পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/১২১৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


গভীর নিদ্রায় অভিভূত হইয়া পড়েন-এবং প্রায়ই একঘমে তাঁহার রাত কাটিয়া যায়। প্রভাতে উঠিয়া দেহে নতন বল অনুভব করেন, এবং এখন পরোপেক্ষা অধিক পরিশ্রম করিয়াও কাতর হইয়া পড়েন না। এতদিনে ইহাদের ভাষাও তিনি কিছু শিখিয়া ফেলিয়া'ছেন। আবদুল্লখু শিখিয়াছে। . চায় । এই অসভ্যন্ত্রণের একজনের একটি বালক পত্র আবদলের বড়ই প্রিয় হুইয়া উঠিয়াছিল। আবদল যখন কাজ করত, তখন সে প্রায়ই তাহার কাছে কৃাছে থাকিয়া খেলা করিত;—কায শেষ হইলে, আবদলে তাহাকে কোলে বা কাঁধে তুলিয়া বেড়াইতে ঘাইত। সেই দ্বীপে নানা জাতীয় শরগাছ ছিল—কোনটার ছাল শাদা ধবধবে, কোনটার পীতবর্ণ, কোনটার বা টকটকে লাল। আবদল একদিন অবসর সময়ে বসিয়া, নানা বর্ণের শরকাঠি হইতে ছাল ছাড়াইতে লাগিল। ছেলেটি জিজ্ঞাসা করিল, “এ সব কি হইবে আবদলে ?” আবদল বলিল, “তোর জন্য একটা মজার জিনিস তৈরী করিয়া দিব ।” পরদিন কাৰ্য্যশেষে আবদল বসিয়া সেই শরের ছালগুলি দিয়া, বালকের জন্য একটি টুপী বুনিয়া দিল। সেই টপী মাথায় দিয়া বালক ত আনন্দেই আটখানা !—সে নাচতে নাচিতে গিয়া তাহার. জনক জননীকে উহা দেখাইল। সেই সন্দের টপী দেখিয়া, অসভ্যগণের মনে সেইরূপ টপী পরিবার জন্য অত্যন্ত লোভ জন্মিল। তাহারা আবদলকে কাঠ কাটা, মাৰ্টী খোঁড়া প্রভৃতি কাৰ্য্য হইতে অবসর দিয়া বলিল, “তুমি কেবল সারাদিন বিভিন্ন মাপের এইরূপ টপী প্রস্তুত কর—আমাদের সকলের জন্যই এইরূপ টপী চাই। অবশ্য সন্দার মহাশয় ও তাঁহার পত্র পরিবারগণের . টপৗগলিই প্রথমে প্রস্তুত করিতে হইবে।” ইহার পর হইতে আবদলে কেবল টুপীই বানিতে লাগিল। তাহার কাজের সৌন্দৰ্য্য দেখিয়া, অসভ্যগণ অত্যন্ত প্রীত হইল। বাসের জন্য তাহাকে ভাল ঘর দিল, এবং খাদ্যদুব্যাদিও ভাল ভাল দিতে লাগিল। নবাব বাহাদর সেই কাঠ কাটা এবং মাটী খোঁড়ার কাৰ্য্যেই নিযুক্ত আছেন। তাঁহার দেহে এখন বিলক্ষণ বলসঞ্চয় হইয়াহুে-দেহ নীরোগ,—ভাগ্যবিপৰ্য্যয় সত্ত্বেও, মন এখন বেশ প্রফুল্ল থাকে। আবদলের প্রতি এখন আর তাঁহার মনে কিছুমাত্র ঈষর্ণ বা বিদ্বেষ নাই--তাহীর সহিত বন্ধভাবেই মিশিয়া থাকেন। আবদলও তাঁহাকে যথাসাধ্য সাহাষা করে, এবং নিজের ভাল খাবারগুলির ভাগ দেয়। বৎসর অতীত হইল। পারস্য রাজ্যের জাহাজ আবার এই দ্বীপে আসিয়া লাগিল । কাপ্তেন নামিয়া আসিয়া, নবাবকে এবং আবদলকে জাহাজে তুলিয়া লইয়া গেলেন। । পাঁচ ৷ যথাসময়ে জাহাজ গিয়া পারস্য দেশে পেপছিল। রাজাদেশে, আবদল ও নবাব উভয়কেই সেই কাজি সাহেবের নিকট উপস্থিত করা হইল। তখনও উভয়েরই বন্দী-বেশ। কাজি সাহেব নবাব বাহাদরকে সবোধন করিয়া বলিলেন, “অলস ও অকমণ্য ধনী মুকুতি লীলা গলে কি জয় আপন হাদ দিলে কি ?” “এখন আপনার ক্ষুধা কিরুপ হয় ?” “বিলক্ষণ হয়।” “আর निम्ला ?” “অতি সনিদ্রা হয়--রারি কোথা দিয়া কাটিয়া যায় তাহা জানিতেও পারি না।” "ইহার কারণ কি, তাহাও বােধ হয় আপনু উপলখি করিয়ছেন?" --- - २४१