পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/১৮৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


একজনের মতই হইয়া পড়িয়ছে। সুতরাং মিস জেসিকে বিদায় দিয়া ডোরাকে রাখাই লিথর হইল। / পরদিন রাজেন্দ্ৰবাব নিরঞ্জনকে বললেন, “বাবা এখন তুমি বেশ সেরে উঠেছ এইবার আমি ফিরে যাই না কেন ? দুহস্তার উপর হ’ল এসেছি—সেখানে কাজকম কি ভাবে চলছে না চলছে কিছুই ত বৰ্ব্বতে পারছি না। একবার মনে করেছিলাম তুমি পথ্য পেলে তার পর যাব—কিন্তু তা হলে আরও ৩৪ দিন দেরী হয়ে যায়।” নিরঞ্জন বলিল, “আমার জন্যে বেশী কিছু ভাববেন না মামাবাব । আমি ত এখন বেশ ভাল হয়ে উঠেছি—ক্ষিদেও খুব হয়েছে—দটি ভাত পেলেই এখন বাঁচি । আপনি কবে যেতে চান ?” “আজই সন্ধ্যার গাড়ীতে রওয়ান হই ।” “আচ্ছা বেশ, যা ভাল হয় তাই করন মামাবাব ।” এই সময় ডোরা প্রবেশ করিল। রাজেন্দ্রবাব বললেন, “ডোরা মা, তোমার চা খাওয়া হ’ল ?” “না মামাবাব, আমি যে আজ আপনার সঙ্গে চা খাব কাল আপনি বলেছিলেন।” “হাঁ-হ্যাঁ, বেশ ত। চল, তোমার ঘরে বসেই দুজনে চা খাইগে।” নিরঞ্জন বলিল, “ডোরা, তুমি চ খেয়ে এসে আমায় খবরের কাগজ পড়ে শোনাবে ত?” “শোনাব বইকি”—বলিয়া ডোরা রাজেন্দ্রবাবরে সহিত চলিয়া গেল। এক টেবিলে, ডোরার সহিত একত্র বসিয়া চা পান করিতে করিতে রাজেন্দ্রবাক বলিলেন, “তোমার সঙ্গে নিজনে একটা কথাবাৰ্ত্ত কইবার জনেই তোমাকে এখানে ডেকে এনেছি। আজ ত আমি চললাম, মা !” “চললেন ? আমিও তা হ’লে যাই, কি বলেন ?” “তুমি আরও দিনকয়েক থাক না, নির পথ্য পাক-তারপর ষেও।” মাথাটা নত করিয়া ডোরা বালল, “আচ্ছা, তাই ।” “কিন্তু মা, যে সব কথা আমি তোমায় বলেছি, তা মনে রেখ।” ডোরা পাবাবৎ অবনত মস্তকে বলিল, “সব মনে রাখবো, মামাবাব।” “ষখন কোনও কিছল তোমার দরকার হবে, তুমি নিঃসঙ্কোচে আমার কাছে লিখে পাঠিও 1" “লিখবো ।” “তোমার পিতা জীবিত থাকলে, তাঁর কাছে তুমি যা বলতে পারতে, যা চাইতে পারতে, যা আন্দার করতে পারতে—আমার কাছেও তুমি ঠিক তাই করবে।” “সে ত আমার সৌভাগ্য, মামাবাব; ”—ডোরার চক্ষু সজল হইয়া আসিল। চা-পান শেষ করিয়া রাজেন্দ্রবাবু বলিলেন, “যাও মা, তুমি এখন নিরর কাছে গিয়ে বসগে। আমি একবার বাজারে বেরবে। কিছু জিনিষ-পত্তর কিনতে হবে।” ডোরা বলিল, “আমিও আজ খেয়ে দেয়ে একবার নাসেসি হোমে যাব। বিকেলের মধ্যেই ফিরে আসবো। আপনি ত সন্ধোবেলা খাওয়া-দাওয়ার পর রওয়ানা হবেন ?” “হ্যাঁ, রাত ৯টায় ট্ৰেণ ৷” “আমি আপনাকে টেশনে তুলে দিতে যাব, মামাবাব ?” “বেশ। তা বেও মা ।”—বলিয়া রাজেন্দ্ৰবাব একটি চরট ধরাইয়া, সকন্ধে চাদর ফেলিয়া, ছড়ি হাতে করিয়া বাহির হইলেন। ডোরাও গিয়া নিরঞ্জনের কক্ষে প্রবেশ করিল চার “আজ ত আপনি পথ্য পেলেন, আমি ওবেলা তবে চলে যাই ?” নিরঞ্জন বলিল, “ভাত খেয়ে কেমন থাকি, সেট দেখা কি আমার দয়াবতী নাসের "שכל