পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/১৫৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ত ঠিক হইবে না। এ আলো নিবাইয়া, দুইটি মোমবাতি জম্বালিয়া দিতে বলন।” সাহেবের আদেশ মত কায্য হইল। তারপর তিনি বলিলেন, “আপনার সত্রী এবং আপনি ভিন্ন, এ কক্ষে অপর কেহ থাকিতে পাইবে না। সমস্ত দয়ার জানালা বন্ধ করিয়া দিন, বাহিরের কোনও শব্দ এখানে না আসিতে পারে। আপনারা দুজনে কন্যার পশ্চাতে দাঁড়াইয়া থাকুন। আমি পাস দিতে আরম্ভ করি।” এ আদেশও সমপন্ন হইল । তারপর, সেই ক্ষীণ আলোকে, সাহেব নিজ প্রক্লিয়া আরম্ভ করিলেন । কিয়ৎক্ষণ পাস দিবার পর, প্রমীলার চক্ষ মাদ্রিত হইল, মাথাটি চেয়ারের পিঠে ঢলিয়া পড়িল । সাহেব মাঝে মাঝে সুগম্ভীর অথচ মদ বরে বলিতে লাগিলেন—Sleep—sl—eep— Dee—p sl—eep প্রায় ১৫ মিনিট কাল এইরুপ প্রক্রিয়া চলিলে পর. সাহেব নিরস্ত হইলেন। নবগোপালবাবর পানে চাহিয়া বলিলেন—“আপনার কন্যা, গভীর হিপ'নটিক নিদ্রায় অভিভূত। এইবার আমি ইহাকে প্রশন করি ?” - নবগোপালবাব শিরশচালনে সন্মতি জানাইলেন । সাহেব, ইংরাজি ভাষায়, গম্ভীর সবরে জিজ্ঞাসা করিলেন, “কন্যে, তোমার নাম কি ?” প্রমীলার পিতামাতা দর দর হৃদয়ে প্রতীক্ষায় রহিলেন। আহা!—এতদিন পরে আবার কি তাঁহারা আদরিণী কন্যার কন্ঠস্বর শ্রবণে কণ জড়াইবেন ? প্রমীলা কিন্তু নিরক্তর। প্রায় এক মিনিট কাল অপেক্ষা করিয়া, এবার গভীর সবরে বললেন, “কন্যে, তোমার নাম কি বল। আমার আদেশ । তোমায় বলিতেই হইবে।” অতি ক্ষীণস্বরে উত্তর হইল—“প্রমীলা—চাটাডিজ ।” সেই ক্ষীণস্বর, প্রমীলার পিতা-মাতার কণে যেন মধ্যসিঞ্চন করিল, তাঁহাদের হৃদয়ে আবার নব আশা জাগরিত হইয়া উঠিল। সাহেব প্রশ্ন করলেন, “স্বাভাবিক অবস্থায়, যখন তুমি জাগিয়া থাক, তখন কথা কহ না কেন ?” ইংরাজি ভাষায়, ক্ষীণস্বরে অতি ধীরে ধীরে উত্তর হইল—“আমি টাইফয়েড জরে —ভুগিয়াছিলাম, সেই অবধি—বাকশক্তি হারাইয়াছি।” - সাহেব। সে টাইফয়েড জনরে তোমার বাকশক্তি কি একেবারে ধবংস হইয়া গিয়াছে ? প্রমীলা। না—ধবংস হয় নাই। জগতে—কিছুই—ধ্বংস হয় না। বাকশক্তি আছে, —তবে তাহা—চাপা পড়িয়া—গিয়াছে—আমি আর—তাহাকে—খাজিয়া পাই না। সাহেব। কিসে চাপা পড়িয়াছে ? প্রমীলা। দঃখে। আমার—জীবনে-একটা—গভীর দুঃখ আছে—সেই দঃখরাশির নিনে—আমার বাকশক্তি-চাপা পড়িয়া গিয়াছে। সাহেব। তোমার জীবনে কি সে দুঃখ ? তোমার পিতামাতা কি তাহা অবগত আছেন ? প্রমীলা। হাঁ আছেন বইকি—দুঃখের—কারণ কি—তাহা জানেন,–কিন্তু-সে দুঃখের —পরিমাণ কি,—তাহা কত গভীর—তাহা আমার জীবনীশক্তিকে কি পৰ্য্যন্ত বিপৰ্য্যস্ত করিয়া রাখিয়ছে, সেটা উহারা উপলব্ধি করিতে পারেন না। সাহেব। কি সে দঃখ, তুমি আমায় বল। প্রমীলা নীরব। সাহেব অন্ধ মিনিট কাল অপেক্ষা করিয়া, গভীরস্বরে বললেন, “আমার আদেশ, তোমার সে দুঃখ কি, তাহা এই মহমত্তে আমার নিকট প্রকাশ করিতে হইবে।” তথাপি প্রমীলা নীরব। নবগোপালবাব হস্তসঙ্কেতে নিরস্ত করিলেন এবং ডাকিয়া চপি চপি বলিলেন, “থাক, ওবিষয়ে উহাকে পীড়াপীড়ি করিয়া কাজ নাই। আপনি 옆