে। সে যে রকম বদমাইস, কিছু থোক টাকা পেলে স্বচ্ছন্দে রাজি হবে এখন। কাষ হাঁসিল করে আসবে।” সত্যবাব বললেন, “টাকা খরচ করতে আমি রাজি আছি।” “তাকে তার মেহনতানা দিতে হবে । তারপর, সরঞ্জামি খরচ । সে একটা রাজ-টাজা নবাব-টবাব সেজে, ছড়িকে হাত করে নেবে কিনা! সুতরাং তাকে একট লম্বা হাতেই টাকা খরচ করতে হবে।" সত্যবাব বলিলেন, “বুঝেছি। ঢাকার জন্যে আটকাবে না। সে লোক কোথায়, তাকে একবার ডাকাও ৷” সেন বলিলেন, “সে কি এখন আসবে ? সে এখন ক্লাবে বসে পেগ টানছে। কাল সন্ধ্যেবেলা বরণ তাকে এখানে আনিয়ে রাখবো, তুমি সন্ধের পর এস। তার বায়না স্বরুপ একটা চেকও সঙ্গে এন ।” “বেশ, তাই আনবো।” দই চারিটি অন্যান্য কথার পরে সত্যবাব উঠিলেন। পরদিন সত্যবাব যথাসময়ে বন্ধগহে উপস্থিত হইয়া, দত্ত স্লাহেবের দেখা পাইলেন। দত্ত রাজি। ইংরাজিতে বলিল, “এ আর একটা শক্ত কথা কি ? সে ঠিক হয়ে যাবে এখন । আমাকে কিন্তু নবাব সাজতে হবে। মূববেচিত সকল সরঞ্জামই চাই। অন্য সব জিনিষ সেখানেই পাওয়া যাবে, কেবল একটা জমকালে রকমের রপোর গড়গড়ি, লক্ষেয়ীয়ের খানিকটে সগন্ধি তামাক, আর কিছ টিকে এখান থেকে সঙ্গে নিতে হবে। আর, একটা ফেজ ক্যাপ ।” i - তিনজনে রসিয়া অনেকক্ষণ পরা হইল। ইত্যবসরে দত্ত আধ বোতলের উপর ՏԳՆ