পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/২৬১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ইন্দবাব বলিলেন, “আমিও ত পড়েছিলাম, আমার ত মনে ছিল না। ওর খব স্মরণ-শক্তি ত!” 江 মনোরমা বলিল, “খবরের কাগজ পড়ার ওর ভারি সখ কিনা। তোমার যে ইংরেজি কাগজ আসে, ও ত পড়তে পারে না। একদিন বলছিল, দাদাবাব একখানা বাংলা কাগজ নেন না কেন, তা হলে আমরাও পড়তে পারি।” ইন্দবাব বললেন, "একখানা ইংরেজি কাগজ নিচ্ছি, আবার একখানা বাংলা—এত টাকা কোথায় ?” Б[3] মাসখানেক পরে, ইন্দবাবর পাটক ব্রাহ্মণ তিন মাসের ছদটী চাহিল। দেশে তার *বশরে নাকি মারা গিয়াছে, কন্যাই তার একমাত্র সন্তান, জ্যোৎজমি যাহা কিছু বশর রাখিয়া গিয়ছে, সমস্তই তাহার প্রাপ্য, কিন্তু দণঃপ্রকৃতি জ্ঞাতিরা সে সকল জবর দখল করিবার চেষ্টায় আছে। এই বলিয়া, কয়েকদিন পরেই বামন-ঠাকুর দেশে রওয়ানা হইল । ঠিকাদারবাবর সাহায্যে অন্য একজন পাচক সংগ্রহের চেষ্টা চলিতে লাগিল । পাকশালার ভার পড়িল মোক্ষদার উপর। মনোরমাও তাহাকে মাঝে মাঝে সাহায্য করে। এইরুপ কয়েকদিন চলিলে, ইন্দবাব একদিন বিপ্রহরে আহারে বসিয়া বলিলেন, “ওগো দেখ; সেই সবদেশী কয়েদ শরৎ বড়িয্যের সঙ্গে আজ আমার অনেক কথা হ’ল।” “কি কথা হ’ল।” “সে আমায় বলছিল, ‘মশাই, জেলের অন্ন খেয়ে খেয়ে আমার ত প্রাণ ওঠাগত হয়ে গেল ! বাড়ীর কাজ-কম করবার জন্যে আপনার ত দু'জন কয়েদী সরকার থেকে বরাদ্দ আছে, আমায় যদি সেই একজনের জায়গায় নিযুক্ত করেন ত একবেলা দুটো খেয়ে বাঁচি –আমি বললাম, তুমি বি-এ পাস, তুমি কি জলতোলা, বাসনমাজা, এ-সব নোংরা কাজ করতে পারবে ? তা ছাড়া, তুমি বামনের ছেলে, এটো বাসনই বা তোমায় দিয়ে মাজাই কি করে? রাঁধতে জান ? সে বললে, কেন আপনার বামন ত আছে।-- জিজ্ঞাসা করলাম, তুমি কি করে জানলে আমার বামন আছে ? সে বললে, ঐ নাথনী আর গরচরণ যারা রোজ আপনার বাসায় কাজ করতে যায়, তারা বলে যে ! আমি বললাম, বামন ছিল, পালিয়েছে। রাঁধতে জান ত বল, গর্চরণের বদলে তোমাকে নিই। সে বললে, ‘আজ্ঞে, রান্না-বান্না মোটামুটি যে না জানি, তা নয়। মা-ঠাকরণ একটু আধট দেখিয়ে শুনিয়ে দিলেই কাজ চালিয়ে নিতে পারবো। আমি তাকে হেসে বললাম, আচ্ছা, দেখি বিবেচনা করে। —কি করবো, আনবো তাকে ?” এই বি-এ পাস কয়েদী সম্বন্ধে মনোরমার মনে কিছু কৌতুহল ছিল; তা ছাড়া ব্রাহ্মণ-সন্তান ডাকাতি না করিয়াও কারাক্লেশ ভোগ করিতেছে জানিয়া তাহার উপর সহানুভূতি জন্মিয়াছিল। তাই সে স্বামীর প্রস্তাবে সহজে সম্মত হইল। ইন্দবাক বলিলেন, “ও যে বলেছে, ওকে একটু দেখিয়ে শুনিয়ে দিতে হবে, তুমি তা পারবে ত?” মনোরমা বলিল, “সেই ত মস্কিল। ওর সঙ্গে কথা কইতে লজা করবে ষে ” “কেন ? কাল যদি একজন নতুন রাঁধনী-বামন আসে, তুমি কি তার সঙ্গে কথা कुश्द ना ?” মনোরমা বলিল, “কিন্তু, সে ত বি-এ পাস হবে না।” ইন্দবাব হাসিয়া বলিলেন, “কি ভাগিাস আমি বি-এ পাস করিনি! তা হলে ফলশয্যের রাত থেকে আজ পর্যন্ত তুমি আমার সঙ্গে কথাই কইতে না বল ?” মনোরমা লজিত-হাসি হাসিয়া বলিল, “কি যে বল তুমি, তার ঠিক নেই। তুমি আর ও সমান ?” Yoš