পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/২১০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কিয়ৎক্ষণ পরে আমাদিগকে অন্য কামরায় এক সাহেবের ঘরে যাইতে হইল। পরে শুনিয়াছি, তিনিই স্বয়ং পলিস কমিশনর। সাহেব আমায় পঙ্খোনুপুঙ্খরুপে প্রশন করিতে লাগিলেন। আমি সমস্তই, আবার তাঁহাকে বলিলাম। নবাবসাহেব ও পিয়ারী ಇ ಣ ಗ ಾ ಣ জানিতে পারিয়াছিলাম, তাহা সমস্ত লাম। কমিশনর সাহেব উঠিয়া কোথায় চলিয়া গেলেন। তারপর ঘটনা যাহা হইয়াছিল, আমি তখন সে সব কিছ জানিতে পারি নাই, পরে জানিয়াছি। কমিশনর সাহেব মোটর ছটাইয়া তখনই নবাব সাহেবের বাড়ী গিয়া তাঁহাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। নবাব সাহেব সমস্তই অস্বীকার করেন। এমন কি ! .....মহারাজার সঙ্গে তাঁহার পরিচয়ের কথা পৰ্যন্ত অস্বীকার করেন। তখন কমিশনার সাহেব ডিটেকটিভ ডিপার্টমেন্টের খাতা খলিয়া নবাব সাহেবকে দেখাইয়া দিলেন—নবাব সাহেব কবে কবে কোন কোন দিন গ্ল্যাণ্ড হোটেলে গিয়া মহারাজার সহিত সাক্ষাৎ করিয়াছেন, মহারাজা কোন কোন দিন কোন কোন সময় পিয়ারী বাইজীর বাড়ী গিয়া নবাব সাহেবের সহিত সাক্ষাৎ করিয়াছেন—সে সমস্তই পাখানপতথভাবে ডিটেকটিভগণ তাহাতে লিখিয়া রাখিয়াছে ! (এই ডিটেকটিভগণ অদ্ভুত জীব; ইহাদের অসাধ্য কম নাই। শুনিয়াছি, আমাদের পলায়নের পর পিয়ারী বিবি আমার নামে কিডন্যাপিং চাজী আনিলে, ডিটেকটিভগণ কলিকাতার সমসত ট্যাক্সিচালককে জিজ্ঞাসাবাদ করে। আমাদের ট্যাক্সিওয়ালার নিকট খবর পাইয়া ব্যান্ডেলে যায় এবং ব্যান্ডেল হইতে ঐ ট্রেণে দইখানি মাত্র সেকেণ্ড ক্লাস টিকিট বিক্রয় হওয়া দেখিয়া আমাদের স্টেশনে আসিয়া নামিয়া খুজিতে খুজিতে আমায় বাহির করে।) সেখান হইতে কমিশনর সাহেব নাকি সোজা গভর্ণমেণ্ট হাউসে গিয়া লাট সাহেবের সহিত দেখা করিয়াছিলেন। করদ নপতির নাম শুনিয়া, লাট সাহেব বিশেষ চিন্তিত । হইয় পড়েন এবং এ ব্যাপার নাকি হাশ-আপ করিতে চাপিয়া যাইতে) আদেশ দেন। প্রায় অন্ধ ঘণ্টাকাল তথায় থাকিয়া কমিশনর লালবাজারে ফিরিয়া আসেন। কমিশনর সাহেব আসিয়া আমার পানে চাহিয়া মদ হাস্যসহকারে বলিলেন, “ইয়ংম্যান—তুমি বেকসুর খালাস।” লায়লীর পানে চাহিয়া বলিলেন, “পিয়ারী বিবি তোমায় হেপাজতে পাইবার জন্য আমার নিকট দরখাস্ত করিয়াছে। কিন্তু তুমি প্রাপ্তবয়সকা। তোমার যেখানে ইচ্ছা যাইতে পার। পিয়ারী বিবির কাছে যাইবে ?” লায়লী বলিল, “না সাহেব, দয়া করিয়া সেখানে আমায় পাঠাইবেন না। সে পতিতা সন্ত্রীলোক; আমি পবিত্র জীবন যাপন করিতে চাই। আমি শুনিয়াছি, আমার ন্যায় অসহায়া সত্ৰীলোককে, ব্রাহ্মসমাজের লোকেরা পাইলে সাদরে গ্রহণ করেন এবং সাববিষয়ে সহায়তা করেন। আমি সেইরাপ স্থানে যাইতে চাহি।” সাহেব আবার টেলিফোন ধরিলেন ; একজন উচ্চপদস্থ ব্রাহ্ম ভদ্রলোকের সহিত কথাবাত্ত কহিয়া, একজন ডেপুটী কমিশনরের জিম্বায় লায়লীকে তাঁহার গহে পঠাইয়া দিলেন। তারপর আমার দিকে চাহিয়া বলিলেন, “ইয়ংম্যান, তোমার সাহস, কাৰ্য্যতৎপরতা ও কৰ্ত্তব্য জ্ঞানের বিষয় শনিয়া লাট সাহেব অত্যন্ত খসী হইয়াছেন। পলিসের চাকরি করিতে তুমি সক্ষমত আছ ?” আমি বললাম, “হাঁ হজর।” “উত্তম । আজই তোমায় বাহাল করিলাম।—আধ ঘণ্টার মধ্যেই তুমি নিয়োগপত্র পাইবে। কিন্তু এখন ছয় মাস তুমি রাঁচি গিয়া কাজকর্ম শিখিবে। এ ছয় মাস ৩০. হিসাবে ভাতা পাইবে। সেখানকার পরীক্ষায় পাস করিলেই তুমি ৭০, বেতনে সাব ১১৭