পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/২৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


এলাহাবাদ হইতে আসিয়াছে। এই দেখ এলাহাবাদের ছাপ রহিয়াছে।” হরিবল্লভবাব সাগ্রহে বলিলেন—“তবে ত সে নিশ্চযই এলাহাবাদে গিয়াছে।” জীবনবাব ভ্ৰকুঞ্চিত করিয়া বললেন—“শন। হয় ত এ চিঠির কথা সবৈব মিথ্যা। কোনও লোকের দলটামি। কিন্তু তথাপি রামসন্দর হঠাৎ বাসা ছড়িয়া নিরদেশ হইয়া কোথায় চলিয়া গেল, তাহার মীমাংসা হয় না। নহে ত সে বিভ্ৰাত যাইবার বাসতবিকই আয়োজন করিয়াছে। পত্রে এ কথা বৌমাকে লিখিয়া থাকিতে পারে কিবা হয় ত এই মহেত্তে সে এলাহাবাদেই অবস্থান করিতেছে।” হরিবল্লভবাব প্রস্তাব করিলেন–“তবে এলাহাবাদে টেলিগ্রাফ করিয়া দিই, যাহাতে সে না যাইতে পারে।” জীবনবাব বললেন—“পর্বে সংবাদ লওয়ার প্রয়োজন, সে এলাহাবাদে আছে কি না।” হরিবল্লভবাব ইহাই উচিত বিবেচনা করিলেন। বলিলেন— “যদি এলাহাবাদে থাকে, তবে আবার টেলিগ্রাফ করিয়া দিব যাহাতে বিলাত না যাইতে পারে, এবং কল্যকার ডাকগাড়ীতে আমি সবরং এলাহাবাদে গিয়া ছেলেকে ফিরাইয়া আনিব।" তৎক্ষণাৎ নিমাইবাবকে আজেণ্ট টেলিগ্রাম প্রেরিত হইল-“রামসুন্দর ওখানে আছে কি না এবং কেমন আছে।” জীবনকৃষ্ণবাব বললেন—“যদি সে বাস্তবিকই বিলাত যাইবার ইচ্ছা করিয়া থাকে, তবে পথের মাঝে এলাহাবাদ, ওখানে না হইয়া কখনই যাইবে না। আজকালকার ছেলে কি না ! —যদি এখনও না গিয়া থাকে, তবে আবার টেলিগ্রাফ করিয়া এলাহাবাদে তাহকে আটক করান যাইবে। আর যদি কোনও উপায়ে জাহাজের ভাড়া সংগ্রহ করিয়া যাত্রা করিয়া থাকে, তবে তাহার পাঁড়বার খরচ তোমাকে যোগাইতেই হইবে । আদটে থাকে ত ছেলেটা মানুষ হইয়া আসিবে।" তখন রাত্রি নয়টা বাজিয়া গিয়াছে। জীবনকৃষ্ণববর বারবার অনুরোধে হরিবল্লভ<াব, হস্তপদাদি প্রক্ষালন করিয়া সন্ধ্যাচ্চনায় মনোনিবেশ করিলেন। হাহারাদি শেষ হইতে এগারোটা বাজিয়া গেল। এই সময়ে এলাহাবাদ হইতে উত্তর শুসিল—“রামসুন্দর এখানে আছে। ভাল আছে ” বৃদ্ধ হরিবল্লভ এ সংবাদ পাইয়া আনন্দের অশ্রধারা রোধ করিতে পারলেন না। সুীবনবাবরে হাতটি ধরিয়া বলিলেন—“ভাই, তুমি আজ আমার প্রাণদান দিলে। আজ আমার যে উপকার করিলে, তাহা আমি এজন্মে বিস্মত হইতে পারিব না। ঈশবর স্থামাকে ধলে পত্রে লক্ষীবর করন।” *দীবনকৃষ্ণবাব হাসিয়া বলিলেন—“আমি আর তোমার উপকারটা কি করিলাম ?” ললিলেন-বিলক্ষণ ! তুমি না পরামর্শ দিলে ও সব বৃদ্ধি কি আমার পাড়াগোয়ে মাথায় প্রবেশ করিত ?" তৎক্ষণাৎ দ্বিতীয়বার এলাহাবাদে আর্জেন্টি টেলিগ্রাফ প্রেরিত হইল—“রামসুন্দর BBDDB BBBB SBBBBBB BBBS BBBB BB BBS BBB BBBBB S ইহার পর দুই বন্ধ রাত্রের মত পরসপরের নিকট বিদায় লইয়া শয্যাশ্রয় গ্রহণ করিলেন। মানসিক উৎকণ্ঠাবশতঃ সমস্ত রাত্রি হবিবল্লভববর নিদ্রা হইল না বলিলেই হয়। চতুর্থ পরিচ্ছেদ পরদিনের প্রভাতটি বড় সদর হইয়া এলাহাবাদ সহরে দেখা দিয়াছে। পরবদিনের মেঘ ও ব্যটি একেবারে অন্তহিত । রামসুন্দর প্রাতভ্রমণের পর ফিরল। তখন বেলা ភ្នំ ৭টা হইবে । বৈঠকখানার ঘরে প্রবেশ করিয়া দেখিল, তাহার শবশরেমহাশয় সেই মাত্র টা পান শেষ করিয়া আরামকেদারায় বসিয়া চরক্ট সেবা করিতেছেন এবং একখানি সংবাদ २०.